আত্মহত্যা মহাপাপ , মুক্তির একমাত্র পথ আত্মহত্যা নয় !


*স্বামী-স্ত্রীর একটু আনমন হলে দৌড়ে যায় ফাসি দিতে। এ নিয়ে ৪ বার হলো কোশেশ, প্রতিবারই হায়াতের জোড়ে বেচেঁ গেছে। এবার জিব প্রায় বের হয়েই গিয়েছিল , সৌভাগ্যক্রমে এবারও বেচেঁ গেছে। বলা হয়ে থাকে , কোন ব্যক্তি যদি জিদের বশে বারবার ফাসিঁর কথা বলে, তাহলে ফাসিঁ তাকে ডাকে এবং ফাসিতেই তার মৃত্যু হয় (শোনা কথা)।
*কিছুদিন আগের কথা,  দুই মেয়ের বাবা স্ত্রীর সাথে রাগ করে বিষ পান করেছে। যন্ত্রণা সহ্য করতে না পেরে যখন সাহায্যের জন্য মানুষের সামনে দাড়ালো, তখন অনেক দেড়ি হয়ে গেছে। হসপিটালে এডমিট করার পর সে নিজ থেকেই বলেছে,
“যদি আল্লাহপাক তাকে বাচিঁয়ে রাখেন, তাহলে আল্লাহর কাছে এ গুনাহের জন্য মাফ চেয়ে নিবে”।কিন্তু সুযোগ আর হলো কই!
চাইলে আরো ২/১ টা ঘটনা বলা যাবে, কিন্তু ঘুরে ফিরে ঘটনা এক। রাগ/ জিদ/ কষ্টের বশবর্তী হয়ে আত্মহত্যাকে-ই যন্ত্রণা থেকে মুক্তির একমাত্র পথ মনে করেছে।
অথচ আত্মহত্যা সম্পর্কে ইসলাম কি বলে (?) জানলে এ পথই মুক্তির শেষ পথ হতো না, মানুষ  মৃত্যুর জন্য তাড়াহুড়ো করতো না।
হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বলেছেন, ‘তোমাদের পূর্বেকার এক লোক আহত হয়ে সে ব্যথা সহ্য করতে পারেনি। তাই সে একখানা চাকু দিয়ে নিজের হাত নিজেই কেটে ফেললো। তারপর রক্তক্ষরণে সে মারা যায়। আল্লাহপাক বলেন, আমার বান্দা নিজেকে হত্যা করার ব্যাপারে বড় তাড়াহুড়া করলো। তাই আমি তার জন্য জান্নাত হারাম করে দিলাম।’
(বুখারী শরীফ)
‘যে ফাঁসি লাগিয়ে বা গলা টিপে আত্মহত্যা করে, জাহান্নামে সে নিজেই নিজেকে অনুরূপভাবে শাস্তি দিবে। আর যে ব্যক্তি বর্শা ইত্যাদির আঘাত দ্বারা আত্মহত্যা করে জাহান্নামেও সে সেভাবে নিজেকে শাস্তি ভোগ করে।’
(বুখারী শরীফ)
আত্মহত্যা সম্পর্কে হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলিইহিহ ওয়া সাল্লাম তিনি আরো বলেন- ‘যে ব্যক্তি বিষ পান করে আত্মহত্যা করেছে সেও জাহান্নামের মধ্যে সর্বদা ঐভাবে নিজ হাতে বিষপান করতে থাকবে।’
(নাউযুবিল্লাহ্)
আল্লাহপাক মানুষকে মরণশীল করে সৃষ্টি করেছেন। তিনিই মৃত্যুর মালিক। কিন্তু আত্মহত্যার ক্ষেত্রে বান্দা স্বাভাবিক মৃত্যুকে উপেক্ষা করে মৃত্যুকে নিজের হাতে নিয়ে নিজেই নিজকে হত্যা করে । এ কারণে এটি একটি গর্হিত কাজ। আলাহপাক তা মোটেই পছন্দ করেন না।এমনকি আত্মহত্যাকারীর জানাযা কখনো হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কখনো পড়ান নি।শান্তির একমাত্র পথ আত্মহত্যা (নাউযুবিল্লাহ) এ ধরনের চিন্তা থেকে আল্লাহপাক সবাইকে হেফাযত করুন।
Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে