আজ সুমহান ২২শে জুমাদাল উখরা শরীফ…


22হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের ইতায়াত (অনু্সরণ) করার মুবারক নির্দেশ দিয়ে মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হযরত মুহাজির এবং আনছার ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের মধ্যে পূর্ববর্তীগণ উনাদের মধ্যে যাঁরা অগ্রগামী উনাদের প্রতি এবং উনাদেরকে উত্তমভাবে অনুসরণকারী সকলের প্রতি মহান আল্লাহ পাক তিনি সন্তুষ্ট এবং উনারাও মহান আল্লাহ পাক উনার প্রতি সন্তুষ্ট।” (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১০০)
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আরো উল্লেখ আছে, “আমার হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা প্রত্যেকেই তারকা সদৃশ। উনাদের যে কাউকে তোমরা যে কেউ অনুসরণ করবে, সেই হিদায়েত প্রাপ্ত হবে”।(মিশকাত শরীফ)সুবহানাল্লাহ্‌।
খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার আখাছছুল খাছ মনোনীত ব্যক্তিত্বগণ উনাদের মধ্যে হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি অন্যতম।রসূলে পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে উনার সম্পর্ক মুবারক-ই ছিল প্রগাঢ়, অধিক পছন্দের, মর্যাদার ও অধিক আস্থার। উনার চিন্তা চেতনা ও চরিত্র মুবারক উনার সাথে সর্বাধিক সামঞ্জস্যশীল এবং একীভূত। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি তাই উল্লেখ মুবারক করেন, “নবী আলাইহিমুস সালামগণ উনাদের পরে হযরত আবু বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম তিনিই সর্বোত্তম মানুষ।”সুবহানাল্লাহ্‌
আজ সুমহান ২২শে জুমাদাল উখরা শরীফ অর্থাৎ আফদ্বালুন নাস বা’দাল আম্বিয়া হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার বিছালী শান মুবারক প্রকাশ দিবস।সুবহানাল্লাহ্‌।
উনি উনার হায়াতী জিন্দেগী মুবারক উনার সমস্ত সময়ই হুযু্র পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার খিদমত মুবারকে অতিবাহিত করেছেন,যা উনার জীবনী মুবারক হতে জানা যায়।এমন কোনো জিহাদ অতিবাহিত হয়নি যে জিহাদে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনি
উপস্থিত ছিলেন কিন্তু হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনি উপস্থিত ছিলেন না। আর প্রতিটি জিহাদেই উনি হুযু্র পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে ছায়ার মতো লেগে ছিলেন।উনি ছিলেন হুযু্র পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথী।
যেহেতু হুযু্র পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম মহান আল্লাহ্‌ পাক উনার মুহব্বত মুবারকে গরক ছিলেন, আছেন এবং যেহেতু উনি একমাত্র মহান আল্লাহ্‌ পাক উনাকেই বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করেছেন তাই আর কাউকে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করেননি ,কিন্তু উনি হযরত ছিদ্দীকে আকবর আলাইহিস সালাম উনাকে এতোটাই মুহব্বত করতেন যে আল্লাহ্‌ পাক ব্যতীত অন্য কাউকে বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করলে হযরত ছিদ্দীকে আকবর আলাইহিস সালাম উনাকেই বন্ধু হিসেবে গ্রহণ করার ইচ্ছা মুবারক ব্যক্ত করেছিলেন।সুবহানাল্লাহ্। অর্থাৎ হযরত ছিদ্দীকে আকবর আলাইহিস সালাম উনার যে বেমেছাল মর্যাদা-মর্তবা মুবারক তার প্রকাশ ঘটিয়েছেন।
নূ্রে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম উনাকে মুহব্বত করা পবিত্র ঈমান (সুবহানাল্লাহ) এবং উনার প্রতি বিদ্বেষ পোষণ করা কুফরী।” (নাঊযুবিল্লাহ)
কাজেই মহান আল্লাহ্‌ পাক যেন আমাদের সকলকেই হযরত ছিদ্দীকে আকবর আলাইহিস সালাম উনার শান-মান মুবারক জেনে উনাকে হাক্বীক্বীভাবে মুহব্বত মুবারক করার তৌফিক দান করেন।আমীন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে