আত-তাকউইমুশ্ শামসী সন অনুসরণের মধ্যেই রয়েছে রহমত, বরকত ও সাকীনা


গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার নামটি হয়েছে পোপ গ্রেগরির নামে। সোজা ভাষায়- গ্রেগরিকে মনে রাখার জন্যই তার নামে এই গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার। কিন্তু মনে রাখবো কেন? সে কি এই ক্যালেন্ডারের রচয়িতা? মোটেও না। সে কি জুলিয়ান ক্যালেন্ডারের সংশোধনকারী? না, তাও না। সে কি মহাকাশ বা ভূগোলবিদ? না, তাও না। তাহলে? আসলে সে ছিল সেই সময়কার কেবলমাত্র একজন দুশ্চরিত্র ধর্মযাজক।
অধিকাংশ মানুষই এই গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারের নেপথ্য ইতিহাস জানে না। গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারের প্রথম রচয়িতা হচ্ছে এলয়সিয়াস লুলিয়াস; যে লুইজি লিলিও নামেও পরিচিত। সে ছিল একজন ইটালিয়ান ডাক্তার ও এস্ট্রোনমার। লুইজি লিলিও’র ভাই এন্থোনিও প্রথম তার ক্যালেন্ডারের সংশোধিত ম্যানুস্ক্রিপ্টটি পোপ গ্রেগরির কাছে হস্তান্তর করে ১৫৭৫ সালে। লুইজি লিলিও মারা যায় ১৫৭৬ সালে এবং তার মারা যাওয়ার ৬ বছর পর ১৫৮২ সালে এই ক্যালেন্ডার গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার নামে আত্মপ্রকাশ করে। বোঝাই যাচ্ছে, কেবল ক্ষমতার কারণেই গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডারের মূল রচয়িতা ইতিহাস থেকে হারিয়ে গেছে। অথচ এই পোপ গ্রেগরিকে স্মরণের মধ্যে মুসলমানদের কোনো কল্যাণ নেই, রহমত নেই, বরকত নেই, মর্যাদা নেই।
কিন্তু আত-তাকউইমুশ্ শামসী রচনাই করা হয়েছে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে স্মরণে রেখে দিন-মাসসহ বছরের হিসাব গণনা করার জন্য। সুবহানাল্লাহ!
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ১১তম হিজরী সনের পবিত্র রবীউল আউওয়াল শরীফ মাস উনার ১২ই শরীফ তারিখে পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। আর সে বছরের সেই পবিত্র মাসের প্রথম তারিখ হচ্ছে আত-তাকউইমুশ শামসী সনের শূন্য বছর, প্রথম মাস ও প্রথম তারিখ। আর এই স্মরণের মধ্যে রয়েছে রহমত, বরকত ও কল্যাণ যার দলীল রয়েছে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ এবং পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাঝে।
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “যেখানে মহান আল্লাহ পাক উনার ওলীগণ উনাদের আলোচনা হয়, সেখানে মহান আল্লাহ পাক উনার রহমত বর্ষিত হয়।”
তাহলে এই আত-তাকউইমুশ শামসী সনের যিনি রচয়িতা তিনি হচ্ছেন- মহান আল্লাহ পাক উনার খালিছ ওলী, খলীফাতুল্লাহ, খলীফাতু রসূলিল্লাহ, খলীফাতুল উমাম সাইয়্যিদুনা হযরত শাহযাদা হুযূর ক্বিবলা আলাইহিস সালাম। তাহলে এই শামসী সন যিনি রচনা করেছেন, উনাকে নিয়ে আলোচনার এবং যিনি সকল শান- মান, রহমত-বরকত উনার মালিক- নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার স্মরণের মাধ্যমে রহমত, বরকত ও সাকীনা হাছিলের উপজীব্য রয়েছে এই আত-তাকউইমুশ শামসী সনের মধ্যে। তাহলে কেন মুসলমানগণ রহমত হাছিলের পথ ছেড়ে জহমত হাছিলের পথ ধরবে? অর্থাৎ কেন শামসী সন বাদ দিয়ে গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার অনুসরণ করবে? নিদেনপক্ষে যখন জানা ছিল না, তখন ভিন্ন কথা। কিন্তু জানার পরেও কেন থাকবে আমাদের অবহেলা আর উদাসীনতা?
মহান আল্লাহ পাক তিনি যেন আমাদের এই আত-তাকউইমুশ শামসী সন অনুসরণ করার এবং কাফিরদের রচিত এবং কাফিরদের নামে রচিত গ্রেগরিয়ান ক্যালেন্ডার পরিহার করার সর্বোচ্চ তওফীক দান করেন। আমীন!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে