এমন আখিরী যামানা মসজিদে বসেও রেহাই নাই


মসজিদ আল্লাহ পাক-এর ঘর। মসজিদে মুসলমানগণ ইতমিনানের সাথে ইবাদত-বন্দেগী করে থাকে। মসজিদে সে নিজেকে নিরাপদ ভাবে। কিন্তু বর্তমানে আমাদের সমাজের এমন কঠিন অবস্থা যে মুসলমানরা মসজিদেও একটু শান্তিতে ইবাদত বন্দেগী করতে পারে না। মসজিদের আশপাশ থেকে ভেসে আসে হারাম গানের সুর, যা তার ইবাদত বন্দেগীকে মারাত্মক ভাবে ব্যাহত করে।
অথচ মসজিদের আশপাশে যে সব বাসা-বাড়ি বা দোকান পাট থেকে এসব গানের সুর ভেসে আসে সেই সব বাসা-বাড়ি ও দোকান পাটের মালিক বা বসবাসকারীদের যেন বিবেক মরে গেছে; তাদের মধ্যে একটুও চিন্তা আসে না যে পাশে মসজিদ আছে, মুসলমানগণ সেখানে ইবাদত-বন্দেগী করছেন। তারা গানতো ছাড়েই এমনকি আওয়াজ এতো জোরে দেয় যে কান ফেটে যাবার উপক্রম হয়।
তবে শুধু মসজিদ নয়; আশপাশে যে সব বাসা-বাড়ি রয়েছে সে সব বাড়িতেও তো ইবাদত গুজার লোক থাকাটা স্বাভাবিক; সেক্ষেত্রে তো তাদেরও ইবাদত-বন্দেগীতে ব্যাঘাত ঘটে। কিন্তু হারাম গান বাজনায় মশগুল ব্যক্তিদের সে ব্যাপারে কোন মাথা ব্যথাই নেই।
অত্যন্ত আফসুসের বিষয়! ৯৭% মুসলমানের এদেশে মুসলমানরা আজ একটু নিশ্চিন্তে ইতমিনানের সহিত ইবাদত-বন্দেগী করতে পারে না।
আর আমাদের দেশের প্রশাসন যাদের দায়িত্ব এসব বিষয় পর্যবেক্ষণ করা তাদের কথা কি বলব! দীর্ঘশ্বাস ছাড়া আর কোন ভাষা খুঁজে পাওয়াটা আমার জন্য অনেক কষ্টের কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে।
আল্লাহ পাক সকলকে সঠিক সমঝ দান করুন। (আমীন)

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. ১.৯২.৫ ১.৯২.৫ says:

    এখনতো মসজিদেই গান বেজে উঠে। অনেক সময় তথাকথিত ইমামদের মোবাইলে গান-বাজনা রিংটোন হিসেবে শুনা যায়। যারা মানুষকে হিদায়েতের বাণী শুনাবে তাদেরই এই অবস্থা আর আম জনতার কথা তো বাদই দিলাম।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে