আইডি কার্ডের জন্য ছবি তুলতে বাধ্য করায় কি মুসলমানদের ধর্মীয় অধিকার ক্ষুন্ন হচ্ছে না?


আইডি কার্ডের জন্য ছবি তুলতে বাধ্য করায়
কি মুসলমানদের ধর্মীয় অধিকার ক্ষুন্ন
হচ্ছে না?…….
মুসলিম অধ্যুষিত এই দেশে শতকরা ৯৮ ভাগই
মুসলমান এবং দেশের রাষ্ট্রীয় দ্বীন
ইসলাম। যা সংবিধানে সুস্পষ্টভাবে
উল্লেখ রয়েছে। ধর্মপালন এবং প্রচারের
ক্ষমতা সংবিধানে উল্লেখ আছে।
তৎপ্রেক্ষিতে বাংলাদেশ সংবিধানে ৪১
(ক) ধারায় বলা আছে- ‘প্রত্যেক নাগরিকের
যেকোনো ধর্ম অবলম্বন, পালন বা প্রচারের
অধিকার রয়েছে।’ উল্লেখ্য, পবিত্র দ্বীন
ইসলাম অর্থাৎ ইসলামী শরীয়ত উনার
আলোকে ছবি তোলা, আঁকা, রাখা,
তোলানো সবই নিষিদ্ধ তথা হারাম এবং
ছবি তোলার ভয়াবহতা সম্পর্কে খালিক্ব
মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল
হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া
সাল্লাম তিনি পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার
মধ্যে উল্লেখ করেন, ‘নিশ্চয়ই ক্বিয়ামতের
দিন ঐ ব্যক্তির সবচাইতে বেশি শাস্তি
হবে যে ছবি তোলে, আঁকে, সংরক্ষণ করে’।
(বুখারী শরীফ) স্মর্তব্য, নির্বাচন কমিশন
আইডি কার্ডের জন্য বিভিন্ন প্রচার
মাধ্যমে ছবি তোলার ব্যাপারে নানাবিধ
বক্তব্য দিয়েছে; যা মুসলমানদের ধর্মীয়
অনুভূতির উপর আঘাত হানে। এটা স্পষ্টত
সংবিধান বিরোধী। এবং তা দ্বারা
এদেশের গোটা মুসলমানদের ধর্মীয়
অধিকার ক্ষুণœ হয়েছে। বলাবাহুল্য, কোনো
ব্যক্তি, দল বা সরকারের কোনো বিভাগ
যদি দ্বীন ইসলাম অর্থাৎ ইসলামী শরীয়ত
উনার বর্ণিত হারাম ঘোষিত ছবি তুলতে
মুসলমানদের বাধ্য করে, তা হবে স্বাধীন ও
স্বতঃস্ফূর্তভাবে ধর্ম পালনের অন্তরায়
এবং এদেশের প্রতিটি মুসলমান হারাবে
তাদের মৌলিক অধিকার, হারাবে ধর্মীয়
অধিকার; যা মোটেও কাম্য নয়।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে