ঈদে মীলাদুন্নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন সম্পর্কে-১২


এরপরও কি ঈদে মীলাদুন্নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম পালন কেউ অস্বীকার করবে?

হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু বর্ণনা করেছেন,

আবূ লাহাবের মৃত্যুর এক বছর পর আমি তাকে স্বপ্নে দেখেছি, সে অত্যন্ত শোচনীয় অবস্থায় রয়েছে। আর সে আমাকে উদ্দেশ্য করে বলতে লাগলো, তোমাদের নিকট থেকে আসার পর থেকে আমি কোন শান্তি পাইনি। তবে প্রতি সোমবার আমার শাস্তি হ্রাস করা হয়।” হযরত আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু এ প্রসঙ্গে মন্তব্য করেছেন, তা এ জন্যেই যে, আখিরী নবী, সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, নূরে মুজাস্সাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সোমবার শরীফ পৃথিবীতে আগমন করেছিলেন। আর সেই সময় হযরত সুয়াইবা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা নূরে মুজাস্সাম হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার তাশরীফের সুসংবাদ দিলে আবু লাহাব খুশি হয়ে উনাকে আযাদ করে দিয়েছিলো।
(বুখারী শরীফ, ফতহুল বারী, ৯ম খ-, ১১৮ পৃ: ওমদাতুল ক্বারী, শরহে বুখারী ২য় খ-ের ৯৫ পৃষ্ঠা)

আবু লাহাব হলো কাট্টা কাফির চির জাহান্নামী একজন দুশমন কাফির (মীলাদ শরীফ উনাতে) আনন্দিত হয়ে যদি এরূপ উপকৃত হয়, তাহলে মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উম্মতগণ পবিত্র মীলাদ শরীফ পাঠ করলে, খুশি প্রকাশ করলে কি পরিমাণ আমরা উপকৃত হবে, তা ফিকির করতে হবে!
আল্লাহপাক সবাইকে ফিকির করার তৌফিক দিক।
(আমীন)

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+