কোনটা করলে মুসলমান থাকে আর কোনটা করলে কাফির হয়- তা কি আজ মুসলমান জানে?


যিনি খালিক্ব যিনি মালিক যিনি রব মহান আল্লাহ পাক তিনি সম্মানিত কিতাব কালামুল্লাহ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন যে- “সমস্ত কাফির-মুশরিকরা মুসলমানগণ উনাদের শত্রু। তোমরা কখনোই তাদেরকে বন্ধুরূপে গ্রহণ করিও না।”

আজকে যারা কাফির-মুশরিকদের হারাম খেলাধুলাকে সমর্থন করছে, দেখছে, এবং খেলার জন্য হাজার হাজার টাকা খরচ করছে খুশি প্রকাশ করছে। তাদের ঈমানতো থাকবে না। কারণ আক্বাইদের কিতাবে আছে যেকোনো হারামকে হালাল বললে কুফরী হয় এতে সে কাফির হয়ে যায়। তাহলে মুসলমানরা তাদের অজান্তেই কুফরী করে এক কাফির হচ্ছে। যার সাথে যার মুহব্বত তার সাথে তার হাশর-নশর।

আজকে যারা কাফিরদের গান-বাজনা, নামক অ্যালবাম ইত্যাদি হারাম জিনিসকে মুহব্বত করছে এবং দেখছে তাদের ঈমান নষ্ট হয়ে যাবে এবং তাদের হাশর-নশর কাফিরের সাথে হবে। যদি কোনো মুসলমান কাফিরকে ভালোবাসে এই চিন্তা করে বা বলে যে সব কাফির তো খারাপ নয়, তাহলেও সে কুফরী করার কারণে কাফির হবে। হারাম ছবি তোলাকে যে জায়িয ফতওয়া দিবে, সেও হারামকে-হালাল বলার কারণে কাফির হবে।

শরীয়তের যে বিষয়গুলোর প্রতি যেভাবে আক্বীদা পোষণ করতে হবে; সেভাবে না করলে ঈমানহারা হয়ে কাট্টা কাফির চিরজাহান্নামী হতে হবে। আর যদি নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাকে তিনি হাযির-নাযির তিনি নূরে মুজাসসাম এবং তিনি মহান আল্লাহ পাক উনার পরেই উনার স্থান তিনি শুধু মহান আল্লাহ পাক তিনি নন এছাড়া এটা যারা মানবে না তারা ঈমানদার হিসেবে গণ্য হবে না।

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে