আলিমা, ফক্বীহাহ, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ আলাইহাস সালাম তিনি ‘ছিদ্দীক্বা’ লক্বব মুবারক উনার একক মালিকাহ!


সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত পিতা উনার মূল নাম মুবারক হযরত আব্দুল্লাহ আলাইহিস সালাম। উনার কুনিয়াত বা উপনাম মুবারক আবূ বকর। লক্বব বা উপাধি ছিদ্দীক্ব ও আতীকুল্লাহ। ইতিহাসে মূল নাম আব্দুল্লাহ নামে তিনি পরিচিত নন। বরং কুনিয়াত ‘আবূ বকর’ নামেই তিনি পরিচিত।
পবিত্র মি’রাজ শরীফ উনার পর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মি’রাজ শরীফ উনার ঘটনাবলী মক্কাবাসীদের নিকট বর্ণনা করছিলেন। মক্কাবাসীরা তা শুনে নানা প্রকার চু’চেরা করছিলো। নাউযুবিল্লাহ! এমন সময়ে সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি তিজারতখানায় যাচ্ছিলেন। অতঃপর এক কাফিরের মুখে পবিত্র মি’রাজ শরীফ উনার ঘটনা শুনে তা সত্য বলে স্বীকার করতঃ তিজারতখানার দিকে আর অগ্রসর না হয়ে আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক খিদমতে উপস্থিত হলে আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনাকে ‘ছিদ্দীক্ব’ বলে সম্বোধন করলেন। সেদিন হতেই তিনি হযরত আবূ বকর ছিদ্দীক্ব নামে পরিচিতি লাভ করেন। সুবহানাল্লাহ!
অনেকে মনে করে, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ আলাইহাস সালাম তিনি হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার কন্যা হওয়ার কারণে উনার উপাধি ‘ছিদ্দীক্বা’ হয়েছে। কিন্তু তাদের এ ধারণা আদৌ শুদ্ধ নয়। কারণ সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার বয়সে ছোট-বড় আরো ভাই ও বোন ছিলেন। উনারা কেউই কিন্তু ‘ছিদ্দীক্ব’ ও ‘ছিদ্দীক্বা’ উপাধিতে ভূষিত হননি। বরং উনারা উনাদের মূল নাম মুবারক-ই পরিচিত হয়েছেন।
কাজেই, সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ আলাইহাস সালাম তিনি ‘ছিদ্দীক্বা’ উপাধিতে ভূষিত হয়েছেন নিজ গুণেই। সুবহানাল্লাহ!
এ প্রসঙ্গে বর্ণিত রয়েছে, ঐতিহাসিক ইফকের ঘটনার পর লোকেরা যখন উনার প্রতি অপবাদ রটনা করছিল (নাউযুবিল্লাহ) তা শুনে তিনি অসুস্থ হয়ে পড়েন এবং আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার অনুমতি নিয়ে তিনি পিত্রালয়ে চলে যান। অতঃপর উনাকে দেখতে আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার পিত্রালয়ে তাশরীফ মুবারক নেন এবং উনার প্রতি আরোপিত অপবাদ সম্পর্কে জানতে চান। জাওয়াবে তিনি প্রকৃত সত্য বিষয়টি বলে বললেন, আলিমুল গইব খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি আমার সাক্ষী। উনার তরফ হতে সত্য বিষয়টি প্রকাশ হবেই হবে ইনশাআল্লাহ। আর এ ব্যাপারে হযরত ইয়াকূব আলাইহিস সালাম উনার মতো ধৈর্যধারণ করা ব্যতীত আমার আর করণীয় কিছুই নেই। এ কথা বলতে না বলতেই সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ ছিদ্দীক্বা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্রতা ও সত্যবাদিতার বিষয়ে পবিত্র ওহী মুবারক নাযিল হলো। সুবহানাল্লাহ!
অতঃপর আখিরী রসূল, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খুশি হয়ে বলে উঠলেন, হে উম্মুল মু’মিনীন হুমায়রা আলাইহাস সালাম! আপনার মেহেরবান পিতা যেরূপ ‘ছিদ্দীক্ব’; তদ্রƒপ উনার কন্যা আপনিও ‘ছিদ্দীক্বা’। সুবহানাল্লাহ! আর সেদিন সে সময় হতে তিনি ‘ছিদ্দীক্বা’ (পরম সত্যবাদিনী) লক্বব মুবারক-এ পরিচিতি ও প্রসিদ্ধি লাভ করেন।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে