ইসলামের দৃষ্টিতে ক্রিকেটসহ যাবতীয় খেলাধুলা হারাম


আল্লাহ পাক তিনি স্পষ্টভাষায় ইরশাদ করেছেন, “আমি নভোমন্ডল, ভূমন্ডল ও এতদুভয়ের মধ্যবর্তী কোনো কিছু ক্রীড়াচ্ছলে সৃষ্টি করিনি, আমি এগুলো যথাযথ উদ্দেশ্যে সৃষ্টি করেছি; কিন্তু তাদের অধিকাংশই বোঝে না।” (সূরা দুখান : আয়াত শরীফ ৩৮, ৩৯)

মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ করেছেন, “আকাশ পৃথিবী ও এতদুভয়ের মধ্যে যা আছে, তা আমি ক্রীড়াচ্ছলে সৃষ্টি করিনি। আমি যদি ক্রীড়া উপকরণ সৃষ্টি করতে চাইতাম, তবে আমি আমার কাছে যা আছে তা দ্বারাই তা করতাম, যদি আমাকে করতে হতো।” (সূরা আম্বিয়া : আয়াত শরীফ ১৬, ১৭)

মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ করেন, “আমি নভোমন্ডল, ভূ-মন্ডল এবং এতদুভয়ের মধ্যবর্তী যা আছে তা খেলাচ্ছলে সৃষ্টি করিনি। ক্বিয়ামত অবশ্যই আসবে। অতএব, পরম অবজ্ঞার সাথে ওদের খেলাধুলা উপেক্ষা করুন।” (সূরা হিজর : আয়াত শরীফ ৮৫)

হাদীছ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ করেন, “সমস্ত খেলাধুলা হারাম।” (মুস্তাদরেকে হাকিম)।

বলার অপেক্ষাই রাখে না যে, ইসলামের দৃষ্টিতে ক্রিকেটসহ যাবতীয় খেলা হারাম। শরীয়ত-এর উছুল হচ্ছে- হারামকে হালাল বলা, হারাম কাজে খুশি প্রকাশ করা, হারাম কাজে উৎসাহিত করা ও সাহায্য সহযোগিতা করা হারাম ও নাজায়িয; যা ঈমান নষ্টের কারণ। তাই সকল মুসলমানের জন্য ফরয ওয়াজিব হচ্ছে- ক্রিকেট,ফুটবল সহ সকল প্রকার খেলাধুলা এবং এ সংশ্লিষ্ট সকল বিষয় থেকে সম্পূর্ণরূপে বিরত থাকা।

হারাম খেলাধুলার জন্য টাকা খরচ করা অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত:
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, ‘খাও, পান করো; অপচয় করো না। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি অপচয়কারীকে পছন্দ করেন না।’

কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর নির্দেশানুযায়ী ক্রিকেট, ফুটবলসহ সমস্ত খেলাধুলাই হারাম। আর হারাম খেলাধুলার জন্য টাকা খরচ করা অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত।

অতএব, বাংলাদেশ সরকারের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে, হারাম খেলাধুলার জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা অপচয় না করে এই টাকাগুলো আইলা ও সিডরে আক্রান্ত, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ও নানাভাবে অভাবগ্রস্ত গরিব দুঃখী ও বিধবাদের অভাব মোচন ও চিকিৎসার জন্য খরচ করা।

উল্লেখ্য, ইসলামবিদ্বেষী মহল সিডরের সময় ওয়াজিব কুরবানী নষ্ট করার জন্য কুরবানী না করে সেই টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের দেয়ার জন্য পাগলের মতো প্রলাপ বকেছিলো। এখন সেই ইসলামবিদ্বেষী মহল কোথায়?

এখন কেনো তারা বলে না, হারাম খেলাধুলায় টাকা অপচয় না করে সেই টাকা দুস্থদের দান করে দাও।

মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ করেন, ‘খাও, পান করো; অপচয় করো না। নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি অপচয়কারীকে পছন্দ করেন না।’

কুরআন শরীফ ও সুন্নাহ শরীফ-এর নির্দেশানুযায়ী ক্রিকেট, ফুটবলসহ সমস্ত খেলাধুলাই হারাম। আর হারাম খেলাধুলার জন্য টাকা খরচ করা অপচয়ের অন্তর্ভুক্ত। অতএব, বাংলাদেশ সরকারের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে, হারাম খেলাধুলার জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা অপচয় না করে এই টাকাগুলো আইলা ও সিডরে আক্রান্ত, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ও নানাভাবে অভাবগ্রস্ত গরিব দুঃখী ও বিধবাদের অভাব মোচন ও চিকিৎসার জন্য খরচ করা। উল্লেখ্য, ইসলামবিদ্বেষী মহল সিডরের সময় ওয়াজিব কুরবানী নষ্ট করার জন্য কুরবানী না করে সেই টাকা ক্ষতিগ্রস্তদের দেয়ার জন্য পাগলের মতো প্রলাপ বকেছিলো। এখন সেই ইসলামবিদ্বেষী মহল কোথায়? এখন কেনো তারা বলে না, হারাম খেলাধুলায় টাকা অপচয় না করে সেই টাকা দুস্থদের দান করে দাও।

সম্প্রতি বাংলাদেশে অনুষ্ঠিত কোটি কোটি টাকা খরচ করে এশিয়া কাপ ক্রিকেট আয়োজনে এত শত শত, হাজার হাজার কোটি টাকা এভাবে অপব্যয় না করে এ টাকা দিয়ে বন্যা, আইলা ও সিডরে আক্রান্তদের সাহায্য করা যেতো। এ টাকা দিয়ে হাওরে ক্ষতিগ্রস্তদের সহায়তা করা উচিত ছিলো। এ টাকা দিয়ে অভাবগ্রস্ত মহিলাদেরকে নতুন কাপড় কিনে দেয়া উচিত ছিলো। এ টাকা দিয়ে গরিব-দুঃখীদের চিকিৎসা করানো উচিত ছিলো। এ টাকা দিয়ে ক্ষুধার্তদের মুখে আহার তুলে দেয়া উচিত ছিলো। এ টাকা দিয়ে আর্তপীড়িত অসহায় দরিদ্র দুঃখী বিধবাদের দুঃখ মোচন করা উচিত ছিলো।

ইসলামবিদ্বেষী মহল ওয়াজিব কুরবানী নষ্ট করার জন্য কুরবানী না করে সেই টাকা দুস্থদের দেয়ার জন্য পাগলের মত প্রলাপ বকেছিলো। এখন সেই ইসলামবিদ্বেষী মহল কোথায়? এখন কেনো তারা বলে না যে, ক্রিকেটে টাকা অপচয় না করে সেই টাকা দুঃস্থদের দান করে দাও।

মূলকথা হলো- হারাম খেলার জন্য কোটি কোটি টাকা খরচ করা নিঃসন্দেহে অপচয় ও কবীরা গুনাহ।

হারাম খেলা-ধূলায় মুসলমানগণকে নিমজ্জিত রাখা কাফির-মুশরিকদের সূক্ষ সুদূর প্রসারী চক্রান্ত:

শরীয়ত সর্বপ্রকার খেলাধুলাকে হারাম ঘোষণা করেছে। যেমন, মূলত ক্রিকেট, ফুটবল এবং এ জাতীয় সকল খেলাধুলার উদ্ভাবক হচ্ছে বিধর্মীরা। অর্থাৎ বর্তমানে প্রচলিত সমস্ত খেলাধুলাই বিধর্মীদের দ্বারা প্রবর্তিত তাহলে মুসলমানদের জন্য তা অনুসরণ ও সমর্থন করা কি করে জায়িয হতে পারে? কুরআন শরীফে ইরশাদ হয়েছে,”তোমরা ইহুদী-নাছারা তথা বিধর্মীদের অনুসরন করোনা।“ বাংলাদেশে এ মৌসুম আসলে স্কুল-কলেজে, পাড়ায়-মহল্লায় ফুটবল খেলা হয়। ইদানীং মেয়েদেরকেও বাধ্য করা হচ্ছে ফুটবল খেলার জন্য(নাউযুবিল্লাহ)। মুসলমানদের ঈমান-আমল নষ্ট করে কুফরীতে নিমজ্জিত করার জন্য ইহুদী-খ্রিস্টানরা বিশ্বকাপ ক্রিকেট, ফুটবল, অলিম্পিক ইত্যাদি নানা প্রকার হুজুগ দ্বারা মুসলমানদেরকে হারাম আনন্দে মশগুল করে দিচ্ছে। নাঊযুবিল্লাহ! এ প্রসঙ্গে কালামুল্লাহ শরীফ-এ ইরশাদ হয়েছে, “ইহুদী-নাছারা তথা আহলে কিতাবদের মধ্যে অনেকেই প্রতিহিংসাবশত চায় যে, মুসলমান হওয়ার পর তোমাদের যে কোন রকমে কাফিরে পরিণত করতে।” (সূরা বাক্বারা : আয়াত শরীফ ১০৯) তাই তারা বিভিন্নভাবে চেষ্টা করে থাকে, মুসলমানদেরকে ঈমানহারা করার জন্য। যেমন একদিকে খেলার সাথে সম্পৃক্ত করার মাধ্যমে চেষ্টা করছে, অপরদিকে টেলিভিশনে খেলা ও হাজারো অশ্লীলতা দেখিয়ে মুসলমানদের ধর্মীয় অনুভূতি নষ্ট করে চরম পাপাচারে মত্ত করার কোশেশ করে যাচ্ছে। মাঠে গিয়ে হোক আর টিভিতে হোক সর্বাবস্থায়ই খেলা দেখা হারাম ও কবীরা গুনাহর অন্তর্ভুক্ত। তবে টিভিতে খেলা দেখা বা অন্যান্য অনুষ্ঠান দেখা আরো কঠিন ও অধিক গুনাহর কারণ। কেননা, শরীয়তের দৃষ্টিতে টিভি তথা ছবি দেখা, রাখা ইত্যাদি সবই হারাম। খেলা সম্পর্কিত কোন দেশকে, দলকে বা ব্যক্তিকে সমর্থন করা, প্রশংসা করা, খেলা দেখার ব্যাপারে সাহায্য করা, পতাকা উড়ানো, দেশের, দলের, ব্যক্তির জয় কামনা করে দোয়া করা, রোযা রাখা, দেশের, দলের, ব্যক্তির জয়ে খুশি প্রকাশ করা, হাতে তালি দেয়া, রং ছিটানো ও শুকরিয়া আদায় করা সম্পূর্ণ হারাম ও কুফরী। কারণ আক্বাইদের কিতাবে সুস্পষ্টভাবে উল্লেখ আছে যে, ‘হারামকে হালাল বা জায়িয বলা কুফরী।’ আর যে কুফরী করে সে মুরতাদ হয়ে যায়। কোন ব্যক্তি মুরতাদ হলে তার সকল আমল বরবাদ হয়ে যাবে। সে মারা গেলে তার জানাজা পড়া যাবেনা বরং কুকুর শৃগালের মত গর্তে পুঁতে রাখতে হবে। যারা তার জানাযা পড়বে তারা ও মুরতাদ হবে। এব্যাপারে মুসলমানগনকে সাবধান হতে হবে।

ইহুদী-খ্রিস্টানরা মুসলমানদের আমল নষ্ট করার উদ্দেশ্যে ধর্মব্যবসায়ী বা উলামায়ে ‘ছূ’দেরকে ব্যবহার করছে। উলামায়ে ছূ’ বা ধর্মব্যবসায়ীরা খেলাধুলাকে শুধু যে জায়িয ফতওয়া দিচ্ছে তা নয় বরং নিজেরা খেলা দেখে এবং অন্যদেরকেও উৎসাহিত করে। নাঊযুবিল্লাহ!

এসব হারামের চর্চার ফলে দেশ রহমত শুন্য হচ্ছে মানুষ আযাব-গযবের সম্মুখীন হচ্ছে।

অতএব, বাংলাদেশ সরকারের জন্য ফরয-ওয়াজিব হচ্ছে, হারাম খেলাধুলা আইন করে বন্ধ করা , সরকারসহ সকল মুসলমানের উচিত এসকল হারাম থেকে খালিছ তওবা করা এবং জন্য হাজার হাজার কোটি টাকা অপচয় না করে এই টাকাগুলো দুস্থ, বন্যায় ক্ষতিগ্রস্ত ও নানাভাবে অভাবগ্রস্ত গরিব দুঃখী ও বিধবাদের অভাব মোচন ও চিকিৎসার জন্য খরচ করা।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে