কদম বুছির শরয়ী আহকাম:


 

কদম শব্দের অর্থ হচ্ছে পা ,
এবং বুছি শব্দের অর্থ চুম্বন
করা ! অর্থাৎ দ্বীনদ্বার পরহেজগার,
সম্মানিত ব্যক্তি, পিতা-
মাতা ইত্যাদি উনাদের পায়ে চুম্বন
দেয়াকে শরীয়তে কদমবুছী বলে। এই
কদমবুছী খাছ
সুন্নতের অন্তর্ভুক্ত। হযরত
ছাহাবয়ে কি রাম রদ্বিয়াল্লাহু আনহুম
উনারা হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার
কদমবুছী করেছেন , আবার এক
ছাহাবী অন্য
ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনার
কদমবুছী করেছেন !! এ
প্রসঙ্গে অনেক হাদীস শরীফ বর্নিত
আছে !
সহীহ হাদীস শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়-
ﻋﻦ ﻭﺍﺯﻉ ﺑﻦ ﺯﺍﺭﻉ ﺭﺿﻴﺎﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻋﻦ ﺟﺪﻫﺎ ﻭﻛﺎﻥ ﻓﻲ ﻭﻓﺪ ﻋﺒﺪ ﺍﻟﻘﻴﺲ
ﻗﺎﻝ ﻟﻤﺎ ﻗﺬﻣﻨﺎ ﺍﻟﻤﺪﻳﻨﺔ ﻓﺠﻌﻠﻨﺎ ﻧﺘﺒﺎﺩﺭ ﻣﻦ ﺭﻭﺍﺣﻠﻨﺎ ﻓﻨﻘﺒﻞ ﻳﺪ ﺭﺳﻮﺍﻟﻠﻪ
ﺻﻠﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ﻭ ﺭﺟﻠﻪ
অর্থ : হযরত ওয়াজে ইবনে যারে উনার
দাদা হতে বর্ননা করেন, আর
তিনি ছিলেন আব্দুল কায়েস
গোত্রের অন্তর্ভুক্ত। তিনি বলেন ,
আমরা যখন
মদীনা শরীফে আসতাম, তখন
আমরা আমাদের
সাওয়ারী হতে তাড়াতাড়ি অবতরন
করে হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার হাত
এবং পা মুবারকে চুম্বন করতাম।”
দলীল –
√ আবু দাউদ শরীফ-কিতাবুস সালাম-২য়
খন্ড-৭০৯পৃষ্ঠা- হাদীস
৫২২৫ !
√ মিশকাত শরীফ- কিতাবুল আদব-
মুছাফাহ ও মুয়ানাকা অধ্যায়- হাদীস
নম্বর ৪৬৮৮।
√ ফতহুল বারী ১১ খন্ড- ৫৭ পৃষ্ঠা !
√ মিরকাত শরীফ ৭ম খন্ড ৮০ পৃষ্ঠা।
√ মুছান্নাফে আবী শায়বা ।
√ বায়হাকী শরীফ।
√ কানযুল উম্মাল শরীফ।
√ তাফসীরে তাবারী।
√ বজলুল মাজহুদ ৬ ষ্ঠ খন্ড ৩২৮ পৃষ্ঠা।
√ মায়ালিমুস সুনান।
√ আইনুল মা’বুদ
লি হল্লি মুশকালাতি সুনানী আবু
দাউদ।
√ আশয়াতুল লুময়াত
√ এলাউস সুনান ১৭ তম খন্ড ৪২৬ পৃষ্ঠা।
কদমবুছী সম্পর্কে হাফিজে হাদীস
আল্লামা কাজী আয়াজ
রহমাতুল্লাহি আলাইহি এবং হাফিজে হাদীস
আল্লামা নববী রহমাতুল্লাহি আলাইহি স্বস্ব
কিতাবে একখানা বিশুদ্ধ
হাদীস শরীফ বর্ননা করেন–
ﻋﻦ ﺑﺮﻳﺪﺓ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ ﻓﺎﺀﺫﻥ ﻟﻲ ﺍﻗﺒﻞ ﻳﺪﻳﻚ ﻭﺭﺟﻠﻴﻚ – ﻓﺎﺫﻥ
ﻟﻪ ﺍﻱ ﻓﻲ ﺗﻘﺒﻴﻞ ﻳﺪﻳﻪ ﻭﺭﺟﻠﻴﻪ- ﻓﻘﺒﻠﻬﻤﺎ
অর্থ: হযরত বুরাইদা রদ্বিয়াল্লাহু আনহু
হতে বর্নিত, তিনি বলেন,
(গাছের সিজদা দেয়ার ঘটনার পর)
আমি হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে বললাম,
ইয়া রাসূলুল্লাহ ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম !
আমাকে আপনার উভয় হাত
এবং পা মুবারক
বুছা বা চুম্বন দেয়ার অনুমতি দিন। তখন
উনাকে উভয় হাত
এবং পা মুবারক চুম্বন দেয়ার অর্থাৎ
কদমবুছী করার
অনুমতি দেয়া হলে, তিনি হুজুর পাক
ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম
উনার হাত এবং কদম মুবারক চুম্বন
করলেন।”
দলীল- √ নাসীমুর রিয়াজ
শরহে কাজী আয়াজ ৩য় খন্ড ৫০
পৃষ্ঠা ।
√ কিতাবুল আযকার লিন
নববী রহমাতুল্লাহি আলাইহি।
ছিয়াহ সিত্তার নির্ভরযোগ্য কিতাব
সমূহে আরো একটি হাদীস
শরীফ বর্নিত আছে। হযরত সাফওয়ান
রদ্বিয়াল্লাহু আনহু
থেকে বর্নিত একটি দীর্ঘ হাদীস শরীফ।
একবার দুজন
লোক হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার
সাথে সাক্ষাৎ করার জন্য আসলো।
তারা হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার
কাছে কিছু জানতে চাইলো, হুজুর পাক
ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম
তিনি সব বিষয় সমূহের জবাব দান
করলেন। জবাব পাওয়ার পরের বিষয়
সম্পর্কে সাফওয়ান
রদ্বিয়াল্লাহু আনহু বলেন–
ﻗﺎﻝ ﻓﻘﺒﻼ ﻳﺪﻳﻪ ﻭ ﺭﺟﻠﻴﻪ ﻭ ﻗﺎﻻ ﻧﺸﻬﺪ ﺍﻧﻚ ﻧﺒﻲ
অর্থ: হযরত সাফওয়ান রদ্বিয়াল্লাহু
আনহু বলেন, অতঃপর
তারা উভয়ে হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার হাত
মুবারক এবং কদম মুবারক চুম্বন
করলো এবং বললো,
আমরা সাক্ষ্য দিচ্ছি, নিশ্চয়ই
আপনি আল্লাহ পাক উনার নবী।”
দলীল- √ মিশকাত শরীফ -কিতাবুল
ঈমান- বাবুল কাবায়ের
ওয়া আলামাতুন নিফাক- দ্বিতীয়
পরিচ্ছেদ- ৫১ নং হাদীস শরীফ।
√ তিরমীযি শরীফ ।
√ আবু দাউদ শরীফ।
√ সুনানু নাসায়ী শরীফ।
√ তুহফাতুল আহওয়াযী।
√ সুনানুন নাসায়ী বি শরহিস
জালালুদ্দীন
সূয়ুতী রহমাতুল্লাহি আলাইহি।
এছাড়া এক ছাহাবী অন্য
ছাহবী রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনার
কদমবুছী করেছেন তার দলীল–
ﻋﻦ ﺯﻳﺪﺑﻦ ﺛﺒﺖ ﺍﻧﻪ ﻗﺒﻞ ﻳﺪ ﺍﻧﺲ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻭﺍﺧﺮﺝ ﺍﻳﻀﺎ ﺍﻥ
ﻋﻠﻴﺎ ﻗﺒﻞ ﻳﺪ ﺍﻟﻌﺒﺎﺱ ﻭ ﺭﺟﻠﻪ
অর্থ : হযরত যায়েদ বিন সাবিত
রদ্বিয়াল্লাহু আনহু
হতে বর্নিত,তিনি হযরত আনাস বিন
মালিক রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনার হাত
মুবারকে চুম্বন করেছেন। তিনি এটাও
বর্ননা করেছেন যে ,
হযরত আলী রদ্বিয়াল্লাহু আনহু হযরত
আব্বাস রদ্বিয়াল্লাহু আনহু
উনার হাত এবং পা মুবারকে চুম্বন
করেছেন !”
দলীল- √ ফতহুল বারী- ১১খন্ড-৫৭পৃষ্ঠা !
√ তোহফাতুল
আহওয়াযী শরহে তিরমীযি শরীফ ৭ম
খন্ড
৫২৮ পৃষ্ঠা।
√ ফিকহুস সুন্নাহ ওয়াল আসার।
উল্লিখিত হাদীস শরীফ
দ্বারা প্রমানিত
হলো কদমবুছী করা খাছ
সুন্নতে ছাহাবা রদ্বিয়াল্লাহু আনহু
উনার
অন্তর্ভুক্ত। আর সুন্নতে ছাহাবা অনুসরন
সম্পর্কে সহীহ
হাদীস শরীফে ইরশাদ মুবারক হয়েছে -
ﻋﻦ ﺍﻟﻌﺮﺑﺎﺽ ﺑﻦ ﺳﺎﺭﻳﺔ ﺭﺿﻲ ﺍﻟﻠﻪ ﻋﻨﻪ ﻗﺎﻝ ﻗﺎﻝ ﺭﺳﻮﻝ ﺻﻠﻲ ﺍﻟﻠﻪ
ﻋﻠﻴﻪ ﻭ ﺳﻠﻢ ﻋﻠﻴﻜﻢ ﺑﺴﻨﺘﻲ ﻭ ﺳﻨﺔ ﺍﻟﺨﻠﻔﺎﺀ ﺍﻟﺮﺍﺷﺪﻳﻦ ﺍﻟﻤﻬﺪﻳﻦ
ﺗﻤﺴﻜﻮﺍ ﺑﻬﺎ ﻭ ﻋﻀﻮﺍ ﻋﻠﻴﻬﺎ ﺑﺎﻟﻨﻮﺍﺟﺬ
অর্থ : হযরত ইরবায
ইবনে সারিয়া রদ্বিয়াল্লাহু আনহু
হতে বর্নিত,
হুজুর পাক ছল্লাল্লাহু
আলাইহি ওয়া সাল্লাম ইরশাদ মুবারক
করেন,
তোমাদের জন্য আমার সুন্নত এবং আমার
খুলাফায়ে রাশেদীন
রদ্বিয়াল্লাহু আনহুন উনাদের সুন্নত
অবশ্যই পালনীয় !
তোমরা তা মাড়ির দাঁত
দিয়ে শক্তভাবে আঁকড়ে ধরো !””
দলীল– √ সুনানে ইবনে মাজাহ, হাদীস
শরীফ নং ৪২
√ তিরমিযী শরীফ, হাদীস শরীফ
নং ২৬৭৬
√ আবু দাউদ শরীফ, হাদীস শরীফ
নং ৪৬০৭
√ মুসনাদে আহমাদ শরীফ ৪/১২৬
নিজের মায়ের কদমবুছী সম্পর্কে হাদীস
শরীফে আরো এসেছে–
ﻣﻦ ﻗﺒﻞ ﺭﺟﻞ ﺍﻣﻪ ﻓﻜﺎﻧﻤﺎ ﻗﺒﻞ ﻋﺘﺒﺔ ﺍﻟﺠﻨﺔ
অর্থ : যে ব্যক্তি তার মায়ের
পায়ে চুম্বন দিলো , সে যেন
জান্নাতের চৌকাঠে চুম্বন দিলো !”
দলীল– √ মাবসূত লিল সারাখসী ১ম
খন্ড ১৪৯ পৃষ্ঠা।
উক্ত দলীল আদিল্লা থেকে স্পষ্ট
বোঝা গেল
কদমবুছী করা খাস সুন্নতের অন্তর্ভুক্ত |
সুবহানাল্লাহ্ !!

Views All Time
1
Views Today
4
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

  1. দরকারী পোস্ট।
    শেয়ার করার জন্য অনেক শুকরিয়া।

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে