ইস্তিক্বামত থাকতে পারাটাই হলো মূ্ল বিষয়


আপনি ভাবছেন, আপনার আমল দিয়েই ষোল কলা পূর্ণ করবেন! আমল যা করেছেন এ জীবনে তা-ই আপনাকে নাযাত দিবে????
যদি এমন্টাই মনে করে থাকেন,তাহলে ইবলিশের কথাও মনে রাখবেন। তার ৬ লক্ষ বছরের আমল কিন্তু তার কোনো কাজেই আসেনি। আপনার আমল ইবলিশের চেয়ে বেশি না নিশ্চয়। এখন চিন্তা করুন এত্তো আমল করেও ইবলিশ যদি নাযাত না পায় তাহলে নাযাত কিসে পাওয়া যাবে??!??
ঈমান আনাটা সহজ কিন্তু ঈমানের উপর ইস্তিক্বামত থাকাটা কঠিন। দুনিয়ার রং তামাশায় গা ভাসাবেন, আর ভাববেন আপনার নামায,রোযায় আপনার জান্নাত হয়ে যাবে তাহলে বিরাট ভুল হবে। দুনিয়া যেন আপনাকে না চালায় সেভাবেই চলতে হবে।
বালয়াম বিন বাউরা ইস্তিক্বামত থাকতে পারেনি। অথচ তার দরবারে ডেইলী ১০০০০ দরবেশ তালিম নিতো,সে যেই দোয়া করতো সেই দোয়াই কবুল হত। যে উপরে তাকালে সাত আসমান উপরে আরশ পর্যন্ত দেখতে পেতো, নিচে তাকালে সাত যমীন নিচে তাহতাছছারা পর্যন্ত দেখতে পেতো। এতো বড় আলিম,দরবেশ সে ছিলো। কিন্তু শেষ ফয়সালা কিন্তু তার জাহান্নামই হলো ইস্তিক্বামত থাকতে পারেনি বলে।
সুতরাং সাবধান থাকুন, ঈমান বজায় রাখুন। অন্যায়ের প্রতিবাদ করুন। এখনো সময় আছে। তা না হলে মরার পরে জানবেন আপনি মুসলিম ছিলেন না।
# রাষ্ট্রধর্ম_ইসলাম_বহাল_রাখার দাবী জানান।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে