একটি বিশেষ আমল যা ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনিই করেছেন


ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, ইমামুল মুত্তাক্বীন, আসদুল্লাহিল গালিব, খলীফাতুর রবি’, আমীরুল মু’মিনীন, খলীফাতুল মুসলিমীন, সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি প্রায়ই বলতেন, মহান আল্লাহ পাক রব্বুল আলামীন উনার একটি আদেশ মুবারক শুধু আমিই পালন করেছি। আমার পূর্বে এবং পরে অন্য কারো পালন করার সৌভাগ্য হয়নি। (তাফসীরে ইবনে কাসীর)
মহান আল্লাহ পাক তিনি যখন হুকুম দিলেন
يَا أَيُّهَا الَّذِينَ آمَنُوا إِذَا نَاجَيْتُمُ الرَّسُولَ فَقَدِّمُوا بَيْنَ يَدَيْ نَجْوَاكُمْ صَدَقَةً ۚ ذَٰلِكَ خَيْرٌ لَكُمْ وَأَطْهَرُ ۚ فَإِنْ لَمْ تَجِدُوا فَإِنَّ اللَّـهَ غَفُورٌ رَحِيمٌ
অর্থ: “হে ঈমানদারগণ! তোমরা যখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে ব্যক্তিগত পরামর্শ ও চুপে চুপে কথা বলতে চাও তখন পরামর্শ বা চুপে চুপে কথা বলার পূর্বে কিছু হাদিয়া দিও। ইহা তোমাদের জন্য কল্যাণকর ও পবিত্রতা হাছিলের কারণ হবে। তবে যদি তোমাদের সামর্থ্য না থাকে তাহলে মনে রেখ মহান আল্লাহ পাক তিনি অতীব ক্ষমাশীল, অত্যন্ত দয়ালু।” (পবিত্র সূরা মুজাদালাহ শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১২)
সে সময় আমার কাছে একটি দিনার (স্বর্ণের টাকা) ছিল। আমি তা দশ দিরহামে ভেঙ্গে নিলাম। আমি যখনই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট কোনো কথা বলতে চাইতাম তখনই এক দিরহাম হাদিয়া দিতাম।
অনতিকাল পরেই মহান আল্লাহ পাক তিনি এই আদেশ মুবারক পরিবর্তন করে দিলেন। উক্ত পবিত্র আয়াত শরীফ উনার হুকুম রহিত হয়ে গেলো। এ কারণে পূর্ব নির্দেশ মুবারকের উপর আর কেউ আমল করতে পারেনি।
মহান আল্লাহ পাক তিনি পরে ইরশাদ মুবারক করলেন-
أَأَشْفَقْتُمْ أَنْ تُقَدِّمُوا بَيْنَ يَدَيْ نَجْوَاكُمْ صَدَقَاتٍ ۚ فَإِذْ لَمْ تَفْعَلُوا وَتَابَ اللَّـهُ عَلَيْكُمْ فَأَقِيمُوا الصَّلَاةَ وَآتُوا الزَّكَاةَ وَأَطِيعُوا اللَّـهَ وَرَسُولَهُ ۚ وَاللَّـهُ خَبِيرٌ بِمَا تَعْمَلُونَ
অর্থ: “তোমরা কি তোমাদের পরামর্শ বা চুপে চুপে কথা বলার পূর্বে হাদিয়া দানের ব্যাপারে ভয় পাচ্ছ। যখন তোমরা উহা করতে পারলে না, আর মহান আল্লাহ পাক তোমাদের অবস্থার উপর অনুগ্রহ করলেন তখন তোমরা নামায কায়িম করো, যাকাত আদায় করো এবং মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের ইতায়াত বা নির্দেশ মুবারক পালন করো। ( জেনে রেখ) মহান আল্লাহ পাক তিনি তোমাদের সকল কাজের পরিপূর্ণরূপে খবর রাখেন।” (পবিত্র সূরা মুজাদালা শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ ১৩)

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে