কুরবানীর পশুর অবমাননা /অসম্মান করবেন না!


কুরবানী মহান আল্লাহ পাক উনার
নিদর্শন।কুরবানীর পশু একারণে
সম্মানিত।
নিদর্শনসমূহকে সম্মান করা ফরয হেতু
কুরবানীর পশুকে ও সম্মান করা ফরয।
একেক বিষয়ের সম্মান প্রদর্শনের বিষয়
একেক রকম তবে প্রত্যকেটি বিষয়ের
ক্ষেত্রে মূল যে বিষয় তা হচ্ছে আদব
রক্ষা করা।
এ যুগে মানুষজন সবকিছু নিয়েই ঠাট্টা
ফাইজলামি করে থাকে…! এটা
স্বভাবেই পরিণত হয়েছে প্রায়!
অথচ খেয়াল রাখা আবশ্যক
নিদর্শনসমূহকে অবমাননা করা,অবহেলা
করা কুফরী।
সে কারণে কুরবানীর পশুর সাথে
বিভিন্ন এংগেলে মুখ চোখ বাকিয়ে
বা স্বাভাবিক রেখে সেলফি
শরীয়তসম্মত নয়! একই সাথে হাটে গান
বাজনা করা,মহিলাদের হাটে
যাওয়াটাও সম্মানিত শরীয়তের
নির্দেশ মুবারক এর পরিপন্থী!
আর গরুর শুভেচ্ছা বা হাম্বা মুবারক কোন
ধরনের আদব আমার জানা নাই!
মুসলিম মাত্রই কুরবানী ঈদে নফসের বদ
খাছলত কুরবানী করার চেষ্টা + বাসনা
রাখতে হবে।
সম্মানিত কুরবানীর মূল শিক্ষা –
সর্বাবস্থায় যিনি রব তায়ালা উনার
নির্দেশ মুবারক মানা এবং উনারই
সন্তুষ্টিকে প্রাধান্য দেয়া আর লক্ষ্য
খাছ সন্তুষ্টি এবং তাক্বওয়া অর্জন।
কাজেই মহান আল্লাহ পাক যেন
আমাদের সকলকেই কুরবানী ঈদ তথা
পবিত্র ঈদুল আযহা থেকে হাক্বীক্বী
শিক্ষা গ্রহণ করে তাক্বওয়া এবং
সন্তুষ্টি মুবারক হাছিল করার তৌফিক
দান করেন।
আমীন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে