আশ শাহীদু, আল জাওওয়াদু, যুল হিজরাতাইন, মাহবুবুল্লাহি হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার দানের কারণে মহান আল্লাহ পাক তিনি বেহেশতে মেহমানদারীর আয়োজন করেন। সুবহানাল্লাহ!


 

বর্ণিত রয়েছে যে, খলীফাতু রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার খিলাফতকালে একবার পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে দুর্ভিক্ষ দেখা দিলো। বাইতুল মালেও উল্লেখযোগ্য পরিমাণ খাদ্য ছিলো না। ঠিক সেই মুহূর্তে আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার একটি বাণিজ্য কাফিলা এক হাজার উট বোঝাই করা খাদ্য নিয়ে পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে উপস্থিত হলো। ব্যবসায়ী লোকজন আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার নিকট আসতে লাগলো খাদ্য কিনে নেয়ার জন্য। কেউ স্বাভাবিক দামে, কেউ দ্বিগুণ দামে, কেউ তিনগুণ, চারগুণ দামেও খাদ্য কেনার জন্য প্রস্তুত। তবুও তিনি উনাদের নিকট খাদ্য দিতে রাজি হলেন না। তিনি বললেন, আমার এ খাদ্য নিতে হলে কমপক্ষে দশগুণ মূল্য দিতে হবে। কারণ আপনাদের আগে একজন আমাকে দশগুণ মূল্য দেয়ার কথা ঘোষণা দিয়েছেন। তখন উনারা বললেন, আমাদের আগে কে এত অধিক মূল্যে খাদ্যদ্রব্য খরিদ করার কথা বললেন? পবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে তো আমরাই বড় ব্যবসায়ী। ব্যবসায়ীরা আরো আলোচনা করলেন যে, আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি তো পূর্বে কখনো বেশি মূল্যের জন্য দর কষাকষি করেননি। তবে আজকে কেন করছেন ইত্যাদি ইত্যাদি। এরপর ব্যবসায়ীগণ উনারা বললেন, ঠিক আছে, যিনি আপনাকে বেশি মূল্য দেন উনাকেই আপনি মাল দিয়ে দিন।
সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি খলীফাতু রসূলিল্লাহ হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনাকে খবর পাঠালেন যে, তিনি যেন একজন প্রতিনিধি পাঠান, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি উনার সমস্ত খাদ্যদ্রব্য অর্থাৎ এক হাজার উট বোঝাই খাদ্য, যা সিরিয়া থেকে আনা হয়েছে, সেগুলো মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সন্তুষ্টি মুবারকের জন্য হাদিয়া করে দিবেন। সুবহানাল্লাহ! তখন খলীফাতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার তরফ থেকে প্রতিনিধি পাঠানো হলে সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি উনার সমস্ত খাদ্যগুলো খলীফা উনার প্রতিনিধিকে বুঝিয়ে দেন, তখন খলীফা উনার তরফ থেকে সমস্ত খাদ্যগুলো পবিত্র মদীনা শরীফ-এ বণ্টন করে দেয়া হয় এবং তাতে দুর্ভিক্ষ দূর হয়ে যায়। সুবহানাল্লাহ!
আমীরুল মু’মিনীন সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি যেদিন এই দান করলেন সেই রাতে হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি স্বপ্নে দেখতে পেলেন যে, “মহান আল্লাহ পাক উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সবুজ রং বিশিষ্ট খুব দামি পোশাক পরিধান করতঃ বোরাকে আরোহণ করে খুব দ্রুত কোথাও যাচ্ছেন। এটা দেখে তিনি জিজ্ঞাসা করলেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনি কোথায় যাচ্ছেন? নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি বললেন, আপনি কি জানেন না, আজ আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র মদীনা শরীফবাসীকে এক হাজার উট বোঝাই খাদ্য যে হাদিয়া করেছেন; যার কারণে পবিত্র মদীনা শরীফ উনার দুর্ভিক্ষ দূর হয়ে গেছে? তাই উনার হাদিয়ায় সন্তুষ্ট হয়ে স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক তিনি আজকে বেহেশ্তে মেহমানদারীর ব্যবস্থা করেছেন। আমি সেই মেহমানদারীতে শরীক হওয়ার জন্য যাচ্ছি।” সুবহানাল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+