ইসলাম বিদ্বেষি অপেরা মঞ্চস্থ করতে যাচ্ছে ব্রিটেন


ইসলাম বিদ্বেষী একটি অপেরা মঞ্চস্থ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিটেন। অপেরার কাহিনী আবর্তিত হয়েছে চার মুসলিম তরুণের একটি আত্মঘাতী হামলার পরিকল্পনাকে কেন্দ্র করে।

ইসলাম বিদ্বেষী একটি অপেরা মঞ্চস্থ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ব্রিটেন। অপেরার কাহিনী আবর্তিত হয়েছে চার মুসলিম তরুণের একটি আত্মঘাতী হামলার পরিকল্পনাকে কেন্দ্র করে। আশঙ্কা করা হচ্ছে- এর মাধ্যমে ইসলাম ও মুসলমানদের চরমভাবে অবমাননা করা হবে।

 

অপেরার নাম দেয়া হয়েছে ‘বাবর ইন লন্ডন’ বা ‘লন্ডনে বাবর’। আগামী ১২ জুন থেকে লিডসে থিয়েটারটি দেখানো শুরু হবে। এতে জিহাদ,পরকাল এবং ইসলামে মদপানের ওপর নিষেধাজ্ঞাকে প্রশ্নবিদ্ধ করা হয়েছে।

 

এ সম্পর্কে ‘অপেরা নর্থ’ এর ওয়েবসাইটে বলা হয়েছে, “লন্ডনের একটি শহরতলীতে চার মুসলিম তরুণ-তরুণী সন্ত্রাসী হামলার প্রস্তুতি নেয়। এ পরিকল্পনা নিয়ে এগিয়ে যাওয়ার এক পর্যায়ে তারা মুঘল সম্রাট বাবরের আত্মা বা ভুতের কবলে পড়ে। বাবর তাদের সিদ্ধান্তকে চ্যালেঞ্জ করে নানা উপদেশ দেন।”

 

ইসলামের সঙ্গে সন্ত্রাসবাদকে জুড়ে দেয়ার জন্য পাশ্চাত্য যে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা চালাচ্ছে তারই অংশ হিসেবে এ অপেরা মঞ্চস্থ করা হচ্ছে। ইসলাম অবমাননাকর কাহিনীর লেখক জিত থেইল আত্মঘাতী হামলার পরিকল্পনাকারী এক মুসলিম তরুণের নাম দিয়েছেন মোহাম্মাদ। এটি মঞ্চস্থ হলে মুসলমানদের মধ্যে প্রচণ্ড ক্ষোভ সৃষ্টি হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

 

অপেরার এক পর্যায়ে বাবরের আত্মা মুসলিম তরুণদের উপদেশ দেয়, “আল্লাহ নিরপরাধ মানুষ হত্যা পছন্দ করেন না। হত্যা এবং আত্মহত্যা উভয়ই পাপ। কাজেই আল্লাহর দৃষ্টিতে তোমরা মারাত্মক পাপি হিসেবে চিহ্নিত হবে।”

 

সম্রাট বাবরের এই উপদেশকেও পরোক্ষভাবে ইসলাম অবমাননার কাজে ব্যবহার করেছেন অপেরার পরিচালক। কারণ, সম্রাট বাবরকে এর আগে দর্শকের সামনে রক্তপিপাসু এমন একজন শাসক হিসেবে তুলে ধরা হয় যার মনে কোন দয়ামায়া নেই। অর্থাৎ শেষ পর্যন্ত অপেরাতে এ কথাই প্রমাণ করার চেষ্টা হয়েছে, ‘ইসলাম সহিংসতাকে প্রশ্রয় দিয়েছে’।#

 

(সূত্র : রেডিও তেহরান)

 

 

 

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+