“আমি” বাদ দেয়া গেলেই যথার্থ বান্দা হওয়া যাবে।


“নিশ্চয়ই আল্লাহ পাক মু’মিনদের থেকে তাদের জান ও মাল বেহেশতের বিনিময়ে খরিদ করে নিয়েছেন।”
(পবিত্র সূরা তওবা শরীফ : ১১১)
এ আয়াত শরীফ থেকে বুঝার তো বিষয় আছে লক্ষ কোটি! কিন্তু আপাতদৃষ্টিতে কতটুকু বুঝা যায় চলুন দেখি…
১. মু’মিনদের জান এবং মাল সম্পদ সবটাই আল্লাহ পাক উনার জন্য ব্যয়িত হবে।
২. তারাই মু’মিন যারা জান (শক্তি,সময়,হায়াত) এবং মাল দুটোই আল্লাহ পাক উনার জন্য খরচ করবে।
৩. এরূপ যারা করবে তারাই জান্নাতী। সুবহানাল্লাহ!!!
৪.আর যারা জান, মাল দুনিয়ার বিনিময়ে বিক্রি করলো তারা তো দুনিয়া পেলো,পরকালে তাদের জান্নাত থাকবে না। তাহলে থাকবে কি?
নিশ্চিতভাবে জাহান্নাম! নাঊযুবিল্লাহ!!!
এখন হিসেব করার বিষয় আমরা তাহলে দুনিয়ায় অবস্থান করে কি খরিদ করলাম? জান্নাত নাকি দুনিয়া?
হিসেব করা সহজ হয়ে যায় যখন দেখি আমাদের সময়টা,শক্তিটা,জবান,টাকা-পয়সা,সম্পদ ইত্যাদি কার পিছনে খরচ করি!!!? নিছক দুনিয়ার পিছনে হলে তো স্পষ্ট দুনিয়াদারী!!
তাহলে দেখা যাচ্ছে আমাদের মধ্যে তো মু’মিন হওয়ার কোনো লক্ষণই নেই।
অবশ্য আমরা তো বান্দা হওয়ার যোগ্যই না,মু’মিন তো দূরের কথা!!!!!
বান্দার বৈশিষ্ট্য কেমন ? এ প্রসংগে একটা ঘটনা উল্লেখ করি,
একবার এক বুযুর্গ ব্যক্তি একজন গোলাম খরিদ করে আনলেন। এনে সেই গোলামকে পর্যায়ক্রমে জিজ্ঞেস করলেন, “তুমি কি খাবে?, কি পড়বে?,কি কাজ করবে?” তখন গোলামও তার যথাযথ গোলামসূলভ উত্তর দিলো,” আপনি যা খাওয়াবেন তাই খাবো,যা পরিধান করতে দিবেন তাই পড়বো,যে কাজ করতে বলবেন সে কাজই করবো। ”
গোলামের এ উত্তর শুনে সেই বুযুর্গ ব্যক্তি চুপ হয়ে কাঁদতে লাগলেন।
উপস্থিত সকলে বললেন,হুযুর আপনি কাঁদছেন কেনো,গোলাম তো ভুল কিছু বলেনি!”
তখন সেই বুযুর্গ ব্যক্তি উনার কান্না করার কারণ জানালেন যে,এই গোলামকে কিনে আনা হয়েছে কতক্ষণ হয়েছে! অথচ সে তার মতকে মালিকের মত করে নিলো!
আর আমাদেরকে মহান আল্লাহ পাক সৃষ্টি করেছেন,রিযিক,নিয়ামত দিচ্ছেন অথচ আমরা মহান আল্লাহ পাক উনার মতে মত হতে পারি নি!
তাহলে এটা কি স্পষ্ট না যে,আমরা আসলে গোলাম বা বান্দা-ই হতে পারিনি।
সুতরাং হাক্বীক্বী বান্দা হওয়া তথা আবদিয়াতের মাক্বাম হাছিল করা তখনই সহজ হবে যখন “আমি ” বলতে কিছু থাকবে না। অর্থাৎ আমিত্ব বিলীন করে দিয়ে হাক্বীক্বীভাবে মহান আল্লাহ পাক যেভাবে আদেশ নির্দেশ মুবারক করেছেন সেভাবেই বিশ্বাস স্থাপন করে আমল করতে হবে।
নিজের মনগড়া তথা যেভাবে মন চায় সেভাবে চলা যাবে না,বিক্রি হয়ে যেতে হবে। তবেই বান্দা হওয়া, মু’মিন হওয়া সহজ এবং সম্ভব হবে।
কাজেই মহান আল্লাহ পাক যেন আমাদের সকলকেই জান, মাল দিয়ে হাক্বীক্বী বান্দা হওয়ার কোশেশ করার এবং কোশেশ করে মু’মিন হওয়ার তৌফিক দান করেন।
আমীন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+