ইতিহাসে এই প্রথম, নজিরবিহীন, অভূতপূর্ব, আশ্চর্যজনক, কিংবদন্তী, বিস্ময়কর ঘটনা…..


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুজূর পাক হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রশংসা মুবারক বর্ণনা করে সারা বিশ্বজুড়ে অনেক মাহফিল হয়।
কোনটি হয় ১ দিন
কোনটি হয় ২ দিন
কোনটি হয় ৭দিন
কোনটি বা হয় ৩০ দিনব্যাপী।
কিন্তু সারা বছর এমনকি অনন্তকালব্যাপী মাহফিল কি কোথাও কখনো দেখেছেন?
সবাই নিশ্চয় বলবেন- না।
কিন্তু আশ্চর্যজনক হলেও সত্য! বছরে ৩৬৫ দিন, এভাবে করে অনন্তকালব্যাপী জারী হয়েছে বিশেষ এক মাহফিল। মাহফিলের স্থান বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার রাজারবাগ শরীফ সুন্নতী জামে মসজিদ।
মাহফিলের নাম- মহাপবিত্র “সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ” মাহফিল। সুবহানাল্লাহ।

কেন বলা হচ্ছে অভূতপুর্ব, আশ্চর্যজনক, বিষ্ময়কর ঘটনা ?

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন,
ان الله وملئكته يصلون على النبى يايها الذين امنوا صلوا عليه وسلموا تسليما.
অর্থ: “নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি ও উনার ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনারা সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি ছলাত পাঠ করতেছেন। হে ঈমানদারগণ! তোমরাও উনার প্রতি ছলাত পাঠ কর এবং সালাম পেশ করো আদবের সহিত।” (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ : পবিত্র আয়াত শরীফ ৫৬)
এ আয়াত শরীফে স্পষ্ট প্রমাণিত স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক এবং সমস্ত ফিরিশতা আলাইহিমুস সালাম উনারা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি দুরুদ শরীফ ও সালাম শরীফ পেশ করছেন এবং অনন্তকালব্যাপী করতেই থাকবেন। মহান আল্লাহ পাক উনাকে অনুসরণ করে পৃথিবীর বুকে একমাত্র ঢাকা রাজারবাগ শরীফে সেই মাহফিল মুবারকই জারি হয়েছে। সুবহানাল্লাহ।

অনন্তকালব্যাপী মাহফিল উনার মধ্যে রয়েছে বিশেষ আয়োজন-
অনন্তকালব্যাপী জারিকৃত এ মাহফিলের কেন্দ্রীয় দিবস হচ্ছে হিজরী সনের মহাপবিত্র ১২ই রবীউল আউওয়াল শরীফ তারিখ। যে দিন আমাদের প্রাণপ্রিয় নবীজি, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি দুনিয়াতে তাশরীফ মুবারক এনেছেন। সুবহানাল্লাহ। এই কেন্দ্রীয় দিবসটিকে উপলক্ষ্য করে অনন্তকালব্যাপী সেই বিশেষ মাহফিলের মধ্যেও বিশেষভাবে আয়োজন করা হয়েছে ৬৩ দিনব্যাপী মাহফিল ২৭ মুহররম শরীফ হতে ০২ রবীউছ ছানী ১৪৪১ হিজরী, ২৯ রবি’ হতে ০১ সাবি’- ১৩৮৭ শামসী (২৭শে সেপ্টেম্বর ২০১৯ থেকে ৩০শে নভেম্বর, ২০১৯)। এছাড়া পবিত্র ১২ই রবিউল আউওয়াল শরীফ তারিখে (১০ই নভেম্বর, ২০১৯) বিশেষ আয়োজন হিসেবে আছে- “কোটি কোটি কণ্ঠে মিলাদ শরীফ’ নামক একটি অনুষ্ঠান। যেখানে সারা বিশ্বের অসংখ্য মানুষ একযোগে সরাসরি এবং ইন্টারনেটের মাধ্যমে পবিত্র মিলাদ শরীফ পাঠ করবে। সুবহানাল্লাহ। পবিত্র মাহফিলে দেশ-বিদেশ থেকে অসংখ্য মানুষ উপস্থিত হন, এবং প্রাণপ্রিয় রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রশংসা মুবারক, পবিত্রনাত শরীফ, ঐতিহাসিক ঘটনাসমূহ শুনে অন্তরকে প্রশান্ত করেন এবং নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুহব্বত মুবারকে উজ্জীবিত হন। আপনিও স্বশরীরে অথবা অনলাইনে উক্ত মাহফিলে অংশগ্রহণ করে বিশেষ নেয়ামত মুবারক, রহমত মুবারক, বরকত মুবারক ও সাকিনা মুবারক লাভ করুন।

নজিরবিহীন, অভূতপুর্ব, আশ্চর্যজনক এ মাহফিলের আয়োজক ও পৃষ্ঠপোষক কে?
এ পবিত্র মাহফিলের পৃষ্ঠপোষক ও আয়োজক নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুজূর পাক হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার একজন সম্মানিত বংশধর, যিনি ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার সম্মানিত শায়েখ আলাইহিস সালাম হিসেবে পরিচিত। তিনি এমন একজন বিশেষ ব্যক্তিত্ব, যিনি উনার সমস্ত সম্পদ ব্যয় করছেন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রশংসা মুবারক বর্ণনা করতে। তিনি নিজ উদ্যোগে মাহফিলের আয়োজন করছেন এবং উক্ত মাহফিলে যত মেহমান আসছেন সবাইকে বরকতপূর্ণ শাহী তাবারুক খাওয়াচ্ছেন। সুবহানাল্লাহ।
ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার সম্মানিত শায়েখ আলাইহিস সালাম, তিনি নিজে সমস্ত পবিত্র সুন্নত মুবারকসমূহ আমল করেন এবং উনার অনুসারীদেরকেও পবিত্র সুন্নত মুবারক অনুসরণ করতে শিক্ষা দেন। তিনি সর্ব অবস্থায় পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র হাদীস শরীফ উনাদের অনুযায়ী সমস্ত কিছু পরিচালনা করেন। তিনি এমন কোন কাজ করেন না, যা শরীয়ত বিরুদ্ধ। তিনি গবেষণা, লেখাপড়া ও তালিম-তালক্বিন দিয়ে সমস্ত সময়গুলো ব্যয় করেন এবং সবাইকে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সা্ল্লাম উনার মুবারক জীবনাদর্শ অনুসরণ করতে নির্দেশ দেন। আপনি যদি স্ব-শরীরে রাজারবাগ দরবার শরীফ উপস্থিত হন, তবে সেখানে অসংখ্য সুন্নতি আমলসমূহ দেখে নিশ্চিত মুগ্ধ হতে বাধ্য। আপনার নিজ থেকেই তখন মনে হবে, আপনি হয়ত নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার যামানায় চলে গেছেন। সুবহানাল্লাহ। বর্তমানে এ কঠিন সময়ে ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার সম্মানিত শায়েখ আলাইহিস সালাম উনার সুন্নতি আমল বলে দেয়, এই যামানায় মহান আল্লাহ তায়ালা উনাকে অবশ্যই বিশেষভাবে মনোনিত করে পাঠিয়েছেন। সুবহানাল্লাহ।

মহিলাদের জন্য আছে সু-খবর !
শুধু ঢাকা রাজারবাগ শরীফ উনার সম্মানিত শায়েখ আলাইহিস সালাম তিনি একাই নন, উনার সম্মানিতা আহালিয়াও (জীবনসঙ্গীনি) একজন মহান ওলী আল্লাহ। তিনিও আমাদের প্রাণপ্রিয় নবীজি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত বংশধর। তিনি সবার কাছে “উম্মুল উমাম হযরত আম্মা হুযূর কিবলা আলাইহাস সালাম” হিসেবে পরিচিত। উনার আমল-আখলাক মহান আল্লাহ তায়ালা মনোনিত বান্দাদের অনুরূপ। তিনিও সব সময় মহিলাদের পর্দার সহিত পবিত্র কুরআন শরীফ ও হাদীস শরীফ শিক্ষা দেন। উনার তত্ত্বাবধানে অসংখ্য মহিলা পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ শিখতে পারছেন। পবিত্র দ্বীন ইসলাম সম্পর্কে সঠিক দীক্ষা নিচ্ছেন এবং অন্য মহিলাদেরও শিক্ষা দিচ্ছে। তিনিও মহিলাদের নিয়ে জারি করেছেন- অনন্তকালব্যাপী ‘ফাল-ইয়াফরাহু মাহফিল’। সুবহানাল্লাহ।

