কম বয়সে বিয়েতে সমস্যা, কিন্তু চর্মবাণিজ্যে কোনো সমস্যা হয় না?


মেয়েদের বিয়ের বয়স নিয়ে কিছু অতিভক্তি দেখানো নারীবাদী মহল ও মিডিয়াগুলো খুব লম্ফঝম্ফ করে। তাদের যুক্তি- ১৬ বছর বয়সে একটি মেয়ে সংসারের দায়িত্ব নিতে পারে না, কম বয়সে বিয়ে হলে তার পড়ালেখা নষ্ট নয়। এটাই যদি হয় মূল সমস্যা, তাহলে কথিত সুন্দরী প্রতিযোগিতার নাম দিয়ে সেই সিক্সটিনদেরকেই চর্মবাণিজ্যের হাটে নামানো হচ্ছে কেন? এখানে একটি ১৬ বছরের মেয়েকে মিডিয়া, প্রোগ্রাম, পরিবার, ফিটনেস, রূপচর্চা ইত্যাদি অনেকগুলো বিষয় মেইন্টেইন করতে হয়। সংসারের সামান্য দায়িত্বই যদি তার পক্ষে সম্ভব না হয়, তাহলে এতোগুলো দায়িত্ব সে কিভাবে পালন করে? আর এগুলো ঠিক রেখে পড়াশোনা করে কিভাবে?

আসলে বাস্তবকথা হলো, এসব কুপথে গিয়ে একটি মেয়ের স্বাভাবিক জীবন নষ্ট হচ্ছে, লেখাপড়ার ক্ষতি হচ্ছে, পারিবারিক-সামাজিক মর্যাদাহানী হচ্ছে। কিন্তু এতে কুচক্রী মহলগুলোর কোনো প্রতিবাদ নেই। কেবল শরীয়তসম্মত উপায়ে বিয়ে করলেই এসব নারীবাদী আর কুচক্রী মিডিয়াগুলোর যত চুলকানির সৃষ্টি হয়। হারাম উপায়ে অবৈধ সম্পর্ক করলে, নিজেকে পণ্য বানিয়ে ব্যবসা করলে বা দেহব্যবসা করলে তাদের কোনো সমস্যা নেই; বরং তারা এটাই চায়। নাউযুবিল্লাহ!

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে