ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনারা সমগ্র দুনিয়ার নারী জাতির হিদায়েত ও নছীহতের নিরূপমা দিশারী


ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসল, ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম, নকীবাতুল উমাম, সাইয়্যিদাতুনা হযরত শাহযাদী উলা ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম তিনি এবং নকশায়ে হায়দার, বাহরুল উলূম, কুতুবুল আলম, ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, শাফিউল উমাম, সাইয়্যিদুনা হযরত শাহদামাদ আউওয়াল হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনারা ২৯ শা’বান শরীফ হাদিয়া দান করেন উনাদের লখতে জিগার, লখতে জিগারে মুজাদ্দিদে আ’যম, জান্নাতী যিন নূরাইন, নক্বীবাতুন নিসা, আকরামে রহমানী, ত্বহিরাহ, ত্বইয়্যিবাহ, আওলাদে রসূল, ওলীয়ে মাদারজাদ, ক্বায়িম-মাক্বামে হযরত যয়নাব আলাইহাস সালাম, সাইয়্যিদাতাল উমাম, হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদেরকে। সুবহানাল্লাহ!
মুবারক ধমনীতে সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম, ক্বায়িম-মাক্বামে, উম্মাহাতুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম, উম্মুল উমাম, ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম এবং আওলাদে রসূল, ওলীয়ে মাদারজাদ, বুযূর্গ পিতা-মাতা আলাইহিমাস সালাম উনাদের রক্ত মুবারক উনার প্রবাহমানতা, মন ও মননে ইলমে তাছাউফ ও ওলীত্ব উনাদের মুবারক নির্যাস, মুবারক অনুভবে মুহব্বত ও মা’রিফাত উনাদের অতলান্ত সম্ভার সমৃদ্ধতায় সাইয়্যিদাতাল উমাম, ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনারা বিশ্ববাসীর, বিশেষত গোটা দুনিয়ার নারী জাতির হাক্বীক্বী হিদায়েত ও নছীহতের নিরূপমা দিশারী হিসেবে দুনিয়ায় মুবারক তাশরীফ আনেন। সুবহানাল্লাহ!
পঞ্চদশ হিজরী শতকের মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে মাদারজাদ, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিমাস সালাম তিনি বাতিল ধ্বংসকারী। তিনি বিধর্মীদের নিপাতকারী। তিনি মুসলমান উনাদের পবিত্র ঈমান, আক্বীদা ও আমল বিশুদ্ধকারী। তিনি ইহসানকারী ও ইছলাহকারী। তিনি নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার রেখে যাওয়া পবিত্র দ্বীন-ইসলাম উনাকে নিখুঁতভাবে যমীনে নবায়ন ও বাস্তবায়নকারী। উনাকে আনুষ্ঠানিকভাবে যমীনে পাঠানোর মুবারক আয়োজন বিশেষভাবে শুরু হয়েছে রহমতুল্লিল আলামীন, রউফুর রহীম, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক সময় থেকে। ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদের মুবারক বিলাদত শরীফ সে বিশেষ আয়োজনেরই ক্রমবর্ধিষ্ণু প্রবাহমানতা। বিশ্ববাসীর হিদায়েত ও নছীহতের জন্য উনাদের মুবারক আগমন হলো সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার মুবারক বংশ বিস্তারেরই ক্রমধারা। সুবহানাল্লাহ!
ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল হযরত সাইয়্যিদাতাল উমাম ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনারা আখাছছুল খাছ আওলাদে রসূল। একই কারণে উনারা হাক্বীক্বীভাবে নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার পুতঃপবিত্র ও মহাসম্মানিত আহলি বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্তর্ভুক্ত। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “হে লোক সকল! আমি তোমাদর মাঝে এমন দু’টি মহান নিয়ামত মুবারক রেখে যাচ্ছি, তোমরা যদি তা শক্তভাবে ধরে রাখো, তবে কখনো তোমরা গুমরাহ হবে না। তাহলো: (১) মহান আল্লাহ পাক উনার পবিত্র কিতাব (২) আমার সম্মানিত ইতরত, অর্থাৎ আহলি বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম ও আওলাদ আলাইহিমুস সালাম উনারা।” ওলীয়ে মাজারদাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম, হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনারা হাক্বীক্বীভাবে উপরোক্ত পবিত্র হাদীছ শরীফ মুবারক উনার মিছদাক্ব। সুবহানাল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন: “হে আহলি বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম! আপনাদেরকে পবিত্র থেকে পবিত্রতম করাই মহান আল্লাহ পাক উনার অভিপ্রায়।” অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক তিনি উনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করেই সৃষ্টি করেছেন এবং যমীনে পাঠিয়েছেন। সুবহানাল্লাহ! লখতে জিগারে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহনাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনারা হাক্বীক্বীভাবে এই পবিত্র আয়াত শরীফ মুবারক উনার মিছদাক্ব।
আমরা লক্ষ্য করেছি, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম উনার বুযুর্গ পূর্বপুরষ উনাদের বিলাদত শরীফ, বিছাল শরীফ, উনাদের বিশেষ বিশেষ ঘটনা, সাইয়্যিদুনা মামদূহ মুর্শিদ ক্বিবলা ক্বা’বা আলাইহিস সালাম, উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম এবং উনাদের সম্মানিত আহাল ও ইয়াল শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুবারক বিলাদত শরীফসহ যাবতীয় বিষয়কর্ম পবিত্র সুন্নত উনার সঙ্গে পরিপূর্ণরূপে সঙ্গতিপূর্ণ। সুবহানাল্লাহ! ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদের তা’যীন ও তাহনীক্ব করেন যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, পঞ্চদশ হিজরী শতকের মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে মাদারজাদ, সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম। তিনিই উনাদের মুবারক আক্বীকা করেন এবং নাম মুবারক রাখেন। সুবহানাল্লাহ!
সাইয়্যিদে মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা কা’বা আলাইহিস সালাম এবং উম্মুল উমাম সাইয়্যিদাতুনা হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা কা’বা আলাইহাস সালাম উনারা উনাদের সম্মানিত আওলাদ আলাইহিমুস সালাম, বিশেষ করে সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদেরকে হাদিয়া দান করে কুল-কায়িনাতকে আলোকিত করেছেন, আলোড়িত করেছেন, ধন্য করেছেন, হিদায়েত ও নছীহতের দুরূহ পথ সুগম করেছেন। সুবহানাল্লাহ! বিশ্ববাসীর কল্যাণে উনারা আরো কাকে কাকে এবং আরো কী কী বিষয় হাদিয়া দান করবেন, তা আমরা জানি না, কেউই জানে না। আমরা শুধু জানি এবং মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি যে, যাঁরাই আসবেন, উনারা সকলেই হবেন গোটা বিশ্বের ত্রাণকর্তা, হবেন হাক্বীক্বী হিদায়েত ও নছীহতের নিরূপমা দিশারী, হবেন বিশ্ব জগতের সুমহান অভিভাবক। কারণ কুফরীর জগদ্দল পাথর ভাঙতে হবেন। বিদয়াত-বেশরা মিসমার করতে হবে। বাতিল ধ্বংস করতে হবে। বিশ্বময় খিলাফত পরিচালনা করতে হবে। সুবহানাল্লাহ!
সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম এবং মহাসম্মানিত আহলি বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের মুবারক অবস্থা ও মাক্বাম আমাদের সমঝ ও উপলব্ধির সীমাহীন উচ্চতায়। আমরা উনাদের ছানা-ছিফত করবো কী করে? সে যোগ্যতা আমাদের কোথায়? ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহনাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনারা মূলত নবী উদ্যানের সুরভিত গোলাব। উনাদের মুবারক অবয়বে মাদানী নূর। সুবহানাল্লাহ!
প্রাণের আক্বা, ক্বিবলা কা’বা, মুজাদ্দিদে আ’যম সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম এবং উনার মহাসম্মানিত আহলি বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম খাছ করে ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, হিদায়েত ও নছীহতের নিরূপমা দিশারী, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদের ছানা-ছিফত করা, অনুক্ষণ ছানা-ছিফতে নিয়োজিত থাকা সকলেরই পবিত্র ঈমানী দায়িত্ব। আর উনাদের আনুগত্য করা, গোলামী করা, উনাদের তা’যীম-তাকরীম করা, উনাদের ছানা-ছিফত করা এবং বিশুদ্ধ আক্বীদায় উনাদেরকে হাক্বীক্বী মুহব্বত করা আমাদের জন্য কবুলযোগ্য ইবাদত হিসেবে গণ্য। সুবহানাল্লাহ!
মুবারক ২৯ শা’বান শরীফ ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদের পবিত্র বিলাদত শরীফ উনার সুমহান দিন। মুবারক দিনটি কায়িনাতবাসীর বরকত, সাকীনা, মাগফিরাত ও নাযাত লাভের জন্য পরমতম উসীলার দিন। দিনটি অনাবিল আনন্দ ও ইতমিনান লাভ অর্থাৎ ঈদ তথা শ্রেষ্ঠতম খুশীর দিন।
বিষয়গুলো হাক্বীক্বীভাবে উপলব্ধি করে ওলীয়ে মাদারজাদ, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদাতাল উমাম হযরত শাহ নাওয়াসী ক্বিবলাতাইন আলাইহিমাস সালাম উনাদেরকে মুহব্বত করার জন্য এবং উনাদের হাক্বীক্বী আনুগত্য ও গোলামী করার জন্য মহান আল্লাহ পাক সুবহানাহু ওয়া তায়ালা উনার কাছে আমরা তাওফীক্ব চাই। আমীন!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে