কথিত ছোঁয়াচে রোগ এবং চিকিৎসা বিজ্ঞানের অজ্ঞতা ও কিছু প্রশ্ন-১


কথিত ছোঁয়াচে রোগ এবং চিকিৎসা বিজ্ঞানের অজ্ঞতা ও কিছু প্রশ্ন-১

যিনি খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি উনার পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “কাফির-মুশরিকরা হিংসাবশতঃ চায় কীভাবে মুসলমানের পবিত্র ঈমান আনার পর আবার কাফির বানানো যায়।”
কাফির-মুশরিকদের ষড়যন্ত্রের আরেকটি সূক্ষ্ম ষড়যন্ত্র হলো ছোঁয়াচে রোগ বলে কিছু আছে তা বিশ্বাস করানো। যেহেতু এর সাথে মুসলমানদের পবিত্র ঈমান আক্বীদার বিষয় আছে, সেহেতু তারা ছোঁয়াচে রোগকে হাতিয়ার হিসেবে বেছে নিয়েছে। কোনো মুসলমান যদি এটা বিশ্বাস করে, তাহলে তার পবিত্র ঈমান থাকবে না। কারণ পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার মধ্যে ছোঁয়াচে রোগ বিশ্বাস করা সম্পূর্ণ নিষেধ। যেকোনো রোগ মহান আল্লাহ পাক তিনি নাযিল করেন। আবার সুস্থতাও দান করেন। কারণ মহান আল্লাহ পাক তিনি রোগ দেন এবং তিনিই একমাত্র রোগ আরোগ্য দানকারী।
ছোঁয়াচে রোগ বলে কিছু আছে বলে বিশ্বাস করা পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার খিলাফ। কারণ পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, হযরত আবু হুরায়রা রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি বর্ণনা করেন, আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “সংক্রামক বা ছোঁয়াচে রোগ বলে কিছু নেই, পেঁচার মধ্যে কুলক্ষণ নেই। তারকার (উদয় বা অস্ত যাওয়ার) দ্বারা ভাগ্য নির্ধারণ ও বৃষ্টি হওয়া বা না হওয়া ভিত্তিহীন এবং পবিত্র ছফর শরীফ মাসে অশুভ বলতে কিছুই নেই।” (মুসলিম শরীফ, মিশকাত শরীফ, শরহুস সুন্নাহ)

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে