কেউ দেখাতে পারবে না যে, কোনো বিধর্মী তারা- মুসলমান উনাদের কোনো বিষয় অনুসরণ করে বা পালন করে।


কাফির-মুশরিকগুলো তাদের ধর্ম বাতিল ও নাহক্ব হওয়ার পরও তারা তাদের কথিত ধর্মীয় বিষয়গুলো গুরুত্ব দেয় এবং গুরুত্বের সাথে পালন করে ও জারি করার কোশেশ করে। নাউযুবিল্লাহ! আর মুসলমানরা সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার তর্জ-তরীক্বা সব পর্বগুলোকে গুরুত্ব না দেয়া ও পালন না করার কারণেই হারাম-নাজায়িয ও বেদ্বীনী-বদদ্বীনী কাজে মশগুল হয়ে থাকে। নাউযুবিল্লাহ!

এখানে ফিকিরের বিষয় হচ্ছে- মুসলমান উনাদের দ্বীন হক্ব হওয়ার পরও তারা তা পালন করে না; বরং বেদ্বীন-বদদ্বীনদের নিয়মনীতি পালন করে। নাউযুবিল্লাহ! অথচ কেউ দেখাতে পারবে না যে, কোনো বিধর্মী তারা- মুসলমান উনাদের কোনো বিষয় অনুসরণ করে বা পালন করে। তাহলে মুসলমান কেন বিধর্মীদের অনুসরণ করবে, তাদের পর্বগুলো পালন করবে এবং পালন করার অনুমতি দিবে?

এখন মুসলমান উনাদের জন্য দায়িত্ব ও কর্তব্য হলো- সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনাকে সূক্ষ্মাতিসূক্ষ্ম অনুসরণ-অনুকরণ করা এবং সম্মানিত দ্বীন ইসলাম উনার সমস্ত তর্জ-তরীক্বা ও সমস্ত পর্বগুলো গুরুত্বের সাথে পালন করা এবং সর্বত্র জারি করা। কেননা বর্তমান রজবুল হারাম মাসসহ প্রায় প্রতিটি মাসেই রয়েছে বিশেষ রাত ও দিন। অতএব, মুসলমান উনাদের উচিত সেগুলো জেনে সে রাত ও দিনগুলো যথাযথভাবে উদযাপন করা।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে