এক নজরে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বৎসর ভিত্তিক মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় জীবনী মুবারক


যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,

وَرَفَعْنَا لَكَ ذِكْرَكَ.

অর্থ: “আর (আমার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) আমি আপনার সম্মানিত যিকির মুবারক, সম্মানিত আলোচনা মুবারক, শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক বুলন্দ থেকে বুলন্দতর করেছি।” সুবহানাল্লাহ! (সম্মানিত ও পবিত্র সূরা আলাম নাশ্রহ্ শরীফ: সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ ৪)

সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি শুধু খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি নন; এছাড়া যত শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক রয়েছেন, সমস্ত শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক উনাদের অধিকারী। সুবহানাল্লাহ! তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার হাবীব এবং মাহবূব। তিনিই মহান আল্লাহ পাক উনার সর্বপ্রথম সৃষ্টি মুবারক। মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাকে উনার মাহবূব ও সমগ্র কায়িনাতের মালিক হিসেবে সৃষ্টি মুবারক করেছেন। সুবহানাল্লাহ! উনার সম্মানার্থেই মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার সম্মানিত রুবূবিয়াত মুবারক যাহির করেছেন। সুবহানাল্লাহ! উনার সম্মানার্থে, উনার সম্মানিত গোলামী মুবারক উনার আনজাম মুবারক দেয়ার জন্য, উনারই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূর মুবারক থেকে নেয়া এক কাতরা নূর মুবারক থেকেই এই সৃষ্টি জগতের বিকাশ। সুবহানাল্লাহ! সম্মানিত আরশ মুবারক, সম্মানিত কুরসী মুবারক, সম্মানিত জান্নাত মুবারক, জাহান্নাম, আসমান-যমীন, চন্দ্র-সূর্য, আলো-বাতাস, মাটি-পানি, গাছপালা-তরুলতা, জামাদাত, শাজারাত, হাজারাত, জিন-ইনসান, হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম এবং হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনারাসহ সমস্ত মাখলূকাত নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানার্থে, উনার সম্মানিত গোলামী মুবারক উনার আনজাম মুবারক দেয়ার জন্য, উনারই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূর মুবারক থেকে সৃষ্টি। সুবহানাল্লাহ!

নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন,

يَا جَابِرُ رَضِىَ اللهُ تَعَالـٰى عَنْهُ اِنَّ اللهَ تَعَالـٰى قَدْ خَلَقَ قَبْلَ الْاَشْيَاءِ نُوْرَ نَبِيِّكَ مِنْ نُّوْرِهٖ فَجَعَلَ ذٰلِكَ النُّوْرُ يَدُوْرُ بِالْقُدْرَةِ حَيْثُ شَاءَ اللهُ تَعَالـٰى

অর্র্থ: “হে হযরত জাবির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু! নিশ্চয়ই নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক তিনি সমস্ত কিছুর পূর্বে সর্বপ্রথম আপনার যিনি মহাসম্মানিত নবী ও রসূল, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূর মুবারক উনাকে অত্যান্ত মুহব্বত উনার সাথে সম্মানিত সৃষ্টি মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! তখন সেই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূর মুবারক মহান আল্লাহ পাক উনার সম্মানিত ইচ্ছা মুবারক অনুযায়ী উনার সম্মানিত কুদরত মুবারক উনার মধ্যে ঘূর্ণায়মান ছিলেন।” সুবহানাল্লাহ! (মাওয়াহিবুল লাদুননিয়্যাহ, মাদারেজুন নুবুওওয়াত, ফতওয়ায়ে হাদীছিয়্যাহ ইত্যাদি)

মহান আল্লাহ পাক তিনি যেমন কায়িনাতের কোনো কিছুর মুহ্তায নন, ঠিক তেমনিভাবে উনার মাহবূব হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিও একমাত্র মহান আল্লাহ পাক তিনি ব্যতীত সৃষ্টি জগতের কোনো কিছুর মুহ্তায নন। সুবহানাল্লাহ! তিনি সৃষ্টির শুরুতেই মহান আল্লাহ পাক উনার মহাসম্মানিত কুদরত মুবারক উনার মধ্যে, মহাসম্মানিত দীদার মুবারক উনার মধ্যে ছিলেন, আছেন এবং অনন্তকাল থাকবেন। সুবহানাল্লাহ! আলমে খ¦লক্বের শেষ সীমানা হচ্ছে আরশে আযীম মুবারক। এর উপরে হচ্ছে আলমে আমর। এটাও সৃষ্টি জগতের মধ্যে। এ সমস্ত কিছুর উর্ধ্বে হচ্ছে উনার সম্মানিত মাক্বাম মুবারক। সুবহানাল্লাহ! সমস্ত সৃষ্টি জগতের উর্ধ্বে উনার সম্মানিত অবস্থান মুবারক। সুবহানাল্লাহ!

কাজেই, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র জীবনী মুবারক জানা সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসী সকলের জন্য ফরযে আইন। সুবহানাল্লাহ! উনার শান মুবারক-এ পৃথিবীর ইতিহাসে আরবীসহ বিভিন্ন ভাষায় অনেক জীবনী মুবারক লেখা হয়েছে। কিন্তু অত্যন্ত পরিতাপের বিষয় হলো- এ পর্যন্ত উনার শান মুবারক-এ পরিপূর্ণ বিশুদ্ধ আক্বীদা সম্পন্ন জীবনী মুবারক লেখা কারো পক্ষ সম্ভব হয়নি। প্রত্যেকটি কিতাবেই আক্বীদাগতভাবে তো নানা কুফরী রয়েছেই; এমনকি সন তারীখগুলোও এলোমেলো। না‘ঊযুবিল্লাহ! মুসলমানদের জন্য ফরয ছিলো- সন তারীখগুলো ঠিক করে বৎসর, মাস ও দিন অনুযায়ী বিশুদ্ধ আক্বীদাহ মুবারক সম্পন্ন একখানা জীবনী মুবারক লেখা। সুবহানাল্লাহ! কিন্তু অত্যন্ত দুঃখজনক হলেও সত্য যে, পৃথিবীর ইতিহাসে আজ পর্যন্ত কেউ এ মহান কাজে হাত দেয়নি। আর বর্তমানে তো এরূপ জীবনী মুবারক লেখার চিন্তা করাটাও একটা অসম্ভব বিষয়। কারণ ছোট-বড় কোনো কিতাবাদিতেই এ বিষয়গুলোর বর্ণনা নেই। তাহলে এটা কি করে সম্ভব?

কিন্তু নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে রয়েছে আহলু বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মুত্বহ্হার, মুত্বহহির, আছ ছমাদ, মুজাদিদ্দে আ’যম মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা সাইয়্যিদুনা ইমাম খলীফাতুল্লাহ হযরত আস সাফফাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রয়েছে ২৪ ঘণ্টা দায়িমী হাক্বীক্বী দীদার ও বেমেছাল তা‘য়াল্লুক্ব-নিসবত মুবারক। সুবহানাল্লাহ! যার কারণে তিনি ঘোষণা মুবারক দিয়েছেন, “তিনি প্রথমে বৎসর অনুযায়ী, তারপর মাস অনুযায়ী, তারপর দিন অনুযায়ী, অতঃপর ঘণ্টা অনুযায়ী নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র জীবনী মুবারক প্রকাশ করবেন।” সুবহানাল্লাহ!

সেই ধারাবাহিকতায় বর্তমান পর্যন্ত যে সকল তারীখ মুবারক ও বিষয় মুবারকগুলো তিনি কায়িনাতের মাঝে প্রকাশ করেছেন, সে অনুযায়ী এক নজরে সাইয়্যিদুল মুরসালীন, ইমামুল মুরসালীন, খাতামুন নাবিয়্যীন, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বৎসর ভিত্তিক মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় জিবনী মুবারক তুলে ধরা হলো-

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১ম বৎসর মুবারক:

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হস্তি বাহিনী ধ্বংস হওয়ার ৫০ দিন পর সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ উনার সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ শরীফ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই রবী‘উল আউওয়াল শরীফ) সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ (ইছনাইনিল ‘আযীম শরীফ) সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আওক্বাত শরীফ (ছুবহে ছাদিক্ব শরীফ) উনার সময় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সর্বপ্রথম সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপিবত্র দুগ্ধ মুবারক পান করান। সুবহানাল্লাহ!

* তারপর সাইয়্যিদাতুনা হযরত সুওয়াইবাহ্ আলাইহাস সালাম তিনিও কিছু দিন মহাসম্মানিত ও মহাপিবত্র দুগ্ধ মুবারক পান করান। সুবহানাল্লাহ!

* অতঃপর সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম (সাইয়্যিদাতুনা হযরত হালীমাহ আলাইহাস সালাম) তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র দুগ্ধ মুবারক পান করান। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে গ্রহণ করার পর অনেক খায়ের-বরকত মুবারক লাভ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত বনূ সা’দ গোত্রের চারণভূমি অনুর্বর ছিলো, সেটা সবুজ শ্যামল হয়ে ওঠে ও ফসল বৃদ্ধি পায় এবং উনাদের গোত্রে খায়ের-বরকত মুবারক বৃদ্ধি পেতে থাকে। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু আইমান আলাইহাস সালাম তিনি সার্বিকভাবে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ মশগুল হন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২য় বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র দুগ্ধ মুবারক পান করার জন্য সম্মানিত বনূ সা’দ গোত্রে সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম উনার নিকট মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বাল্যকাল মুবারক অতিবাহিত করেন। সুবহানাল্লাহ! সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি দুই বছর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র দুগ্ধ মুবারক পান করান। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩য় বৎসর মুবারক:

* দুই বছর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র দুগ্ধ মুবারক পান করানো শেষ হলে সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট নিয়ে আসেন।

* তারপর উনারা খায়ের-বরকত লাভের জন্য সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট আরজী পেশ করে পূনরায় নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্মানিত বনূ সা’দ গোত্রে নিয়ে যান। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪র্থ বৎসর মুবারক:

* প্রথমবার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল ইলম মুবারক (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র সিনা মুবারক) চাক উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র শান মুবারক প্রকাশিত হন। সুবহানাল্লাহ! তখন সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি চিন্তিত হয়ে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার নিকট নিয়ে আসেন। তখন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এবং সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অর্থাৎ উনারা বলেন যে, এটা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার বিশেষ শান মুবারক। সুবহানাল্লাহ!

* তারপর সাইয়্যিদাতুনা হযরত সা’দিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি পূণরায় নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে সম্মানিত বনূ সা’দ গোত্রে নিয়ে যান। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫ই ছফর শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা’ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫ম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত বনূ সা’দ গোত্রে অবস্থান মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৬ষ্ঠ বৎসর মুবারক:

* এ বৎসরের শুরুর দিকে সম্মানিত বনূ সা’দ গোত্র থেকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আম্মাজান আলাইহাস সালাম উনার নিকট ফিরে আসেন। সুবহানাল্লাহ!

* আর এ বৎসরের শেষের দিকে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আম্মাজান আলাইহাস সালাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ গমন করেন এবং সেখানে ১ মাস সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ উনার মধ্যে ১ মাস সম্মানিত অবস্থান মুবারক করার পর সাইয়্যিদুনা হযরত যাবীহুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র রওযা শরীফ যিয়ারত মুবারক করে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ ফিরার পথে ১০ই সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ ইশরাক উনার ওয়াক্ত শেষ হয়ে চাশত উনার ওয়াক্ত শুরু হওয়ার পর আবওয়া নামক স্থানে সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল আযহার মুবারক-এ (মহাম্মানিত ও মহাপবিত্র কোল মুবারক-এ) নিয়ে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র না’ত শরীফ পাঠ করতে করতে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ! এ সময় সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু আইমান আলাইহাস সালাম তিনি সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ ছিলেন। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার পর অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেয়ার পর যখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ-এ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক গ্রহণ করেন, তখন একমাত্র সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু আইমান আলাইহাস সালাম তিনিই সাথে ছিলেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৭ম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত খিদমত মুবারক উনার দায়িত্ব মুবারক সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার উপর ন্যাস্ত হন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৮ম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত তত্ত্বাবধান মুবারক-এ অত্যন্ত সম্মান এবং তা’যীম-তাকরীম মুবারকসহকারে সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৯ম বৎসর মুবারক:

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার যখন দুনিয়াবী দৃষ্টিতে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বয়স মুবারক ৮ বছর ২ মাস ১০ দিন, তখন ২২শে জুমাদাল ঊলা শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদুনা হযরত জাদ্দু রসূল্লিাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করার পর অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেয়ার পর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত খিদমত মুবারক উনার মহাসম্মানিত দায়িত্ব মুবারক খাজা আবূ ত্বালিব উনার নিকট স্থানান্তরিত হন। সুবহানাল্লাহ! দুনিয়াবী দৃষ্টিতে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মহাসম্মানিত বয়স মুবারক যখন ৮ বছর ২ মাস ১০ দিন তখন থেকে মহাসম্মানিত ৫০তম বৎসরের ২২শে রজবুল হারাম শরীফ পর্যন্ত একাধারা প্রায় ৪২ বছর খাজা আবূ ত্বালিব তিনি সম্মানিত খিদমত মুবারক উনার আনজাম মুবারক দেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১০ম বৎসর মুবারক:

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি কায়িনাতবাসী সবাইকে মহাসম্মানিত তা’লীম মুবারক দান করার জন্য মহাসম্মানিত ১০ম বৎসর মুবারক এবং পূর্বেও বকরী চরান। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর ৩রা রজবুল হারাম শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছালিছাহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১১তম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অত্যন্ত সম্মান এবং তা’যীম-তাকরীম মুবারকসহকারে খাজা আবূ ত্বালিব উনার হুজরা শরীফ-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২তম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি অত্যন্ত সম্মান এবং তা’যীম-তাকরীম মুবারকসহকারে খাজা আবূ ত্বালিব উনার হুজরা শরীফ-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৩তম বৎসর মুবারক:

দুনিয়াবী দৃষ্টিতে ১২ বছর ২ মাস সম্মানিত বয়স মুবারক-এ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খাজা আবূ ত্বালিব উনার সঙ্গে এক বাণিজ্য কাফিলায় সিরিয়া সফর মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! যখন উনারা বছরা পৌঁছেন, তখন বুহাইরা নামে এক ঈসায়ী পাদ্রী নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে দেখে ও উনার সঙ্গে কথা বলে বুঝতে পারেন যে, তিনিই আখিরী নবী ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম। সুবহানাল্লাহ! তখন সেই পাদ্রি খাজা আবূ তালিব উনাকে ইহুদীদের শত্রুতার বিষয়ে সতর্ক করে দেন। তারপর উনারা সেখানে উনাদের মালামাল বিক্রি করে দিয়ে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ-এ চলে আসেন।

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৪তম বৎসর মুবারক:

দুনিয়াবী দৃষ্টিতে ১৩তম বৎসর মুবারক পার হয়ে ১৪তম বৎসর বয়স মুবারক-এ নূরে মুজাসসাম হাবীবল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দ্বিতীয়বার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল ইলম মুবারক চাক উনার শান মুবারক প্রকাশিত হন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৫তম বৎসর মুবারক:

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনার মহাসম্মানিত চাচা আলাইহিমুস সালাম উনাদের সাথে হরবুল ফিজার জিহাদ মুবারক-এ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি উনার চাচা আলাইহিমুস সালাম উনাদেরকে তীর প্রস্তুত করে দিতেন।

* এ বছরেই হরবুল ফিজারে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র পিতা আলাইহিস সালাম তিনি ইন্তিকাল করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৬তম বৎসর মুবারক:

‘হিলফুল ফুযূল’ নামক চুক্তিতে অংশগ্রহণ করেন। এ চুক্তির প্রধান উদ্দেশ্য ছিল মযলূমকে যালিমের বিরূদ্ধে সাহায্য করা। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৭তম বৎসর মুবারক:

সাইয়্যিদুনা হযরত খ¦তিমুল মুহাজিরীন আলাইহিস সালাম (সাইয়্যিদুনা হযরত আব্বাস আলাইহিস সালাম) উনার সাথে ব্যবসার উদ্দেশ্যে ইয়েমেনে সম্মানিত সফর মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৮তম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খাজা আবূ ত্বালিব উনার হুজরা শরীফ-এ অত্যন্ত সম্মান এবং তা’যীম-তাকরীম মুবারক সহকারে সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৯তম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খাজা আবূ ত্বালিব উনার হুজরা শরীফ-এ অত্যন্ত সম্মান এবং তা’যীম-তাকরীম মুবারক সহকারে সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২০তম বৎসর মুবারক:

বিভিন্ন রকম মহাসম্মানিত স্বপ্ন মুবারক দেখতে থাকেন এবং হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনাদের আওয়াজ মুবারক শ্রবণ করতেন। মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক উনার আলামত মুবারক প্রকাশ পেতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২১তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর ১৯শে রবী‘উছ ছানী শরীফ ইয়াওমুল জুমু‘আহ্ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস সাবি‘য়াহ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২২তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর ২৮শে সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা’ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আত তাসি‘য়াহ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৩তম বৎসর মুবারক:

নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি খাজা আবূ ত্বালিব উনার হুজরা শরীফ-এ অত্যন্ত সম্মান এবং তা’যীম-তাকরীম মুবারক সহকারে সম্মানিত অবস্থান মুবারক করতে থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৪তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর ২৯শে জুমাদাল ঊলা শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা’ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল হাদিয়াহ ‘আশার আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৫তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার ব্যবসায়িক মাল নিয়ে সিরিয়ায় সফর মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! এটা ছিলো মুদারাবা ব্যবসা মুবারক। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৬তম বৎসর মুবারক:

* এ বৎসর ২২শে জুমাদাল ঊলা শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ! তখন দুনিয়াবী দৃষ্টিতে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত বয়স মুবারক ছিলেন ২৫ বছর ২ মাস ১০ দিন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ উনার পর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কা’বা শরীফ উনার পাশে হাকীম ইবনে হিযাম উনার থেকে একটি সম্মানিত বাড়ি মুবারক খরীদ করেন। তারপর উনারা সেখানে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৭তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর ২০শে শাওওয়াল শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা’ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল খ¦মিসাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৮তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর ২রা রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা’ শরীফ সকালে সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুল আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৯তম বৎসর মুবারক:

ইবনু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি এককভাবে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম উনার অর্থাৎ উনাদের বেমেছাল আদর-যতœ ও মুহব্বত মুবারক লাভ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩০তম বৎসর মুবারক:

* এ বৎসর ২১শে জুমাদাল উখরা শরীফ ইয়াওমুল জুমুয়াহ শরীফ বা’দ ফজর আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাইরু ওয়া আফযালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাইরু ওয়া আফযালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশের মাত্র ১১ দিন পর ২রা রজবুল হারাম শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ ভোর রাতে সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুল আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩১তম বৎসর মুবারক:

* এ বৎসর ২রা সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ লাইলাতুল খমীস শরীফ শেষ রাতে সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুছ ছানী আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুছ ছানী আলাইহিস সালাম তিনি দুনিয়ার যমীনে মাত্র ৭ দিন সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। অতঃপর ৮ই সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুল আরবিয়া’ শরীফ বা’দ আছর তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩২তম বৎসর মুবারক:

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪ঠা সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুল আরবিয়া’ শরীফ সকালে সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছ আলাইহিস সালাম তিনি দুনিয়ার যমীনে মাত্র ৮ দিন সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। অতঃপর ১২ই সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুল খমীস শরীফ চাশতের সময় তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৩তম বৎসর মুবারক:

বিশেষভাবে জনকল্যাণমূলক কাজ করেন এবং মানুষদেরকে বিভিন্ন আর্থিক সাহায্য-সহযোগীতা মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৪তম বৎসর মুবারক:

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩রা রবী‘উছ ছানী শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ সকালে সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহনাল্লাহ!

* এ বৎসরই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত ও পবিত্র হেরা গুহা মুবারক উনার মধ্যে সম্মানিত তাশরীফ নেয়া শুরু করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৫তম বৎসর মুবারক:

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কা’বা শরীফ পুনঃনির্মাণ করা হয়। সম্মানিত হাজরে আসওয়াদ মুবারক স্থাপন করার বিষয় নিয়ে কুরাইশদের মধ্যে মতবিরোধ দেখা দেয়। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত নির্দেশ মুবারক অনুযায়ী সম্মানিত হাজরে আসওয়াদ মুবারক চাদরে রেখে প্রত্যেক গোত্র হতে একজন করে প্রতিনিধি চাদরের কোণা ধরে প্রাচিরের সন্নিকটে নিয়ে যায়। অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নিজ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল মাগফিরাহ্ মুবারক-এ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হাত মুবারক-এ) সম্মানিত হাজরে আসওয়াদ মুবারক দেয়ালে স্থাপন মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৬তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর ১১ই জুমাদাল ঊলা শরীফ লাইলাতুস সাব্ত শরীফ সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৭তম বৎসর মুবারক:

সম্মানিত ও পবিত্র হেরা গুহা মুবারক উনার মধ্যে যাতায়াত মুবারক করেন এবং বিশেষভাবে ইবাদত-বন্দেগীতে মশগুল থাকেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৮তম বৎসর মুবারক:

এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২০শে জুমাদাল উখরা শরীফ ইয়াওমুল জুমু‘আহ্ শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আওক্বাত শরীফ উনার সময় আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩৯তম বৎসর মুবারক:

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি রাত-দিন সম্মানিত ও পবিত্র হেরা গুহা মুবারক উনার মধ্যে সম্মানিত ইবাদত-বন্দেগী মুবারক করতেন। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত সত্য স্বপ্ন মুবারক প্রকাশিত হন। ঘুমের মধ্যে যা দেখতেন, সকালে তা ভোরের আলোর ন্যায় প্রকাশ পেতেন। সুবহানাল্লাহ! উনাকে পাথর ও গাছপালা সালাম দিতো ইত্যাদি মহাসম্মানিত ঘটনা মুবারক প্রকাশিত হন। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের বিভিন্ন ধরনের ‘আলামত মুবারক প্রকাশ পান। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৩ই সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুল জুমু‘আহ্ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছানিয়াহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসরই মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৩ই যিলক্বদ শরীফ ইয়াওমুল খমীস শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছামিনাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪০তম বৎসর মুবারক:

* আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৯ মাস ২০ দিন পূর্র্বে ২২শে জুমাদাল ঊলা শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফদ্বলু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূর আলাইহিস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* তৃতীয়বারের মত মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল ইলম মুবারক চাক উনার মহাসম্মানিত শান মুবারক প্রকাশিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* দুনিয়াবী দৃষ্টিতে পূর্ণ ৪০ বছর সম্মানিত বয়স মুবারক-এ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ উনার সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ শরীফ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই রবী‘উল আউওয়াল শরীফ) সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ আনুষ্ঠানিকভাবে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার প্রতি সম্মানিত ওহী মুবারক নাযিল হন এবং আনুষ্ঠানিকভাবে উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশ পান। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি পুরুষ-মহিলা সকলের পূর্বে সর্বপ্রথম সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন এবং সম্মানিত ঈমান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! উনার সাথে সাথে সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম তিনি, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি এবং আন নূরুর রবি‘য়াহ্ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি অর্থাৎ উনারাও সম্মানিত ঈমান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! অতঃপর সামান্য সময়ের ব্যবধানে আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খাইরু ওয়া আফযালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনিও সংবাদ মুবারক পাওয়ার সাথে সাথে এসে সম্মানিত ঈমান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! উনারাই হচ্ছেন পুরুষ-মহিলা সকলের মাঝে সর্বপ্রথম সম্মানিত ঈমান মুবারক প্রকাশকারী। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪১তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১ম বছর):

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের কয়েক দিন পর সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। অতঃপর হযরত ফাতিমা বিনতে আসাদ আলাইহাস সালাম তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। তারপর সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু আয়মান আলাইহাস সালাম তিনি সম্মানিত ঈমান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! তারপর সাইয়্যিদুনা হযরত যায়েদ ইবনে হারিছাহ্ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। অতঃপর সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের এক সপ্তাহের মধ্যে উনারা সকলে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪২তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ২য় বছর):

সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবার আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার প্রতি লোকদেরকে দাওয়াত প্রদানে মনোনিবেশ করেন এবং উনার দাওয়াতে অনেক হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনারা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৩তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৩য় বছর):

এ বৎসর ২৫শে রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুল আহাদ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৪তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৪র্থ বছর):

* এ বৎসর ১৮ই রবী‘উছ ছানী শরীফ লাইলাতুল জুমু‘আহ্ শরীফ সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম উনার সাথে সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর প্রকাশ্যে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার দাওয়াত দেয়া শুরু করা হয়। সুবহানাল্লাহ! সম্মানিত ও পবিত্র সূরা লাহাব শরীফ নাযিল হন। কুরাইশরা চরম বিরোধীতা শুরু করে দেয়। নাঊযুবিল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪ঠা শাওওয়াল শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ্ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৫তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৫ম বছর):

* হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনাদের উপর মুশরিকরা যুলুমের মাত্রা বাড়িয়ে দেয়। তখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক অনুমতিক্রমে সম্মানিত রজবুল হারাম শরীফ মাসে হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনারা হাবশায় হিজরত মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ! এটি ছিলো সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার প্রথম হিজরত মুবারক। প্রথমে যাঁরা সম্মানিত হিজরত মুবারক-এ বের হন, উনারা হলেন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি এবং সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি অর্থাৎ উনারা। উনাদের সাথে উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মু সালামা আলাইহাস সালাম তিনিসহ আরো অনেকেই ছিলেন। তবে ওই সম্মানিত কাফিলা মুবারক-এ মোট কতজন সদস্য ছিলেন, এই বিষয়ে অনেক ইখতিলাফ রয়েছে। যেমন, ১০ জন, ১২ জন, ১৪ জন, ১৫ জন, ১৬ জন, ১৭ জন এরূপ বিভিন্ন জন বিভিন্ন মত পেশ করেছেন।

সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি এবং সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনারা যখন হাবশায় (আবিসিনিয়ায়) সম্মানিত হিজরত মুবারক করেন, তখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনাদের সম্মানিত খুছূছিয়াত মুবারক সম্পর্কে ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ আলাইহাস সালাম তিনি এবং হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনারাই হচ্ছেন হযরত ইবরাহীম খলীলুল্লাহ আলাইহিস সালাম উনার এবং হযরত লূত আলাইহিস সালাম উনাদের পর সর্বপ্রথম হিজরতকারী।” সুবহানাল্লাহ!’

* এ বৎসরের শুরুর দিকে সাইয়্যিদুনা হযরত সাইয়্যিদুশ শুহাদা আলাইহিস সালাম (সাইয়্যিদুনা হযরত হামযাহ্ আলাইহিস সালাম) তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৬তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৬ষ্ঠ বছর):

* আর এ বৎসরে সাইয়্যিদুনা হযরত ফারূক্বে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কা’বা শরীফ-এ গিয়ে প্রকাশ্যে সম্মানিত ছলাত আদায় করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর ১৪ই যিলহজ্জ শরীফ রাতে চন্দ্র দ্বিখ-িত হওয়ার মহাসম্মানিত ওয়াক্বিয়াহ্ মুবারক সংঘটিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসরই মুহররমুল হারাম শরীফ মাসে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনাদেরকে নিয়ে শি’বে আবূ ত্বালিব-এ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক গ্রহণ করেন।

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৭ তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৭ম বছর):

শি’বে আবূ ত্বালিব-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন।

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৮তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৮ম বছর):

শি’বে আবূ ত্বালিব-এ সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন।

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪৯তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ৯ম বছর):

এই বৎসর সম্মানিত মুহররমুল হারাম শরীফ মাসে শি’বে আবূ ত্বালিব থেকে প্রত্যাবর্তন মুবারক করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫০তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১০ম বছর):

* এ বৎসরকে ‘আমুল হুযন বলা হয়। কারণ এ বৎসরের ২২শে রজবুল হারাম শরীফ খাজা আবূ তালিব তিনি ইন্তিকাল করেন।

* আর এ বৎসরই ১৭ই রমাদ্বান শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত কুবরা আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশের অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেয়ার ৯ দিন পর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৬শে রমাদ্বান শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* আর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২১শে শাওওয়াল শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ্ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ্ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত আক্বদ মুবারক অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসরেই সম্মানিত শাওওয়াল শরীফ মাসে তায়েফের ঘটনা সংঘটিত হয়।

* সেখান থেকে ফিরার পথে জ্বিনদের একটি দল মহাসম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫১তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১১তম বছর):

* এ বৎসর সম্মানিত ‘উমরা উনার সময় হযরত আবূ যর গিফারী রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনিসহ ভিনদেশী বিশিষ্ট কয়েকজন ব্যক্তিত্ব মুবারক উনারা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর ২৭শে রজবুল হারাম শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত মি’রাজ শরীফ সংঘটিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ সময় চতুর্থবার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল ইলম মুবারক চাক উনার মহাসম্মানিত শান মুবারক প্রকাশিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মি’রাজ শরীফ সংঘটিত হওয়ার পরের দিন ২৮শে রজবুল হারাম শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা শরীফ সিব্ত্বতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত বিনতু যিন নূর আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর সম্মানিত হজ্জ উনার মওসুমে আকাবার প্রথম বাইয়াত মুবারক অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ! বাইয়াত মুবারক গ্রহণকারী উনারা ছিলেন সংখ্যায় ৬ জন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫২তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১২তম বছর):

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫ই রবী‘উছ ছানী শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি সম্মানিত হাবশায় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর সম্মানিত হজ্জ উনার মওসুমে আকাবার দ্বিতীয় বাইয়াত মুবারক অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ! বাইয়াত মুবারক গ্রহণকারী উনারা ছিলেন সংখ্যায় ১২ জন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৬শে মুহররমুল হারাম শরীফ ইয়াওমুল খমীস শরীফ সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূর আল আউওয়াল আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৩তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৩তম বছর):

* এ বৎসর সম্মানিত হজ্জ উনার মওসুমে আকাবার তৃতীয় বাইয়াত মুবারক অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ! ৭৩ জন পুরুষ এবং ২ জন মহিলা উনারা বাইয়াত মুবারক হন; উনাদের মধ্য থেকে ১২ জনকে নক্বীব নিযুক্ত করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনাকে নিয়ে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১লা রবীউল আউওয়াল শরীফ লাইলাতুল খমীস শরীফ গভীর রাতে সম্মানিত হিজরত মুবারক উনার উদ্দেশ্যে সম্মানিত ও পবিত্র মক্কা শরীফ হতে বের হয়ে ফজরের পূর্বে সম্মানিত সাওর গুহা মুবারক-এ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক রাখেন। সম্মানিত সাওর গুহা মুবারক-এ ৪ দিন ৩ রাত্রি মুবারক সম্মানিত অবস্থান মুবারক করার পর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫ই রবী‘উল আউওয়াল শরীফ লাইলাতুল ইছনাইনিল ‘আযীম শরীফ অন্ধকার হওয়ার সাথে সাথে সেখান থেকে সম্মানিত ও পবিত্র মদীনা শরীফ উনার উদ্দেশ্যে বের হন। তারপর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৮ই রবী‘উল আউওয়াল শরীফ ইয়াওমুল খমীস শরীফ বিকালের দিকে সম্মানিত কুবা নামক স্থানে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক রাখেন। অতঃপর তিনি সেখানে একখানা সম্মানিত ও পবিত্র মসজিদ মুবারক নির্মাণ করেন। যা সম্মানিত ও পবিত্র মসজিদে কুবা শরীফ হিসেবে পরিচিত। সুবহানাল্লাহ! সম্মানিত ও পবিত্র মসজিদ নির্মাণ করার পর সেখানে সম্মানিত জুমু‘য়াহ উনার সম্মানিত ছলাত মুবারক আদায় করেন। এটাই হচ্ছেন সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার ইতিহাসে সর্বপ্রথম সম্মানিত জুমু‘য়া শরীফ উনার সম্মানিত নামায মুবারক। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত কুবা শরীফ ৩ দিন ৪ রাত্রি মুবারক-এর অধিক সময় সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই রবী‘ঊল আউওয়াল শরীফ ইয়াওমুল ইছনাইনিল আযীম শরীফ সেখান থেকে রওয়ানা হয়ে উক্ত তারীখেই সম্মানিত ও পবিত্র মদীনা শরীফ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক রাখেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৪তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৪তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ১ম বছর):

এ বৎসর ২১শে শাওওয়াল শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ্ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ্ আলাইহাস সালাম উনাকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হুজরা শরীফ-এ তুলে নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৫তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৫তম বছর, মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হিজরত মুবারক উনার ২য় ও ৩য় বছর):

* ২য় হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৫ই রজবুল হারাম শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ মহাসম্মানিত ক্বিবলা মুবারক পরিবর্তন হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর সম্মনিত জিহাদ মুবারক ফরয করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত শা’বান মাসের মধ্যবর্তী সময়ে সম্মানিত রমাদ্বান শরীফ উনার সম্মানিত রোযা ফরয করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* ১৭ই রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুল জুমুয়াহ্ শরীফ সম্মানিত বদর জিহাদ মুবারক সংঘটিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৮ই রমাদ্বান শরীফ লাইলাতুস সাব্ত শরীফ রাতের শেষার্ধে সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছানিয়াহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর ঈদ উনার নামায এবং সম্মানিত ছদকাতুল ফিতর ওয়াজিব করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত শাওয়াল শরীফ মাসে ইহুদী গোত্র বনূ কাইনুকার সঙ্গে সম্মানিত জিহাদ মুবারক হয়। তারা পরাজিত হয়ে সিরিয়ার দিকে নির্বাসিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৮ই শাওওয়াল শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ সিবতু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম সাইয়্যিদুনা হযরত ইমাম ইবনে যুন নূর আছ ছানী আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করা অবস্থায় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২রা যিলহজ্জ শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ আন নূরুর রবি‘য়াহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত যাহ্রা আলাইহাস সালাম উনার সাথে সাইয়্যিদুনা হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* ৩য় হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩রা সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ লাইলাতুল জুমু‘আহ্ শরীফ সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছাহ্ আলাইহাস সালাম উনার সাথে সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ মাসে ইহুদী সর্দার কা’ব ইবনে আশরাফকে হত্যা করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৬তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৬তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৩য় বছর):

* ৩য় হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৪ঠা শা‘বান শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আর রবি‘য়াহ আলাইহাস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* ১৫ই রমাদ্বান শরীফ ইয়াওমুল আরবিয়া’ শরীফ বা’দ আছর সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছানী মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত শাওয়াল শরীফ মাসে উহুদের সম্মানিত জিহাদ মুবারক সংঘটিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৬শে যিলহজ্জ শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল খ¦মিসাহ্ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৭তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৭তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৪র্থ বছর):

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৭শে সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুস সাব্ত শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল খ¦মিসাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫ই শা’বান শরীফ ইয়াওমুল জুমু‘আহ্ শরীফ বা’দ আছর সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুছ ছালিছ মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৪শে শাওওয়াল শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস সাদিসাহ্ আলাইহাস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৮তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৮তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৫ম ও ৬ষ্ঠ বছর):

* ৫ম হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৮ই যিলক্বদ শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আস সাবি‘য়াহ্ আলাইহাস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এই দিনেই সম্মানিত পর্দা ফরয করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর সম্মানিত যিলহজ্জ শরীফ মাসে বনূ মুস্তালিক্বের সম্মানিত জিহাদ মুবারক অনুষ্ঠিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত জিহাদ মুবারক উনার পর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৮শে যিলহজ্জ শরীফ লাইলাতুল জুমু‘আহ্ শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছামিনাহ্ আলাইহাস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত জিহাদ মুবারক থেকে প্রত্যাবর্তনের সময় মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত শান মুবারক উনার খিলাফ মিথ্যা অপবাদ রটনা করে মুনাফিক্ব সর্দার উবাই ইবনে সুলূল লা’নাতুল্লাহি আলাইহি এবং তার সাঙ্গপাঙ্গরা। না‘ঊযুবিল্লাহ! যা ইফকের ঘটনা হিসেবে সকলের মাঝে মশহূর। তখন স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক তিনি নিজে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন আছ ছালিছাহ সাইয়্যিদাতুনা হযরত ছিদ্দীক্বাহ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত পবিত্রতা মুবারক বর্ণনা করে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে একাধারে প্রথমত ১০খানা এবং পরবর্তীতে আরো ৬খানা সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ নাযিল করেন। সুবহানাল্লাহ!

* ৬ষ্ঠ হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ছফর শরীফ মাসে প্রায় এক মাস খন্দক্ব খনন করা হয়।

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫৯তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ১৯তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৬ষ্ঠ ও ৭ম বছর):

* তারপর সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র রবী‘উল আউওয়াল শরীফ) মাসে মূল সম্মানিত জিহাদ মুবরাক হয়। অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত দো‘য়া মুবারক উনার কারণে কাফির-মুশরিকদের উপর গযবস্বরূপ কঠিন ঝড়-তুফান এসে তাদের সমস্ত কিছু লন্ডভন্ড করে দেয়। ফলে তারা পালিয়ে যায়।

* অতঃপর সেখান থেকে সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নেয়ার পর সম্মানিত রবীউছ ছানী শরীফ মাসে বনূ কুরাইজার সম্মানিত জিহাদ মুবারক সংঘটিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* বনূ কুরাইজার সম্মানিত জিহাদ মুবারক উনার পর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৩শে রবীউছ ছানী শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নুরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আত তাসি‘য়াহ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর সম্মানিত তায়াম্মুম এবং ছালাতুল খওফ উনাদের হুকুম-আহকাম মুবারক নাযিল করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* ৬ষ্ঠ হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত যিলক্বদ শরীফ মাসে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ১৪ শত হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনাদেরকে সঙ্গে নিয়ে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ-এ সম্মানিত ‘উমরা পালন করার জন্য রওয়ানা মুবারক হন। সুবহানাল্লাহ!

* সাইয়্যিদুনা হযরত যূন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনাকে দূত হিসেবে প্রেরণ করা হলে মুশরিকরা উনাকে শহীদ করেছে বলে মিথ্যা সংবাদ প্রচার করে। যার কারণে উনার বদলা নেয়ার জন্য ‘বাইয়াতুর রিদওয়ান’ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* পরে মুশরিকরা ভয় পেয়ে সাইয়্যিদুনা হযরত যূন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনাকে ফেরত দিতে বাধ্য হয়। তারপর তারা সন্ধির প্রস্তাব দেয়। তখন হুদায়বিয়ার সন্ধি স্থাপিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* হুদায়বিয়ার সন্ধির পরে হযরত খালিদ বিন ওয়ালিদ রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি এবং হযরত আমর বিন আস রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহু তিনি অর্থাৎ উনারা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র দ্বীন ইসলাম গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর যিলহজ্জ শরীফ মাসে বাদশাহদের নিকট ইসলামের দাওয়াত মুবারক নিয়ে দূত এবং পত্র প্রেরণ করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* ৭ম হিজরী শরীফ উনার মুহররমুল হারাম শরীফ মাসে খায়বরের সম্মানিত জিহাদ মুবারক সংঘটিত হয়।

* সম্মানিত জিহাদ মুবারক শেষে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৫শে মুহররমুল হারাম শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল ‘আশিরহ্ আলাইহাস সালাম উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩রা ছফর শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আল হাদিয়াহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২৪শে ছফর শরীফ লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সাথে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছানিয়াহ্ ‘আশার আলাইহাস সালাম উনার ‘আযীমুশ শান মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নিসবতে ‘আযীম শরীফ অনুষ্ঠিত হন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৬০তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ২০তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৭ম ও ৮ম বছর):

* ৭ম হিজরী শরীফ সম্মানিত শাওওয়াল শরীফ মাসে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত ‘উমরাতুল কাযা আদায় করার জন্য মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* আর ৭ম হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১৬ই যিলক্বদ শরীফ সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সম্মানিত ইহ্রাম মুবারক অবস্থায় লাইলাতু সাইয়্যিদি সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আছ ছালিছাহ ‘আশার আলাইহাস সালাম উনাকে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ‘আযীমুশ শান নিসবতে ‘আযীম শরীফ-এ গ্রহণ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* ৮ম হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৮ই মুহাররমুল হারাম শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ ইশরাক্বের ওয়াক্তে আন নূরুল ঊলা সাইয়্যিদাতুনা হযরত খইরু ওয়া আফযালু বানাতি রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৬১তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ২১তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৮ম ও ৯ম বছর):

* এ বৎসর সম্মানিত জুমাদাল ঊলা শরীফ মাসে মুতার সম্মানিত জিহাদ মুবারক সংঘটিত হয়। সুহানাল্লাহ!

* ১৭ই রমাদ্বান শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ বিজয় হন। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত শাওওয়াল শরীফ মাসে হুনায়েনের সম্মানিত জিহাদ মুবারক সংঘটিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ২রা যিলহজ্জ শরীফ লাইলাতুল জুমু‘আহ্ শরীফ সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুর রবি’ আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত যাকাত ফরয করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* ৮ম হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ মাসে তাহ্রীমের ঘটনা সংঘটিত হন। অর্থাৎ সম্মানিত ও পবিত্র সূরা তাহ্রীম শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ নাযিল করে মহান আল্লাহ পাক তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মহাসম্মানিত বেমেছাল শান মুবারক সুস্পষ্ট করে দেন। সুবহানাল্লাহ!

* ৮ম হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ উনার ৩০ তারীখ ইয়াওমুল জুমু‘আহ্ শরীফ জুমু‘আর নামায উনার পর থেকে ৯ম হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র মুর্হরামুল হারাম শরীফ উনার ২৯ তারীখ পর্যন্ত এক মাস মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ওহী মুবারক উনার কারণে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি একাকী সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। যাকে ঈলা বলা হয়ে থাকে। তবে পরবর্তীতে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র কুরআন শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ দ্বারা মহান আল্লাহ পাক তিনি ঈলার জন্য ৪ মাস নির্ধারণ করে দিয়েছেন। সুবহানাল্লাহ!

* ৮ম হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র যিলহজ্জ শরীফ উনার ৩০ তারীখ ইয়াওমুল জুমু‘আহ্ শরীফ জুমু‘আর নামায উনার পর থেকে ৯ম হিজরী শরীফ উনার সম্মানিত ও পবিত্র মুর্হরামুল হারাম শরীফ উনার ২৯ তারীখ পর্যন্ত এক মাস মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ওহী মুবারক উনার কারণে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি একাকী সম্মানিত অবস্থান মুবারক করেন। এক মাস অতিবাহিত হওয়ার পর ১লা ছফর শরীফে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের নিকট সম্মানিত তাশরীফ মুবারক নেন। তারপর তাখীরের সম্মানিত ও পবিত্র আয়াত শরীফ নাযিল করে স্বয়ং মহান আল্লাহ পাক তিনি নিজেই মুনাফিক্বদের চূ-চেরা, ক্বিলও ক্বালের জবাব দিয়ে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হরযত উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম উনাদের মহাসম্মানিত বেমেছাল শান মুবারক উনার বহিঃপ্রকাশ মুবারক ঘটান। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৬২তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ২২তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ৯ম ও ১০ম বছর):

* ৯ম হিজরী শরীফ-এ সুদ হারাম করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* সম্মানিত হজ্জ ফরয করা হয় এবং সম্মানিত হজ্জ উনার হুকুম-আহকাম নাযিল করা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর তাবুকের সম্মানিত জিহাদ মুবারক সংঘটিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* তাবুকের সম্মানিত জিহাদ মুবারক থেকে ফেরার পথে মুনাফিকদের নির্মিত মসজিদে দ্বিরার ভেঙ্গে ফেলা হয়। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৬ই রমাদ্বান শরীফ সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ বা’দ ফজর সাইয়্যিদাতুনা হযরত আন নূরুছ ছালিছাহ্ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* এ বৎসর সম্মানিত যিলক্বদ শরীফ মাসে সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি ‘আমীরুল হজ্জ হিসেবে ৩০০ জন হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনাদেরকে নিয়ে সম্মানিত হজ্জ উনার উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন। সুবহানাল্লাহ!

* ১০ম হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১০ই সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছা’ শরীফ সাইয়্যিদুনা হযরত আন নূরুর রবি’ আলাইহিস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৬৩তম বৎসর মুবারক (আনুষ্ঠানিকভাবে মহাসম্মানিত নুবুওওয়াত এবং রিসালাত মুবারক প্রকাশের ২৩তম বছর, মহাসম্মানিত হিজরত মুবারক উনার ১০ম ও ১১তম বছর):

* নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ১০ম হিজরী শরীফ-এ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বিদায় হজ্জ মুবারক আদায় করেন। সুবহানাল্লাহ! মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বিদায় হজ্জ মুবারক আদায়ে ২৫শে যিলক্বদ শরীফ থেকে ২৫শে যিলহজ্জ শরীফ পর্যন্ত মোট ১ মাস সময় অতিবাহিত হয়। সুবহানাল্লাহ! অর্থাৎ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ থেকে ২৫শে যিলক্বদ শরীফ রওয়ানা মুবারক হয়ে ৫ই যিলহজ্জ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ উনার মধ্যে পৌঁছা পর্যন্ত ১০ দিন, আর মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হজ্জ মুবারক সম্পন্ন মুবারক করতে ৫ই যিলহজ্জ শরীফ থেকে ১৫ই যিলহজ্জ শরীফ এই ১০ দিন এবং মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মক্কা শরীফ থেকে ১৫ই যিলহজ্জ শরীফ রওয়ানা মুবারক হয়ে ২৫শে যিলহজ্জ শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মদীনা শরীফ পৌঁছা পর্যন্ত ১০ দিন মোট ১ মাস অতিবাহিত হয়। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১১ হিজরী শরীফ উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৫ই মুহাররমুল হারাম শরীফ ইয়াওমুল খমীস শরীফ মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র উম্মুল মু’মিনীন সাইয়্যিদাতুনা হযরত আত তাসি‘য়াহ আলাইহাস সালাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দীদার মুবারক-এ তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ!

* মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১১ হিজরী শরীফ উনার মুহাররমুল হারাম শরীফ উনার তৃতীয় সপ্তাহে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র নূরুল হুদা মুবারক (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র মাথা মুবারক) উনার মধ্যে মারীদ্বী শান মুবারক জাহির করেন। এর ৮/১০ দিন পর তিনি আবার মহাসম্মানিত ছিহ্হাতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! অতঃপর সম্মানিত ছফর শরীফ মাস উনার তৃতীয় সপ্তাহে আবার মারীদ্বী শান মুবারক জাহির করেন। অতঃপর এই সম্মানিত ছফর শরীফ মাস উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ৩০ তারীখ ইয়াওমুল আরবিয়া’ শরীফ সকালে তিনি মহাসম্মানিত ছিহ্হাতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! তিনি মহাসম্মানিত ছিহ্হাতী শান মুবারক প্রকাশ করার কারণে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা এবং হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তা‘য়ালা আনহুম উনারা অত্যন্ত খুশি মুবারক প্রকাশ করেন এবং উনারা প্রত্যেকেই নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ অনেক হাদিয়া-তোহ্ফা মুবারক পেশ করেন। সুবহানাল্লাহ! যা মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র আখিরী চাহার শোম্বা শরীফ হিসেবে অদ্যবধি পালিত হয়ে আসছেন এবং এ হিসেবেই তা মশহূর। সুবহানাল্লাহ! এই দিনই বিকালে তিনি আবার মারীদ্বী শান মুবারক জাহির করেন। পর্যায়ক্রমে মারীদ্বী শান মুবারক বেশি আকারে প্রকাশ পান।

* অতঃপর নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১১ হিজরী শরীফ উনার সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিশ শুহূরিল আ’যম শরীফ উনার সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আ’দাদ শরীফ (মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র ১২ই রবী‘উল আউওয়াল শরীফ) সাইয়্যিদু সাইয়্যিদিল আইয়্যাম শরীফ (ইয়াওমুল ইছনাইনিল ‘আযীম শরীফ) চাশতের ওয়াক্ত শেষ হয়ে যুহরের ওয়াক্ত শুরু হওয়ার পূর্বে সকাল ১১:৩০-১২:০০ টার মধ্যে মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বরকতময় বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ পবিত্র দিদার মুবারকে তাশরীফ মুবারক নেন। সুবহানাল্লাহ! দুনিয়াবী দৃষ্টিতে তখন উনার মহাসম্মানিত ও মহাপবিত্র বয়স মুবারক ছিলেন পূর্ণ ৬৩ বছর মুবারক। সুবহানাল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে