এটাই কি ছিল সরকারের ওয়াদা যার ফলশ্রুতিতে সে এখন সম্মানিত শরীয়ত উনার প্রতিটি বিষয় এমনকি সম্মানিত কুরবানী উনার ক্ষেত্রেও পবিত্র কুরআন শরীফ, সুন্নাহ শরীফ বিরোধী আইন জারী করছে?


যে ব্যক্তি নফসের অনুসরণ করত পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী আইন প্রনয়ন করবে অর্থাৎ সম্মানিত শরীয়ত উনার সীমা লঙ্ঘণ করে পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বহির্ভুত নতুন আইন জারী করবে পরকালে মহান আল্লাহ পাক তিনি তাকে কঠিনভাবে পাকড়াও করবেন। আর পবিত্র কুরআন শরীফ পবিত্র সুন্নাহ শরীফ বিরোধী আইন পাস হবে না” এ অঙ্গিকারাবদ্ধ সরকার কি করে ৯৮ ভাগ মুসলিম অধ্যুষিত দেশের মুসলমানদের উপর নতুন নিয়মে মেশিনের মাধ্যমে যবেহ করে পবিত্র কুরবানী করতে বাধ্য করে অর্থাৎ কুফরী পন্থাকে চাপিয়ে দিতে পারে? একজন আম মুসলমান যার কিনা সরিষা পরিমানও ঈমান আছে সেও কখনো এটা বরদাস্ত করতে পারে না। যদি সরকার এ পন্থাকে চালু করতেই চায় তবে তাকে আগে দেখাতে হবে যে পবিত্র কুরআন শরীফ, পবিত্র সুন্নাহ শরীফ উনাদের কোথায় এ পন্থায় কুরবানী করাকে জায়িয সাব্যস্ত করা হয়েছে। অন্যথায় আমরা ৯৮ ভাগ মুসলমান কখনোই এটা মেনে নিবো না। সম্মানিত ইসলামী শরীয়ত উনাকে ঠিক রেখে অর্থাৎ জায়িয তর্জ-তরীকা মুতাবিক আমাদের পবিত্র কুরবানী আমরা করবো, সেখানে সরকারের তো কোন কথা থাকতে পারে না।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে