ইফার ডিজিকে বরখাস্ত করা হোক


আমাদের রাষ্ট্রধর্ম ইসলাম। আমাদের দেশে শতকরা ৯৭ ভাগ মুসলমান। ইসলামী শরীয়তে গান-বাজনা হারাম। হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, “আমার আগমন মূর্তি ও বাজনা ধ্বংস করার জন্য।” গান-বাজনা অন্তরে নেফাকী পয়দা করে। সম্প্রতি কথিত ইসলামী ফাউন্ডেশনে কথিত ইমাম প্রশিক্ষণ ক্ষেত্রে মার্কিন নর্তক-নতর্কী দ্বারা অশ্লীল গান-বাজনা ও নৃত্যের আয়োজন করা হয়েছে। এ হারাম অশ্লীল সংস্কৃতির আয়োজনে সার্বিক সহায়তা করে ইসলামী ফাউন্ডেশনের ডিজি সামীম আফজাল। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের শেষে মার্কিন নৃত্যশিল্পীদের সাথে করমর্দন করেছে ডিজি সাহেব। একদিকে গান-বাজনা ও নাচের আয়োজন অন্যদিকে ইমাম প্রশিক্ষণে বেপর্দা ও বেহায়াপনা কার্যকলাপের জন্য ইফার ডিজির বহিষ্কার চায় শতকরা ৯৭ ভাগ মুসলমান। ইসলামী শরীয়তে পর্দা ফরয, বেপর্দা হওয়া হারাম। অথচ এ হারাম (করমর্দন) কাজটি শত শত মানুষের সামনে করতে দ্বিধাবোধ করেনি ডিজি আফজাল! তৃতীয়ত ডিজির ধৃষ্টতাপূর্ণ বক্তব্য, ভাষ্য প্রত্যেক দেশের নর্তকীরা তাদের সংস্কৃতি অনুযায়ী গান-বাজনার আয়োজন করেছে এটা তো দোষের কিছু বলে মনে হয় না। মূলত তার কাজটি চরম কুফরী হয়েছে। কারণ হারাম কাজ করার পর যতোক্ষণ কাজটি হারাম মনে করে ততোক্ষণ ঈমান থাকে, যখনই তা হারাম মনে করে না তখন ঈমান চলে যায়, তখন সে কাফিরে পরিণত হয়।
ধর্মের লেবাসে উলামায়ে ছূ’ ডিজি আফজালকে হারাম গান-বাজনার আয়োজন, নৃত্যশিল্পীদের সাথে করমর্দন অতঃপর ইমাম প্রশিক্ষণে মার্কিন নৃত্যশিল্পীদের দাওয়াত দান কী প্রমাণ করে না- ডিজি আফজাল উলামায়ে ছূ’, ইহুদীদের এজেন্ট। অবিলম্বে তাকে মুসলমানদের ধর্মীয় কেন্দ্র থেকে বহিষ্কার করা হোক।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+