কথিত নূরে মুহাম্মাদী নামের জাল হাদিসের ভয়ংকর ইতিহাস পড়ুন ওহাবী সালাফীদের এই পোষ্টের খন্ডনমুলক জবাব:-(১২)


ওহাবী সালাফীদের লিংক:- http://markajomar.com/?p=880

এখন বলার বিষয় হলো যদি ওহাবী সালাফীদের দাবী অনুযায়ি, হযরত জাবির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত হাদিস শরীফখানা সর্বপ্রথম প্রসিদ্ব আলিম মহিউদ্দীন ইবনু আরাবী আবূ বকর মুহাম্মাদ ইবনু আলী তায়ী হাতিমী উনার ফতুহাতে মাক্কিয়া কিতাবে লিপিবদ্ব হত তবে হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি কখনও এই হাদিস শরীফখানাকে বিশুদ্ব হিসেবে উনার কিতাবে লিপিবদ্ব করতেন না কারন মহিউদ্দীন ইবনু আরাবী উনার কিতাবের মধ্যে পবিএ কুরআন শরীফ ও হাদিস শরীফ উনাদের খিলাফ অনেক বক্তব্য থাকার কারনে হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি শক্ত ভাষায় এই সব বত্তব্যর প্রতিবাদ করেছিলেন৤

তাহলে সেই মুজাদ্দিদ আলফে ছানী তিনি কিভাবে মহিউদ্দীন ইবনু আরাবী উনার উপর ভিত্তি করে উনার কিতাবে লিখিত হাদিস শরীফকে বিশুদ্ব হিসেবে মেনে নিতে পারেন? অথবা ইমাম আল্লামা কুস্তলানি রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে অনুসরন করে মহিউদ্দীন ইবনু আরাবী উনার লিখিত কিতাবের হাদিস শরীফকে কিভাবে বিশুদ্ব হিসেবে মেনে নিতে পারেন? এটা কোন দিন ও সম্বভ না কারন যেখানে হয়রত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি নিজেই মুসলমান উনাদেরকে মহিউদ্দিন ইবনুল আরাবী উনার আকিদা বা বিশ্বাস বা তার লিখিত বইয়ের বিষয়বস্তু গ্রহন না করে পবিএ কুরআন শরীফ ও হাদিস শরীফ উনাদেরকে অনুসরন করতে বলেছিলেন, আর সেখানে তিনি কি করে শুধুমাএ ইমাম আল্লামা কুস্তলানি রহমতুল্লাহি আলাইহি উনাকে অনুসরন করে মহিউদ্দিন ইবনু আরাবী উনার ফতুহাতে মাক্কিয়া কিতাবে লিখিত হাদিস শরীফকে বিশুদ্ব হিসেবে গ্রহন করবেন? এটা পাগল ছাড়া আর কারো বত্তব্য হতে পারে না৤

যদি বা ইমাম আল্লামা কুস্তলানি রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কাছে ছেক্বাহ বা চরম বিশ্তস্হ হোক না কেন ততাপি মহিউদ্দিন ইবনু আরাবীর কিতাব ফতুহাতে মাক্কিয়া সর্ম্পকে হযরত মুজাদ্দিদ আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি উনার কিন্তু পরিপূর্ন ইলম মুবারক ছিলেন. এরপরও হযরত মুজাদ্দিদে আলফে ছানী রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি বিনা তাহক্বীকে শুধুমাএ ইমাম আল্লামা কুস্তলানি রহমতুল্লাহি উনাকে অনুসরন করে হযরত জাবির রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার থেকে বর্ণিত হাদিস শরীফকে সহীহ হিসেবে গ্রহন করবেন! এই রকম চিন্তাভাবনা করাটা ও চরম লালত প্রাপ্ত হওয়ার কারন ছাড়া আর কিছুই নয়৤ মুলত যারা খাছ ইবলিশের ছেলা আর লানত প্রাপ্ত তারা ছাড়া এই ধরনের কথা আর কেউ বলতে পারে না৤

আসলে ওহাবী সালাফীরা ইমাম মুজতাহিদ উনাদের প্রতি মুসলমান উনাদের অন্তরে সন্দেহ অবিশ্বাস সৃষ্টি করার জন্য অপপ্রচার করে থাকে যে ইমাম মুজতাহিদ উনারা ভূল করেছিলেন৤নাউযুবিল্লাহ৤ আর মুসলমান উনাদের কাছে ইমাম মুজতাহিদ উনাদের জীবন, চরিএ, আমল, আখলাক, সত্যবাদিতা, ন্যায়পরায়নতা, তাক্বওয়া  পরহেযগারী ইত্যাদি বিষয় এবং উনারা যে মহান আল্লাহপাক ও উনার হাবিব হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের কাছে কতটুকু মকবুল ও মনোনীত ছিলেন, এই সর্ম্পকে পরিপূর্ন জ্ঞান না থাকার কারনে তারা বাতিল ফ্বিরকার অপপ্রচারে বিভ্রান্ত হয়ে নিজেদের গৌরব্যজ্জ্বল শ্রেষ্ট বিষয়গুলোকে অস্বীকার করে বিভ্রান্তির মধ্যে পতিত হয়৤নাউযুবিল্লাহ৤

 

 

 

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে