একটি খুনের তদন্তের জন্য আমেরিকার এফবিআই বাংলাদেশে! দেশের গোয়েন্দা-পুলিশদের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন


এক কুলাঙ্গার নাস্তিকের হত্যাকারীদের খুঁজে বের করতে বিশ্ব সন্ত্রাসবাদী যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই এসেছে বাংলাদেশে। বিষয়টা নিয়ে আমাদের চৌকশ ও দক্ষ গোয়েন্দা, পুলিশ প্রসাশনের যোগ্যতা নিয়ে প্রশ্ন উঠা স্বাভাবিক বৈকি। আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা লজ্জিত কিনা জানি না তবে দেশের নাগরিক হিসেবে আমি লজ্জিত। এতে আমাদের বাঙালি জাতিরও মানহানী হয়েছে, দেশ ও আন্তর্জাতিক অঙ্গনে দেশের সুনামও ক্ষুণœ হয়েছে। কেননা, গোয়েন্দাদের জন্য একটি খুনিকে বের করা খুবই মামুলি বিষয়। আমি মনে করি, আমাদের দেশের একটা কনস্টেবল পুলিশও এ কাজটি করতে পারে। কিন্তু এই সামান্য কাজে সহযোগিতার নামে সন্ত্রাসবাদী যুক্তরাষ্ট্র থেকে এফবিআই আসা মোটেও অস্বাভাবিক নয়। যদিও আমাদের দেশের একজন দায়িত্বশীল মন্ত্রী নির্লজ্জের মতো বলেছে, ‘এফবিআইন আসা অস্বাভাবিক কিছু না। তাদের দেশের নাগরিক মারা যাওয়ার তদন্ত করতে তারা আসতেই পারে।’ এখানে প্রশ্ন হচ্ছে, বাংলাদেশে আমেরিকার নাগরিক এর আগেও অনেক মারা গেছে, তখনতো তারা তদন্ত করতে আসেনি। এছাড়া পৃথিবীর বহু দেশে বহু বাংলাদেশী হত্যার শিকার হয়েছে, যাদের খুনিদের ধরাও হয়নি, বিচারও হয়নি। সেক্ষেত্রে বাংলাদেশ থেকে কেন গোয়েন্দা প্রতিনিধি যায়নি তদন্ত করতে?
বাঙালি জাতি ন্যাড়া নয়, নির্বোধও নয়, আটকুড়েও নয়; তথাপি আমাদের দেশের নির্বোধ শাসকগোষ্ঠীর জন্য পুরোজাতিকে মাথানত করে থাকতে হয় বিদেশীদের কাছে। একটি খুনের তদন্তে সহযোগিতার নামে এফবিআইকে আসতে দেয়া এদেশের গোয়েন্দা পুলিশ প্রশাসনের অযোগ্যতা-অদক্ষতা প্রমাণিত হলো, যে সুনামক্ষুণœ হলো, তার দায় সরকারকেই নিতে হবে।

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+