আওলাদে রসূল সাইয়্যিদাতুনা হযরত নিবরাসাতুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার লক্ষ-কোটি মুবারক খুছূছিয়ত বা বৈশিষ্ট্যসমূহের মধ্য হতে কতিপয় খুছূছিয়ত বা বৈশিষ্ট্য মুবারক


মহামূল্যবান ক্বওল শরীফ হচ্ছে-
من له المولى فله الكل
“যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনাকে পেয়ে যান, তিনি সব কিছুই পেয়ে যান।”
আওলাদে রসূল সাইয়্যিদাতুনা হযরত নিবরাসাতুল উমাম আলাইহাস সালাম তিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে হাছিল করার কারণে বান্দা ও উম্মত হিসেবে যতো শান-মান, ফাযায়িল, ফযীলত, বুযূর্গী ও খুছুছিয়ত মুবারক হাদিয়া পেতে পারেন উনার সবটুকুই হাদিয়া মুবারক পেয়েছেন। সুবহানাল্লাহ!
ওই মুবারক শান, মান ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী, খুছুছিয়ত সামান্য কিছু বুঝলেও অনুধাবন করলেও বুঝা ও অনুধাবনের বাইরে থেকে যায় অসংখ্য অগণিত ও সমুদ্রসম অংশ। মুবারক দয়া, মায়া, ইহসান, করুণা, ফায়িয-তাওয়াজ্জুহ নিয়ে সামান্য থেকে আরো সামান্য কিছু লিখার প্রয়াস পাবো সম্মুখ লিখনীর ছোঁয়ায়।
আওলাদে রসূল সাইয়্যিদাতুনা হযরত নিবরাসাতুল উমাম আলাইহাস সালাম উনার লক্ষ-কোটি শান মুবারক উনাদের মধ্যে অন্যতম শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত ও বুযূর্গী মুবারক হচ্ছে- তিনি আওলাদুর রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। সুবহানাল্লাহ! খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা আওলাদু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুবারক শান-মান, ছানা-ছিফত, ফাযায়িল-ফযীলত বর্ণনা করেছেন। যেমন- মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
قل لا اسئلكم عليه اجرا الا المودة فى القربى
অর্থ: “ইয়া আমার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি কুল-মাখলুককে বলে দিন- তোমাদের নিকট কোনো বিনিময় চাওয়া হচ্ছে না, চাওয়াটাও স্বাভাবিক নয়, তোমাদের পক্ষে দেয়াও কস্মিনকালে সম্ভব নয়; বরং তোমাদের জন্য এটা চিন্তা-কল্পনা করাটাও কাট্টা কুফরী ও চির জাহান্নামী হওয়ার কারণ হবে। তবে তোমরা যদি যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার এবং আমার মা’রিফত-মুহব্বত ও সন্তুষ্টি-রেযামন্দি মুবারক পেতে চাও, ইহকাল ও পরকালে চরম-পরম কামিয়াবী হাছিল করতে চাও, তাহলে তোমাদের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে আমার নিকটাত্মীয় তথা হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম এবং হযরত আওলাদে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদেরকে মুহব্বত করা, তা’যীম-তাকরীম করা, উনাদের সম্মানিত খিদমত মুবারক উনার আঞ্জাম দেয়া।” (পবিত্র সূরা শূরা শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ- ২৩)
আর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
احبوا الله لما يغذوكم من نعمة واحبونى لحب الله واحبوا اهل بيتى لحبى
অর্থ: “তোমরা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত করো। কেননা তিনি তোমাদেরকে রিযিক দেয়ার মাধ্যমে ইহসান করে থাকেন। আর আমাকে মুহব্বত করো খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনাকে মুহব্বত করার কারণে। আর আমার আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করো আমার মুহব্বত অর্জনের লক্ষ্যে।” সুবহানাল্লাহ!
উপরোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ উনাদের হাক্বীক্বী মিছদাক হচ্ছেন- তাকরিমা, তাযকিয়্যা, আলিমা, ফক্বীহা, গালিবা, যাহিদা সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। সুবহানাল্লাহ!
সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
لا يزال فيكم سبعة بهم يمطرون وينصرون يرزقون حتى يأتى امر الله
অর্থ: “সদা-সর্বদা তথা ক্বিয়ামত আসা পর্যন্ত তোমাদের মাঝে সাতজন ওলীআল্লাহ থাকবেন। উনাদের উসীলায়, উনাদের মুবারক সম্মানার্থে তোমরা রিযিক পেয়ে থাকবে, আসমান হতে বৃষ্টি পেয়ে থাকবে, শত্রুর উপর বিজয় লাভ করে থাকবে।” সুবহানাল্লাহ!
উল্লেখ্য, বর্তমান যামানায় খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার মনোনীত সাতজন ওলীআল্লাহ উনাদের মধ্যে তাকরিমা, তাযকিয়্যা, আলিমা, ফক্বীহা, গালিবা, যাহিদা, নিবরাসাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন অন্যতমা। সুবহানাল্লাহ!
যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক করেন,
الا ان اولياء الله لا خوف عليهم ولاهم يحزنون. الذين امنوا وكانوا يتقون. لهم البشرى فى الحيوة الدنيا وفى الاخرة لا تبديل لكلمت الله ذالك هوالفوزا لعظيم
অর্থ: “হে আসমানবাসী, যমীনবাসী তোমরা সাবধান হয়ে যাও। নিশ্চয়ই যারা খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী উনাদের কোনো ভয় নেই, চিন্তা নেই, পেরেশানী নেই।”
উনাদের ছিফত হচ্ছে উনারা খালিছ ঈমানদার এবং উনারা তাক্বওয়ার উপর প্রতিষ্ঠিত হবেন। উনাদের জন্য ইহকাল ও পরকালে সুসংবাদ রয়েছে। মহান আল্লাহ পাক যিনি খালিক্ব মালিক রব উনার কথা মুবারক উনার কোনো পরিবর্তন নেই, তিনি যা বলেছেন, সেটাই হবে। এটা হচ্ছে খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ওলী উনাদের জন্য বিরাট সফলতা। তাকরিমা, তাযকিয়্যা, আলিমা, ফক্বীহা, গালিবা, যাহিদা, নিবরাসাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি হচ্ছেন উপরোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার হাক্বীক্বী মিছদাক্ব। কেননা উনার মাঝে উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার প্রতিটি বৈশিষ্ট্যই প্রকাশ পায়। সুবহানাল্লাহ!
সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
ان الله عز وجل يبعث لهذه الامة على رأس كل مأة سنة من يجدد لها دينها
অর্থ: “নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি প্রতি হিজরী শতকের শুরুতে এমন একজন ব্যক্তিত্বকে পাঠান যিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার তাজদীদ বা সংস্কার করবেন।”
আলোচিত পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার হাক্বীক্বী মিছদাক্ব হচ্ছেন খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, ইমামুশ শরীয়ত ওয়াত তরীক্বত ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার সম্মানিত মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম। তিনি হচ্ছেন হিজরী পঞ্চদশ শতাব্দীর মহান মুজাদ্দিদ। একমাত্র তিনিই সারাবিশ্ব থেকে বিদয়াত, বিশরা, কুফরী, শিরক দূর করে হক্ব জারি করছেন। সুন্নাহর আলো জ্বালাচ্ছেন। উনার অমীয় দলীলভিত্তিক নছীহতে মুগ্ধ হয়ে লক্ষ লক্ষ জিন-ইনসান হিদায়েতের অমীয় সুধা পান করছেন। সুবহানাল্লাহ! আর উনারই বিনতে ছানিয়া তথা দ্বিতীয় সাহেবযাদী হচ্ছেন নিবরাসাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি। সুবহানাল্লাহ!
বলাবাহুল্য, যিকির-ফিকির রিয়াযত-মাশাক্বাত করে ওলীআল্লাহ হওয়া যায় কিন্তু মুজাদ্দিদ হওয়া যায় না। মুজাদ্দিদ যিনি হন তিনি হচ্ছেন মুরাদ, মাহবূব মনোনীত। ঠিক মুজাদ্দিদ তনয়া হওয়াও মনোনীতা হওয়ার অন্তর্ভুক্ত।
সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,
يشفع يوم القيامة ثلثة الانبياء ثم العلماء ثم الشهداء
অর্থ: “ক্বিয়ামত দিবসে তিনি শ্রেণীর ব্যক্তিবর্গ সুপারিশ করবেন- হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম, হযরত উলামা আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম এবং যে বা যাঁরা শহীদ হবেন উনারা।”
অত্র পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মিছদাক্বও হচ্ছেন নিবরাসাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম। তিনি ক্বিয়ামত উনার কঠিন দিবসে অসংখ্য অগণিত জিন-ইনসানকে সুপারিশ করবেন। সুবহানাল্লাহ!
এমনিভাবে অসংখ্য অগণিত বৈশিষ্ট্যসমূহ দ্বারা বৈশিষ্ট্যম-িত হচ্ছেন নিবরাসাতুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী ছানী হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম; যা আমি অধমের পক্ষে ক্বিয়ামত পর্যন্ত লিখে শেষ করা অসম্ভব, অকল্পনীয়, অভাবনীয়। তবে শুধুমাত্র রহমত, বরকত, নিয়ামত হাছিলের লক্ষ্যেই আমার লিখা।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে