“আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি যাই করেন না কেনো, কোনো কিছুই উনার ক্ষতি করতে পারবে না”


উনার নাম মুবারক উছমান। কুনিয়াত আবূ আমর। লক্বব মুবারক যুন্ নূরাইন। তিনি আমুল ফিলের ৬ বৎসর পর বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। তিনি আখিরী রসূল, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার ৬ বছরের ছোট ছিলেন। তিনি অত্যন্ত লজ্জাশীল ছিলেন। তিনি ছিলেন একজন সম্পদশালী ব্যবসায়ী। পবিত্র মক্কা শরীফ উনার অল্প কিছু জ্ঞানী মানুষের মাঝে তিনি ছিলেন একজন। তখন কুরাইশ বংশে যতজন জ্ঞানী ব্যক্তি ছিলেন উনাদের মধ্যে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনিও একজন ছিলেন। তিনি অত্যন্ত দানশীল ছিলেন। তিনি জাহিলিয়াতের যুগেও অন্যায় অবিচারকে প্রশ্রয় দিতেন না। তিনি পবিত্র দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন আমীরুল মু’মিনীন হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম উনার দাওয়াতে। পূর্ব থেকে উনার সাথে আমীরুল মু’মিনীন হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব আলাইহিস সালাম উনার উত্তম সম্পর্ক ছিল।

‘উসুদুল গাবা’ নামক গ্রন্থে বলা হয়েছে, আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, “আমি পবিত্র দ্বীন ইসলাম গ্রহণকারীদের মধ্যে চতুর্থ।” তিনি প্রথম দিকে পবিত্র দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করে আজীবন পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার খিদমত করেছেন। তিনি সমস্ত অর্থ-সম্পদ ব্যয় করেছেন মহান আল্লাহ তায়ালা উনার পথে এবং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সন্তুষ্টি মুবারক উনার উদ্দেশ্যে।
আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার প্রতি এতো সন্তুষ্ট ছিলেন যে, তিনি উনার সাথে নিজ দুই সম্মানিতা বানাত আলাইহিমাস সালাম উনাদের বিবাহ মুবারক দেন। যার কারণে তিনি যুন্ নূরাইন তথা দুই মহান নূরের অধিকারী হিসেবে প্রসিদ্ধ হন। সুবহানাল্লাহ।
তিনি আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে প্রায় সবগুলো জিহাদে অংশগ্রহণ করেন। তিনি তাবুকের যুদ্ধে অসামান্য অবদান রাখেন। তিনি মোট ব্যয়ের এক তৃতীয়াংশ এ জিহাদে খরচ করেন। এতে তিনি ১০০০ উট এবং ৭০টি ঘোড়া হাদিয়া করেন। তিনি এক হাজার দিনার আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সামনে এনে হাজির করেন। এতে আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূল পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এতো খুশি হন যে, তিনি উনার জন্য বিশেষভাবে দোয়া করেন, “এখন থেকে আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি যে কাজই করেন না কেনো, কোনো কিছুই উনার কোনো ক্ষতি করতে পারবে না।”
তিনি ইসলামী জগতের তৃতীয় খলীফা ছিলেন এবং ‘আশারাতুম্ মুবাশ্শারাহ’ তথা জান্নাতের সুসংবাদ প্রাপ্ত ১০ জন হযরত ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু আনহুম উনাদের মধ্যে অন্যতম ছিলেন।

ষষ্ঠ হিজরীতে হুদাইবিয়ার সন্ধির সময় তিনি পবিত্র মক্কা শরীফে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দাওয়াত নিয়ে হাজির হন। পবিত্র মক্কা শরীফ উনার কাফিররা উনাকে প্রস্তাব দেয় যে, ইচ্ছা করলে তিনি নিজে তাওয়াফ করতে পারেন। কিন্তু দৃঢ়চেতা আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি ঘোষণা করেন যে তিনি কিছুতেই নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আগে তাওয়াফ করতে পারেন না। এতে মুশরিকরা ক্ষেপে যায়। তারা উনাকে তিনদিন আটকে রাখে। তখন কাফিররা মুসলমানদের কাছে সংবাদ পৌঁছায় যে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি শহীদ হয়েছেন। এই সংবাদে আছহাবে রসূল ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনারা বাইয়াতে রিদ্বওয়ান গ্রহণ করেন। উনারা শপথ নেন যে, উনারা ওই পর্যন্ত জিহাদ করবেন যতক্ষণ উনারা জীবিত থাকেন। মহান আল্লাহ তায়ালা তিনি হুদাইবিয়ার ঘটনাকে ফাতহুম মুবীন তথা প্রকাশ্য বিজয় বলে ঘোষণা করেন। এই বাইয়াতে রিদওয়ানে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার জীবনের সবচেয়ে বড় তাৎপর্যপূর্ণ ঘটনা ছিল- স্বয়ং মহান আল্লাহ তায়ালা তিনি উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিজের হাত মুবারককে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার হাত হিসেবে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার পক্ষে বাইয়াত গ্রহণ করেন।

তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার তৃতীয় খলীফা ছিলেন। যখন হযরত ফারূকে আযম আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত শাহাদাতী শান মুবারক গ্রহণ করেন, তখন তিনি খলীফা মনোনীত হন এবং শেষ পর্যন্ত খিলাফত পরিচালনা করেন। তিনি পবিত্র যুল্হিজ্জাহ মাস উনার ১৮ তারিখ কাবলাল জুমুয়াহ শাহাদাতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। (দলীল: তারিখ গ্রন্থ সমূহ)

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে