উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস সাবিয়াহ (যয়নাব বিনতে জাহাশ) আলাইহাস সালাম উনার সাথে সংশ্লিষ্ট ‘বিশ্ব পর্দা দিবস’ হাক্বীক্বতে পালন করা অন্যান্য ইবাদত বন্দেগীর চেয়ে লক্ষ কোটিগুণ ফযীলতের কারণ


ইমামুল মুফাসসিরীন মিনাল আউওয়ালীন ইলাল আখিরীন, আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেছেন: ‘নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার মহাসম্মানিত হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের এবং উনাদের সাথে সংশ্লিষ্ট মহাসম্মানিত দিন ও রাত মুবারকসমূহ হচ্ছেন নিন্মোক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত মহাপবিত্র আইয়্যামুল্লাহ শরীফ উনাদের অন্তর্ভুক্ত’। সুবহানাল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন-
وَذَكِّرْهُمْ بِاَيَّامِ اللَّهِ اِنَّ فِي ذٰلِكَ لَاٰيٰتٍ لِّكُلِّ صَبَّارٍ شَكُوْرٍ.
অর্থ: “আর আপনি মহাসম্মানিত আইয়্যামুল্লাহ শরীফ তথা মহান আল্লাহ পাক উনার মহাসম্মানিত বিশেষ বিশেষ দিন মুবারক সম্পর্কে তাদেরকে স্মরণ করিয়ে দিন, জানিয়ে দিন। নিশ্চয়ই এতে প্রত্যেক ধৈর্য্যশীল ও শুকুরগুজার বান্দা-বান্দী, উম্মতের জন্য সম্মানিত আয়াত তথা নিদর্শন, উপদেশ, রেযামন্দি-সন্তুষ্টি, মা’রিফাত-মুহব্বত মুবারক নিহিত রয়েছে।” (পবিত্র সূরা ইবরাহীম শরীফ : ০৫)
তাই আইয়্যামুল্লাহ শরীফ সমূহ পালন করলে হাক্বীক্বতে সর্বোচ্চ ও সর্বশ্রেষ্ঠ আমল করার মিছদাক্ব হওয়া যায়। সাধারণভাবে এতোটুকু বলা যায় যে, যে সম্মানিত স্থানে স্বয়ং ইলাহী অবস্থান মুবারক করেন তথা সম্মানিত আরশ পাক- সেই আরশে আযীম উনার চেয়ে লক্ষ কোটি গুণ বেশি মর্যাদাপূর্ণ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নূরুদ দারাজাত মুবারক উনার পবিত্র না’লাইন মুবারক অর্থাৎ পবিত্র নূরুল ফখর মুবারক উনার সাথে লেগে থাকা নুরুশ শরাফত বা ধূলোবালি মুবারক। আর উনার সাথে সংশ্লিষ্ট হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা এবং উনাদের সাথে সংশ্লিষ্ট দিন মুবারকও উনাদের কারণেই সম্মানিত হয়েছে, মর্যাদার অধিকারী হয়েছে যেন বান্দা বান্দী এ বিশেষ দিন মুবারক তথা আইয়্যামিল্লাহ শরীফ হতে নিয়ামত মুবারক হাছিল করতে পারে।
৫ম হিজরী সনের পবিত্র ৮ই যিলক্বদ শরীফ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম শরীফ: ত্বহিরা, ত্বয়্যিবাহ, উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস সাবিয়াহ (হযরত যয়নাব বিনতে জাহাশ) আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত নিসবতে শরীফ অনুষ্ঠিত হয়। আর উক্ত দিবসেই উনাকে উছিলা মুবারক করে পবিত্র পর্দা মুবারক উনার আয়াত শরীফ নাযিল হয়। সুবহানাল্লাহ!
হযরত উম্মাহাতুল মুমিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনারা অন্য কোন মহিলা বা মানুষ বা মাখলুকাতের মত নন। উনাদেরকে মহান আল্লাহ পাক সীমাহীন মর্যাদা, মর্তবা, শান মান, ফযীলত মুবারক হাদিয়া করেছেন। সুবহানাল্লাহ!
খাছ করে উম্মুল মুমিনীন আস সাবিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি হুযুরপাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়াসাল্লাম উনার সম্মানিতা আহলে বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মধ্যে অন্যতম। সুবহানাল্লাহ!
কাজেই ত্বহিরা, ত্বয়্যিবাহ, সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন, সাইয়্যিদাতু নিসায়ি আহলিল জান্নাহ, উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস সাবিয়াহ (হযরত যয়নাব বিনতে জাহাশ) আলাইহাস সালাম উনার সাথে সংশ্লিষ্ট পবিত্র ‘বিশ্ব পর্দা দিবস’ হাক্বীক্বতে পালন করা অন্যান্য ইবাদত বন্দেগীর চেয়ে লক্ষ কোটিগুণ ফযীলতের কারণ। সুবহানাল্লাহ ওয়া সুবহানা রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে