কারামতে মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম


সমস্ত প্রশংসা ও ছানা-ছিফত যিনি গউছুল আ’যম, ইমামুল উমাম, আস সাফফাহ আলাইহিস সালাম এবং উনার পূতপবিত্র হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের জন্য। মহান আল্লাহ পাক উনার লক্ষ্যস্থল ওলী রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার শান-মান এবং কারামত মুবারক আরশে আযীম থেকে যমীন পর্যন্ত প্রজ্জলিত সূর্যের ন্যায়। তেমনি একটি বিশেষ কারামত হচ্ছে- পবিত্র সাইয়্যিদুল আ’ইয়াদ শরীফ উনার ৬৩ দিন ব্যাপী মাহফিলের ২০তম ওয়াজ মাহফিল উনার সময়। সাইয়্যিদুনা হযরত শাফিউল উমাম আলাইহিস সালাম তিনি বর্ণনা মুবারক করেন, পৃথিবী থেকে শুরু করে সূর্যের বৃহৎ আকৃতি, সূর্য থেকেও তারকার বৃহৎ আকৃতি, মিল্ক বা ছায়াপথ গ্রহ থেকে তারপর ব্ল্যাক হোল লক্ষ কোটি ব্ল্যাক হোল মিলে তৈরী হয় ক্লাস্টার। একই রকম লক্ষ কোটি ক্লাস্টার মিলে তৈরী হয় সুপার ক্লাস্টার। আবার কোটি কোটি সুপার ক্লাস্টার লক্ষ কোটি ট্রিলিয়ন, ট্রিলিয়ন মাইল বেগে চলছে আরেকটি বস্তুর দিকে। এই পর্যন্ত বিজ্ঞানীদের গবেষণা। যেটা মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন যে, আমি মহান আল্লাহ পাক প্রথম আসমানকে সাজিয়েছি গ্রহ-নক্ষত্র দ্বারা। আমরা একটু চিন্তা ফিকির করে দেখতে পাই যে, পৃথিবী থেকে সুপার ক্লাস্টার পর্যন্ত আমাদের পৃথিবীর অবস্থান কোথায় এবং কত ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর এভাবেই প্রথম আসমান দ্বিতীয় আসমানের তুলনায় ক্ষুদ্র। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন যে, প্রথম আসমান থেকে দ্বিতীয় আসমানের দূরত্ব ৫০০ বছরের রাস্তা এবং প্রতিটি আসমানের পুরুত্ব ৫০০ বছরের রাস্তা। পর্যায়ক্রমে ৭ সাত আসমান, তারপরেই রয়েছে কুরসী শরীফ। এই কুরসী শরীফ উনার কাছে ৭ আসমান ৭ যমীন এক বিন্দু বালুকণার মতই। সুবহানাল্লাহ!
কুরসী শরীফ উনার উপর পানিরাশি। পানিরাশির উপরেই রয়েছে মহান আল্লাহ পাক উনার আরশ বহনকারী হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম। মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার থেকে হযরত শাফিউল উমাম তিনি বলেন, আরশ বনহকারী হযরত ফেরেশতা আলাইহিমুস সালাম মোট ৮ জন। উনার মধ্যে একজন হযরত ফেরেশতা আলাইহিস সালাম উনার বর্ণনা হচ্ছে যে, উনার কান মুবারকের লতি মুবারক থেকে কাঁধ মুবারক পর্যন্ত দূরত্ব হলো ৭০০ বছরের রাস্তা। তাহলে হযরত ফেরেশতা আলাইহিস সালাম উনার সমস্ত শরীর তো বাকীই রইলো। তা কত বড়, চিন্তা ফিকিরের বাইরে। সুবহানাল্লাহ!
মহান আল্লাহ পাক উনার আরশ মুবারক কত বড় সুবহানাল্লাহ! উপস্থিত এই মজলিসে আমি স্পষ্ট দেখতে পেলাম যে, স্বয়ং হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার আরশে আযীম মূল অজূদ পাক ধারণ করে আছেন। সুবহানাল্লাহ! এটা দেখে আমি এতই আনন্দিত হলাম এবং আশ্চর্য হলাম যে, আমার জীবনেও আমি এত আনন্দিত হইনি, আশ্চর্য হইনি। যখন সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার ছোহবত মুবারক পেলাম স্পষ্ট দেখতে পেলাম যে আরশে আযীম থেকে একখানা নূর মুবারক সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনার চার পাশ ঘিরে আছে। সুবহানাল্লাহ!
পরে আমি অনেক চিন্তা ফিকির করে দেখেছি, সঠিকই দেখেছি। কারণ সাইয়্যিদুনা মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, হযরত আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনারা হলেন জান্নাতের মালিক। সুবহানাল্লাহ! কাজেই, যাঁরা জান্নাতের মালিক উনারা আরশ পাক উনার মালিক হবেন এটাই স্বাভাবিক।
সাইয়্যিদুনা হযরত মুজাদ্দিদে আ’যম আলাইহিস সালাম উনার ক্বদম মুবারকে ইস্তিক্বামত থাকার তাওফীক্ব চাই, ক্ষমা চাই।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে