উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার ওছীয়ত মুবারক মহিলা-পুরুষ নির্বিশেষে সকলের জন্য মহান নছীহত


 

উম্মু আবীহা সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি পবিত্র বিছাল শরীফ উনার পূর্বে হযরত আসমা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহা বিনতে আমিস উনাকে ডেকে বলেছিলেন: “আমার পবিত্র জানাযা মুবারক নেয়ার সময় এবং দাফন মুবারক করার সময় পর্দার পুরো ব্যবস্থা রাখতে হবে এবং আপনি ও আমার স্বামী ছাড়া অন্য কোনো ব্যক্তির নিকট থেকে গোসলের ব্যাপারে সাহায্য নেয়া যাবে না। হাবশায় পবিত্র জানাযা মুবারক উনার উপর গাছের ডাল বেঁধে ঢাল আকৃতির বানানো হয় এবং তার উপর পর্দা দিয়ে দেয়া হয়। অতঃপর তিনি খেজুরের কয়েকটি ডাল আনালেন এবং তা জোড়া দিলেন। অতঃপর তার উপর কাপড় টাঙিয়ে সাইয়্যিদা আলাইহাস সালাম উনাকে দেখালেন। তিনি তা পছন্দ করলেন। বস্তুত পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার পর উনার পবিত্র জানাযা মুবারক ওইভাবেই উঠানো হলো। জানা যায়, খুব কম সংখ্যক লোকেরই অংশগ্রহণের সুযোগ হয়েছিলো। সাইয়্যিদা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ আছরের পরে হয়েছিলো এবং ওছীয়ত মুবারক অনুযায়ী হযরত আলী কারামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি রাতেই দাফন মুবারক সম্পন্ন করেছিলেন।
বর্ণিত আছে, সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি সাইয়্যিদাতুনা হযরত ফাতিমাতুয যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার সংবাদ কাউকেও জানতে দেননি। তিনি নিজেই উনার গোসল মুবারক করান এবং পবিত্র জানাযা মুবারক উনার নামায পড়ান। হযরত সাইয়্যিদাতু নিসায়িল আলামীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র রওযা শরীফ জান্নাতুল বাক্বী উনার মধ্যে। এখন চিন্তা ও ফিকিরের বিষয় হলো- সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার পবিত্র বিছাল শরীফ পূর্বকালীন ওছীয়ত মুবারক ও গোসল মুবারক, কাফন মুবারক-দাফন মুবারক সম্পর্কীয় ইত্যাকার বিষয়াদি উনার বেমেছাল এবং ওয়ারাউল ওয়ারা খাছ পর্দার কথা স্মরণ করিয়ে দেন। অতএব, সারা দুনিয়ার মুসলিম মহিলা-পুরুষের দায়িত্ব-কর্তব্য হলো, যার যার ক্ষেত্রে খাছ শরঈ পর্দা বজায় রেখে চলা। খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদেরকে সে তাওফীক দান করুন। আমীন।

 

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে