কথিত দেবোত্তর সম্পত্তি নয়, লাখেরাজ সম্পত্তি


লাখেরাজ সম্পত্তি বলা হয় নিষ্কর ভূমিকে। মুসলিম শাসকগণ কর্তৃক এ অঞ্চলের মুসলিম ছূফী-দরবেশ ও আলিম-উলামাগণকে প্রশাসনের তরফ থেকে লাখেরাজ সম্পত্তি দেয়া হতো। যাতে উনারা পেরেশানীমুক্ত হয়ে সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার পরচার-প্রসার কাজে ব্যাপৃত থাকতে পারেন। এই লাখেরাজ সম্পত্তি ব্যয় করা হতো মুসলমানদের শিক্ষার কাজে। মুক্তিযোদ্ধা ও সাংবাদিক এম.আর আখতার মুকুল রচিত ‘কলকাতা কেন্দ্রিক বুদ্ধিজীবী’ গ্রন্থে এ প্রসঙ্গে বর্ণিত হয়েছে- “সামগ্রিকভাবে বলতে গেলে এদেশে লাখেরাজ বা নিষ্কর জমির ব্যাপারে এক বিরাট পূর্ব ইতিহাস রয়েছে। বিশিষ্ট ইতিহাসবিদ ড. আজিজুর রহমান মল্লিক (চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিষ্ঠাতা উপাচার্য) চমৎকারভাবে এর বর্ণনা দিয়েছেন। তিনি লিখেছেন, বহুদিন থেকে ভারতবর্ষের মুসলিম শাসনকর্তাগণ সাধারণ মানুষের বিদ্যাশিক্ষার জন্য লাখেরাজ জমি মঞ্জুর করতেন। শাসনকর্তাগণ অসাধারণ ক্ষমতার অধিকারী থাকতেন। মুসলমান শাসনের দায়িত্বপূর্ণ অফিসারদেরকে তাদের চাকরির ভাতা ছাড়াও প্রত্যেকের জ্ঞানবুদ্ধি, সততা, অন্যান্য গুণের ভিত্তিতে জায়গীর, আলতামা, আইমা ও মদদ-ই-মাশ দেয়া হতো। জায়গীর এবং আলতামা সাধারণতঃ সিভিল এবং সামরিক অফিসারদেরকে দেয়া হতো, আর আইমা এবং মদদ-ই-মাশ দেয়া হতো আলিম-উলামাগণকে। শুধু মুসলমানদের জন্যই এসময় পনের প্রকার আয়কর মঞ্জুরী ছিলো, তিন প্রকার ছিল হিন্দুদের। (ব্রিটিশনীতি ও বাংলার মুসলমান, বাংলা একাডেমী) মুসলমানদের শিক্ষার কাজে ব্যবহৃত জমি-সম্পত্তির উপর ব্রিটিশ আর সাম্প্রদায়িক হিন্দুদের শকুনি দৃষ্টি পতিত হয়েছিল। এর ফলশ্রুতিতেই ওয়ারেন হেস্টিংস ১৭৯৩ সালে কথিত ‘চিরস্থায়ী বন্দোবস্ত’ চালু করে। এই চিরস্থায়ী বন্দোবস্তের অধীনে ছূফী-দরবেশ, আলিম-উলামা উনাদের নিকট থেকে এসব লাখেরাজ জমি কেড়ে নিয়ে তা ব্রিটিশদের অনুগত সাম্প্রদায়িক হিন্দুদেরকে দেয়া হয়। যাদেরকে তারা বলতো জমিদার! অর্থাৎ আজ সাম্প্রদায়িক হিন্দুরা যেসব ভূমি নিজেদের দাবি করছে, তা মূলত মুসলমানদের সম্পত্তি; যেগুলো ব্রিটিশরা মুসলমানদের কাছ থেকে জোরপুর্বক কেড়ে নিয়ে ব্রিটিশ পদলেহী হিন্দুদের দিয়েছিল। দেবোত্তর কিংবা হিন্দু সম্পত্তি বলে কোনো সম্পত্তি হিন্দুদের কোনোকালেই ছিল না, এখনো নেই। যেসব সম্পত্তি দেবোত্তর কিংবা হিন্দুদের নামে বরাদ্দ করা তা মুসলমানদেরকে ফিরিয়ে দিতে হবে।
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে