কট্টর ওহাবীপন্থী হেফাজতীদের যাকাত দিলে যাকাত আদায় হবে না


উলামায়ে ‘সূ’ বা ধর্মব্যবসায়ী মাওলানা দ্বারা পরিচালিত মাদরাসা অর্থাৎ যারা সন্ত্রাসবাদ, মৌলবাদ ও অন্যান্য কুফরী মতবাদের সাথে সম্পৃক্ত সেই সমস্ত মাদরাসাতে যাকাত প্রদান করলে যাকাত আদায় হবে না। আর যারা ইসলামের নামে হরতাল, লংমার্চ করে, আউলিয়ায়ে কিরাম রহমতুল্লাহি আলাইহিম উনাদের মাযার শরীফ ভাংচুর করে, পবিত্র কুরআন শরীফ জ্বালিয়ে দেয় নিজেদের স্বার্থ হাছিলের জন্যে তাদের ক্ষেত্রে কি ফায়ছালা? তাদের মাদরাসাগুলোতে কি যাকাত দেয়া যাবে? কস্মিনকালেও না। তাদেরকে যাকাত দিলে তা কবুল তো হবেই না, বরং তাদের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ডে সহযোগিতা করা হবে এবং এ জন্য পবিত্র কুরআন শরীফ পোড়ানোর মতো ভয়াবহ গুনাহরও ভাগীদার হতে হবে। নাউযুবিল্লাহ।
এরা বাহ্যিক ছূরতে দাড়ি-টুপি, পাঞ্জাবী তথা হুযূর লেবাসধারী হলেও, তাদের ঈমান না থাকায় তাদের মুসলমান বলা যাবে না; হাক্বীক্বতে তারা কাফির। কেননা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “যে মানুষকে কষ্ট দেয় সে মুসলমান নয়।” তাহলে এই বাতিল ফিরক্বা ওহাবীপন্থী হেফাজতীরা যেভাবে মানুষের জান-মালের ক্ষতি করছে, তাদের বাড়ি-গাড়ি, ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে লুটপাট, ভাংচুর, অগ্নিসংযোগ করছে, নিরপরাধ মানুষের উপর ঝাঁপিয়ে পড়ছে তারা কি মুসলমান? তাদেরকে যাকাত, দান-ছদকা, কুরবানীর চামড়া ইত্যাদি দিলে সেটা কি কবুল হবে? যাকাত প্রদানকারীদের এ ব্যাপারে সতর্ক থাকতে হবে যেন তাদের যাকাত, দান-ছদকা বিফলে না যায়।

সূত্র

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে