ওলী আল্লাহ তো আমরাও হতে পারি….


আপনি আমি তো সুদখোরও না,শরাবখোরও তো না! তবে আমরা কেনো চেষ্টা করি না ওলী আল্লাহ হতে???!!!
আমাদের তো ওলী আল্লাহ হতে কোনো বাধা নেই। আর মহান আল্লাহ পাক তো চানই যেন আমরা আল্লাহওয়ালা হই। সেজন্যই তো মহান আল্লাহ পাক ইরশাদ মুবারক করেছেন- “কুনু রব্বানিয়্যিন” অর্থাৎ তোমরা সকলেই আল্লাহওয়ালা/ আল্লাহওয়ালী হয়ে যাও। অর্থাৎ এটা মহান আল্লাহ পাক উনার নির্দেশ মুবারক।
হযরত হাবীব আযমী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনি প্রথম জীবনে সুদখোর ছিলেন। ঘটনা বড়,একেবারেই সংক্ষেপেই বলি। উনি যখন তওবা করে হযরত হাসান বসরী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কাছে বায়াত হয়ে সুদ খাওয়া ছেড়ে দিয়ে যিকির ফিকিরে মশগুল হলেন তখন কিন্তু মহান আল্লাহ পাক উনাকে গ্রহণ করে নিলেন। উনার সারাজীবনের রিযিকের জিম্মাদার মহান আল্লাহ পাক উনিই হয়ে গেলেন। উনার সারাজীবনেই কুদরতী রিযিকের ব্যবস্থা হতো,মহান আল্লাহ পাক ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম উনাদের মাধ্যমে উনার রিযিক প্রেরণ করতেন। সুবহানাল্লাহ!
কেননা উনি মহান আল্লাহ পাক উনার উপর পূর্ণ ভরসা তথা তাওয়াক্কুল করতে পেরেছিলেন। সুবহানাল্লাহ!!!
উনি কিন্তু সাহাবীও ছিলেন না। একজন সাধারণ উম্মত ছিলেন,তার উপর সুদ খেতেন,সুদে ঋণ দিতেন। এতোকিছুর পরও যদি মহান আল্লাহ পাক উনাকে কবুল করেন,তওবা করে ফিরে আসার কারণে। তবে আমরা কেনো করি না? আমাদের তো সুযোগ চলে যায় নি।
হযরত হাবীব আযমী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনি বড় ওলী আল্লাহ হতে পেরেছিলেন,চেষ্ট
া করলে আমরাও পারবো।ইনশা আল্লাহ।
মহান আল্লাহ পাক যেন আমাদের সকলকেই বেশি বেশি করে তওবা করে, হাক্বীক্বীভাবে তাওয়াক্কুল করে,কুনু রব্বানিয়্যিন এ আয়াত শরীফ উনার মিছদাখ হওয়ার তৌফিক মুবারক দান করেন। আমীন।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+