আমরা কি ভাবছি শুধুমাত্র আমাদের আমল দিয়েই ষোল আনা পূর্ণ হবে? আমল যা করছি এ জীবনে তা-ই আমাদেরকে নাযাত দিবে????


যদি এমনটাই মনে করে থাকি,তাহলে ইবলিশের কথাও মনে রাখা উচিত।তার ৬ লক্ষ বছরের আমল কিন্তু তার কোনো কাজেই আসেনি। আমাদের আমল ইবলিশের চেয়ে বেশি না নিশ্চয়? এখন চিন্তা করা উচিত এত আমল করেও ইবলিশ যদি নাযাত না পায় তাহলে নাযাত কিসে পাওয়া যাবে??? ঈমান আনাটা সহজ কিন্তু ঈমানের উপর ইস্তিক্বামত বা দৃঢ় থাকাটা কঠিন। দুনিয়ার রং তামাশায় গা ভাসাব, আর ভাবব আমাদের নামায, রোযায় আমাদের জান্নাত হয়ে যাবে তাহলে বিরাট ভুল হবে। দুনিয়া যেন আমাদেরকে না চালায় সেভাবেই আমাদেরকে চলতে হবে।
বনী ইসরাইল এর এক মশহুর দরবেশ বালয়াম বিন বাউরার কথা মনে আছে? সে ২০০ বছর ইবাদত বন্দেগী করেছিল। তার দরবারে ডেইলী ১০০০০ দরবেশ তালিম নিতো,সে যে দোয়াই করতো সে দোয়াই কবুল হত। সে উপরে তাকালে সাত আসমানের উপর আরশ পর্যন্ত দেখতে পেতো, নিচে তাকালে সাত যমীন নিচে তাহতাছছারা পর্যন্ত দেখতে পেতো। এতো বড় আলিম, দরবেশ ছিলো সে। কিন্তু দ্বীনের উপর ইস্তিকামত বা দৃঢ় থাকতে পারেনি বলে শেষ ফয়সালা কিন্তু তার জাহান্নামই হলো। সুতরাং ঈমান টিকিয়ে রাখার ক্ষেত্র আমাদের সাবধান হওয়া উচিত ।এখনও সময় আছে অন্যায়ের প্রতিবাদ করা উচিত। তা না হলে মরার পরে হয়ত জানব আমরা মুসলিমই ছিলাম না। (নাউযুবিল্লাহ)।
রাষ্ট্রধর্ম “ইসলাম” কে সংবিধান থেকে তুলে দেয়া হচ্ছে আমি এর তীব্র নিন্দা,ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।রাষ্ট্রধর্ম ইসলামকে বহাল রাখার জন্য প্রতিবাদ করা প্রতিটি মুসলমানের জন্য ফরয। মহান আল্লাহ পাক আমাদের সকলকে সে তাওফিক দান করুক। আমিন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে