অর্থ,সম্পদ সবক্ষেত্রে সমৃদ্ধি ছিলো যে সময়ে


কাফিররাও স্বীকার করতে বাধ্য যে ১৪০০ বছর আগের যুগটিই ছিলো স্বর্ণ যুগ,সত্য ও ন্যায়ের যুগ। ইনসাফের নিদর্শন ছিল সে সভ্যতার প্রতিটি বিষয়ে।
খিলাফত চলাকালীন সময়েও সাম্যই বিরাজমান ছিলো।
ছিলো সমৃদ্ধি।
আমীরুল মু’মিনীন,খলিফায়ে ছালিছ সাইয়্যিদুনা হযরত যুননূরাইন আলাইহিস সালাম উনার খিলাফতকালে
মুসলমানগণ যাকাতের যে টাকা বাইতুল মালে প্রেরণ করেছিলো তা দেয়ার মতো কোনো লোকই পাওয়া যায় নি! সুবহানাল্লাহ!
এটা এখন কি পরিমাণ অচিন্তনীয় ভাবা যায়!!!!
যাকাতের ৮টি খাতের একটি খাতেরও লোক পাওয়া যায় নি এবং ঘোষণা করে করেও লোক খুঁজা হয়েছিল।সুবহানাল্লাহ!
অথচ যাকাত নেয়ার মতো কেউ আসেনি!
সেই সময় উনারা পৃথিবীর সবচেয়ে দামী কাপড় ‘কাত্তানের কাপড়’ দিয়ে নাক মুবারক পরিষ্কার করতেন।সুবহানাল্লাহ!
এতো সমৃদ্ধি ছিলো যে-হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা ভয় করতেন,উনাদের সবই দুনিয়ায় দিয়ে দেয়া হলো না তো???আখিরাতের জন্য কি কিছুই নেই!
সুবহানাল্লাহ।
মূলত সেই সময়ে দুনিয়াটা হয়ে গিয়েছিলো জান্নাতেরই একখানা অংশ।সুবহানাল্লাহ!
আজ সেই সুমহান খলীফা,খলীফায়ে ছালিছ (৩য়) সাইয়্যিদুনা হযরত যুন্নুরাইন আলাইহিস সালাম উনার আজিমুশ্বান খিলাফত মুবারক গ্রহণ দিবস।
২৪ হিজরী সনের ১লা মুহররমুল হারাম শরীফ তিনি পবিত্র খিলাফত মুবারক গ্রহণ করেন এবং প্রায় ১২ বছর তিনি এ মুবারক দায়িত্ব পালন করেন।সুবহানাল্লাহ!
হযরত যুন্নুরাইন আলাইহিস সালাম উনার সুমহান খিলাফতকালে মুসলমানগণ যেরূপ সমৃদ্ধি অর্জন করতে সমর্থ হয়েছিলো আজও সেই সমৃদ্ধি ফিরে পাওয়া সম্ভব।
সেই সময়ে অর্থ ব্যবস্থা তথা যাকাত ব্যবস্থা যেভাবে পরিচালিত হয়েছিলো আজও যদি সেভাবে পরিচালিত হতো, সম্মানিত খলীফা উনার অধীনে বায়তুল মালে লোকজন তাদের যাকাত প্রদান করা হতো,তবে আজকেও সেই অবস্থাটাই মুসলমানগণ পর্যবেক্ষণ করতো।
সম্মানিত খিলাফত আলা মিনহাজুন নবুওওয়াহ জারী হলেই আবারো সেই গৌরবোজ্জ্বল দিন ফিরে পাওয়া যেতো।
এখন সেই দিন ফিরে পেতে আমাদের কী করণীয়?চলুন জেনে নিই-
“মহান আল্লাহ পাক তিনি সম্মানিত ওয়াদা মুবারক দিচ্ছেন যে,যারা ঈমান আনবেন এবং আমলে ছলেহ করবেন মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাদেরকে অবশ্যই অবশ্যই দুনিয়ার যমীনে যাহিরী খিলাফত হাদিয়া করবেন। যেমনিভাবে তিনি পূর্ববর্তী উনাদেরকে খিলাফত হাদিয়া করেছিলেন। ” (পবিত্র সূরা নূর শরীফ:৫৫)
সুবহানাল্লাহ!সুতরাং অন্য কোনো উপায় নেই।ঈমান আনলেই হবে না,ঈমান এনে আমলে ছলেহ তথা সুন্নাহ মুবারক অনুসরণ করে,সাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের পথ মুবারক অবলম্বন করে জীবন পরিচালনা করতে হবে।
নিয়ামতপূর্ণ দিনগুলোর শুকরিয়া আদায় করতে হবে।তবেই মুবারক খিলাফত লাভে আমরা ধন্য হতে পারবো।ইনশা আল্লাহ!
কাজেই মহান আল্লাহ পাক আজকের এ দিন মুবারকের সম্মানার্থে আমাদের সকলকেই আমাদের যাকাত সঠিকভাবে আদায় করার পাশাপাশি ,লোক দেখানো আমল তথা রিয়া করা থেকে হেফাযত করে হাক্বীক্বীভাবে ঈমান এনে আমলে ছলেহ করার যেন তৌফিক দান করেন।আমীন।
1Muhorrom

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে