ইতিহাসে এই প্রথম, নজিরবিহীন, অভূতপূর্ব, আশ্চর্যজনক, কিংবদন্তী, বিস্ময়কর ঘটনা…..


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুজূর পাক হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রশংসা মুবারক বর্ণনা করে সারা বিশ্বজুড়ে অনেক মাহফিল হয়। কোনটি হয় ১ দিন কোনটি হয় ২ দিন কোনটি হয় ৭দিন কোনটি বা হয় ৩০ দিনব্যাপী। কিন্তু সারা বছর এমনকি 

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে নিয়ে ব্যঙ্গচিত্র প্রকাশকারী, কটাক্ষকারী, অবমাননাকারীদেরকে শরঈ শাস্তি মৃত্যুদন্ড প্রদান


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্পর্কে, উনার সম্মানিত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম অর্থাৎ উনার সম্মানিত আব্বা-আম্মা আলাইহিমাস সালাম উনাদের সম্পর্কে, উনার সম্মানিতা আওয়াজে মুত্বহহারাত হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের সম্পর্কে এবং উনার সম্মানিত আওলাদ 

রাজারবাগ দরবার শরীফ থেকে পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার স্বার্থে পরিচালিত কার্যক্রমের কিছু নমুনা


সাম্রাজ্যবাদীরা গণতন্ত্রের মত এক অর্থহীন- অচল- অকার্যকর পদ্ধতি বিশ্বে চাপিয়ে দিয়ে এবং তার মাধ্যমে নিজেদের সুবিধা আদায়ে সহায়ক শাসক শ্রেণী বসিয়ে বিশ্ব নিয়ন্ত্রণ করে যাচ্ছে। এইসব শাসক শ্রেণী কেবল ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য সাম্রাজ্যবাদীদের সুবিধাটুকুই দেখে প্রকারান্তরে বঞ্চিত থাকে আপামর জনগোষ্ঠী। 

জিহাদ মুসলমানদের একটি বিশেষ ফরয ইবাদত, যা ক্বিয়ামত পর্যন্ত জারী থাকবে


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, يَاأَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا لَقِيتُمُ الَّذِينَ كَفَرُوا زَحْفًا فَلَا تُوَلُّوهُمُ الْأَدْبَارَ অর্থ: “হে ঈমানদারগণ, আপনারা যখন কাফিরদের বিরুদ্ধে জিহাদে মুখোমুখী হবেন, তখন আপনারা পশ্চাদপসরণ করবেন না।” (সম্মানিত ও পবিত্র সূরা 

সরকারের ভিতরের ভারতীয় এজেন্টদের বিরোধিতায় গঙ্গা ব্যারেজ নির্মাণের ফাইল বারবার আটকে যাচ্ছে


ভারত কলকাতা বন্দরের নাব্যতা বৃদ্ধি এবং সিল্ট ফ্লাসিংয়ের উদ্দেশ্যে পশ্চিমবঙ্গের হুগলি-ভাগীরথী নদীতে ৪০ হাজার কিউসেক পানি সরিয়ে নেয়ার পরিকল্পনা আঁটে। এজন্যই গঙ্গা (পদ্মা) নদীর উজানে ফারাক্কা নামক স্থানে এই ব্যারেজ নির্মাণ করা হয়। আর ১৯৭৫ সালে তা পরীক্ষামূলকভাবে চালু করা হয় 

৭৮ হাজার কোটি টাকা সুদ দিয়ে এক লাখ এক হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে কেবলমাত্র রূপপুর পারমাণবিক কেন্দ্রই নয়; এরপরে


সরকার ঘোষণা দিয়েছে, দেশের দ্বিতীয় পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র দক্ষিণাঞ্চলে নির্মাণ করা হবে। প্রধানমন্ত্রী তার বক্তব্যে উল্লেখ করেন, আমরা ২৪শ’ মেগাওয়াট পরমাণু বিদ্যুৎ কেন্দ্র নির্মাণ করছি রূপপুরে। আমরা ইতোমধ্যে বরিশাল বিভাগের কয়েকটি দ্বীপ সার্ভে করেছি। আমার ভবিষ্যত পরিকল্পনা রয়েছে বরিশালের এই দ্বীপগুলোর 

ভাস্কর্য কিংবা মূর্তি- তা একই মুদ্রার এপিঠ-ওপিঠ ॥ যারা ভাস্কর্য আর মূর্তিকে আলাদা করতে চায়, তারা গণ্ডমূর্খ ও বকলম


ইসলামবিদ্বেষী নাস্তিকরা এবং তাদের দালাল মিডিয়া, এমনকি তথাকথিত বুদ্ধিজীবী, মন্ত্রী এমপিরাও প্রতিমা, ভাস্কর্য ও মূর্তিকে আলাদা আলাদা বলতে চায়। তারা বলতে চায়- প্রতিমা হলো মানুষ যার আরাধনা উপাসনা করে, ইহকালে-পরকালে মঙ্গল চায়, ভুলের ক্ষমা চায় ইত্যাদি। ভাস্কর্য হলো মানুষসহ কোনো প্রাণী 

অক্ষরজ্ঞান শিক্ষার নামে ইসলামবিরোধী চর্চা!!


নতুন পাঠ্যবইয়ের মধ্যে অনেক সময়ই দেখা যায় অসংখ্য ইসলামবিরোধী ও মুসলিম সংস্কৃতির বিপরীত বিষয়। তন্মধ্যে শুধুমাত্র বর্ণ পরিচয় বা অক্ষর জ্ঞান অংশেই যে সকল ইসলামবিরোধী ও বিধর্মীয় বিষয় শেখানো হচ্ছে তার একটি সংক্ষিপ্ত তালিকা এখানে তুলে ধরা হলো- ১) ঋ-তে শেখানো 

দেশের প্রচলিত আইন প্রথা পরিবর্তন হওয়া দরকার। মামলা জট কমাতে ব্রিটিশ আদলের ছুটি কমানো দরকার। পাশাপাশি দরকার পবিত্র কুরআন


দেশের আদালতগুলোতে মামলার পাহাড় জমছে। বছরে বছরে মামলার সংখ্যা বাড়ছে। ২০০৭ সালের ১৯ লাখ থেকে বেড়ে বর্তমানে সারাদেশে ২৮ লাখে দাঁড়িয়েছে এ সংখ্যা। অর্থাৎ গত ৭ বছরে মামলা বৃদ্ধি পেয়েছে ৯ লাখ। দিন দিন বাড়লেও সরকারের পক্ষ থেকে মামলাজট কমানোর উদ্যোগ 

মুজাদ্দিদে আ’যম, ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার পরিচিতি ও মর্যাদা মুবারক


খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি মানুষের হিদায়েতের জন্য যেভাবে যুগে যুগে হযরত নবী ও রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে প্রেরণ করেন ঠিক তেমনি সর্বশেষ নবী ও রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম 

মূর্তি, মেট্রোরেল, ফ্লাইওভারের পিছনে হাজার হাজার কোটি টাকা খরচ না করে, সে টাকা দুর্গতদের জন্য খরচ করুন


প্রাপ্ত তথ্যমতে, ঢাকায় নির্মিতব্য মেট্রোরেল প্রকল্পে ব্যয় হবে ২১ হাজার ৯৮৫ কোটি ৫৯ লাখ টাকা। এরমধ্যে জাপানের আন্তর্জাতিক ঋণ সংস্থা জাইকা দিবে ১৬ হাজার ৫৯৪ কোটি টাকা। বাকিটা বাংলাদেশ সরকার বহন করবে। অন্যান্য ফ্লাইওভার নির্মাণেও ব্যয় হচ্ছে হাজার হাজার কোটি টাকা। 

গভীর চিন্তায় সকল সৃষ্টির অলৌকিকত্ব পরিষ্কার


অন্তরের বাণী যা রক্ত দিয়া লেখা, সেই কথাগুলি কালির রং রূপ নিলে মানুষ নানা নাম দেয়। কবিতা, প্রবন্ধ, উপদেশবাণী, প্রেম পত্র ইত্যাদি ইত্যাদি। সেই লেখা-লেখিত আমার সরাসরি শিক্ষক হলেন- আমার প্রাণপ্রিয় মুজাদ্দিদগণের শ্রেষ্ঠ মুজাদ্দিদ রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা 

সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছানিয়া আলাইহাস সালাম উনার সাথে সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার বেমেছাল মুহব্বতপূর্ণ সম্পর্ক মুবারক


বিনতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম উনার এবং সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনাদের মাঝে বেমেছাল মিল-মুহব্বত মুবারক বিদ্যমান ছিলো। আরবের লোকজন বলাবলি করতো এবং এই কথাটি উপমায় পরিণত হয়েছিলো যে, اَحْسَنُ زَوْجَيْنِ 

বাংলাদেশে ঘাপটি মেরে আছে ১২ লাখ ভারতীয়? না আরো বেশি? এদেশের চাকরীর বাজার দখল থেকে নাশকতা ও টাকা পাচার


একদিকে ভারতীয় হিন্দুত্ববাদী শক্তি মুসলমানদের শহীদ করার জন্য উন্মত্ত হয়ে উঠেছে। নাঊযুবিল্লাহ! বাংলাদেশের স¦াধীনতা ও সার্বভৌমত্ব দখলের জন্য মরিয়া হয়ে উঠেছে। অপরদিকে এ দেশে অবৈধভাবে থাকা ভারতীয়দের সংখ্যা কল্পনাতীতহাতে বাড়ছে। সেই সাথে বাড়ছে ঘাপটি মেরে থাকা ভারতীয়দের দ্বারা বিভিন্ন ভয়ঙ্কর ষড়যন্ত্র 

‘উলুধ্বনি’কেও মূর্খরা হালাল বলতে চায়!!!


কিছু মূর্খ আছে বলে থাকে “শব্দের সঙ্গে ধর্মের কি সম্পর্ক? শব্দ একটি ভাষা আর ভাষা হলো সাহিত্য। এসব জাহিলরা আরও বলে- কা’বা শরীফে গিয়েও তো উলুধ্বনি দেয়া হয়।” নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! নাউযুবিল্লাহ! ভুলে গেলে চলবে না- ‘শব্দ’ অবশ্যই দ্বীন/ধর্মের সাথে সম্পর্কযুক্ত এবং