ঢাকা রাজারবাগ শরীফে অসংখ্য নেক কাজ চলছে, তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য –
১ মেয়েদের শরয়ী পর্দার সাথে ইলম অর্জনের জন্য বালিকা মাদরাসাসহ সারা বিশ্বব্যাপী ফালইয়াফরাহু তা’লীমি মজলিশ।
২. দলিলভিত্তিক গবেষণার জন্য মুহম্মদিয়া জামিয়া শরীফ গবেষণাগার এবং অনলাইন গবেষণা ও প্রচার।
৩. নাস্তিকদের দাঁতভাঙ্গা জবাব দিতে বিজ্ঞান গবেষণামূলক ইন্টারনেশনাল গ্রুপ ফর সাইন্টিফিক রিসার্চ এন্ড কো-অপারেশন (IGSRC)।
৪. কেন্দ্রীয় বিশাল লাইব্রেরী ও ঘরে ঘরে বাইতুল হিকমাহ (লাইব্রেরী) প্রতিষ্ঠা।
৫. বিশ্বব্যাপী কোটি কোটি মসজিদ-মাদরাস ও গবেষণাগার।
৬. ঘরে ঘরে আনজুমানে আল বাইয়্যিনাত উনার তা’লীমি মজলিশ (Reader’s forum)।
৭. ইসলামী ঐতিহ্য পুণরায় জাগাতে তাহযীব-তামাদ্দুন বিভাগ ও আর্ন্তজাতিক চাঁদ দেখা কমিটি “মজলিসু রুইয়াতিল হিলাল”।
৮. আল মুত্বমাইন্না মা ও শিশু হাসপাতাল (শরয়ী পর্দার সাথে উন্নত চিকিৎসা ব্যাবস্থা) ।
৯. নির্যাতিত মুসলমানদের আইনি সুবিধা দিতে মুসলিম রাইটস ফাউন্ডেশন (MRF)।
১০. সম্মানিত ক্যান্টিন শরীফ এবং ঘরে ঘরে সম্মানিত সুন্নত মুবারক পৌছে দিতে আর্ন্তজাতিক মহাসম্মনিত ও পবিত্র সুন্নত মুবারক প্রচার কেন্দ্র।
১১. মহান আল্লাহ পাক উনার প্রায় ২শ’ দিবস বা আইয়ামুল্লাহ শরীফ জারি (দলিল: সূরা ইবরাহীম শরীফ: আয়াত শরীফ ৫)
১২. অনন্তকালব্যাপী সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ জারি, প্রতি হিজরী মাসের ১২ তারিখ (সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ শরীফ) কোটি কোটি কন্ঠে মীলাদ শরীফ ও শহর প্রদক্ষিণ।

তাবারুক গ্রহণে শারীরিক ও মানসিক সুস্থতা লাভ:
ঢাকা রাজারবাগ শরীফ এ জারীকৃত অন্ততকালব্যাপী সাইয়্যিদুল আইয়াদ শরীফ মাহফিল এবং বিশেষ ৬৩ দিনব্যাপী মাহফিলে আপনি স্ব-পরিবারে এবং স্ব-বান্ধব আমন্ত্রিত। মাহফিলে প্রতিদিন আপনার জন্য থাকছে বিশেষ শাহী তাবারুকের ব্যবস্থা। উক্ত তাবারুক যে কোন নেক নিয়তে গ্রহণ করলে তা পূরণ হয় এবং শরীরিক সুস্থতা ও মানসিক প্রশান্তি লাভ করা সম্ভব হয়। সুবহানাল্লাহ।

মাহফিলে আর্থিকভাবে শরীক থেকে অশেষ নেয়ামত হাসিলের সুযোগ:
নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুজূর পাক হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে অনন্তকালব্যাপী জারীকৃত বিশেষ এ আয়োজনে আপনি আর্থিকভাবে শরীক থাকতে পারবেন। উক্ত মাহফিলে শরীক থাকার ফজিলত সম্পর্কে পবিত্র হাদীস শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ হয়েছেন- “যে ব্যক্তি আমার পবিত্র বিলাদত শরীফ (দুনিয়াতে আগমণ দিবস) উনার সম্মানার্থে এক দিরহাম খরচ করবেন, সে ব্যক্তি ইয়াতীমদেরকে মহান আল্লাহ পাক উনার রাস্তায় এক পাহাড় পরিমান লাল স্বর্ণ দান করার ফযীলত লাভ করবেন। সুবহানাল্লাহ!”
সুতরাং উক্ত মাহফিলে অংশগ্রহণ করে আপনিও দুনিয়া-আখিরাতের বেমেছাল নিয়ামত হাসিল করুন। আমিন।

যোগাযোগ:
৫/১ আউটার সার্কুলার রোড, ঢাকা রাজারবাগ-১২১৭
স্বশরীরে আসতে গুগল ম্যাপ- https://goo.gl/pGUzMH
অনলাইনে শুনতে- ‍Al-hikmah.net
মোবাইল : ০১৭১১-২৭২৭৮২,০১৭১১-২৭২৭৭৯, ০১৭১১-২৭২৭২৭৩
Email: rajarbag.shareef@gmail.com
Website: http://rajarbagshareef.com
FB/rajarbagofficial, fb/saiyidulayiadshareef
আর্থিকভাবে শরীক থাকতে-
বিকাশ এজেন্ট : ০১৭০৯-৬৭২৬০৫,
মোবাইল ব্যাংকিং ০১৭১৮৭৪০৭৪২২

Views All Time
8
Views Today
57
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+