কোনো মুসলমান কখনোই তেরেসার মতো মহিলাদের ‘মাদার’ বা ‘মা’ বলতে পারে না


মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে স্পষ্টভাবেই বলে দিয়েছেন কারা মুসলিম উম্মাহ তথা সকল মুসলমানদের মাতা অর্থাৎ উম্মুল মু’মিনীন। নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার সম্মানিত জাওযা উনারাই হলেন উম্মুল মু’মিনীন। উনাদের মুবারক ফযীলত মহান আল্লাহ পাক তিনি পবিত্র কুরআন শরীফে অনেক অনেকবার বর্ণনা করেছেন। যেমন পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “হে সম্মানিত আহলু রসূলিল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম, মহান আল্লাহ পাক তিনি আপনাদেরকে পবিত্র করার মতো পবিত্র করেই সৃষ্টি করেছেন। সুবহানাল্লাহ।” (পবিত্র সূরা আহযাব শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ-৩৩)
আর এর বিপরীতে মহান আল্লাহ পাক তিনি কাফির-মুশরিক যারা রয়েছে তাদেরকে নাপাক তথা অপবিত্র বলে অভিহিত করেছেন। কালামুল্লাহ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “নিশ্চয়ই মুশরিকরা নাপাক।” (পবিত্র সূরা তওবা শরীফ, পবিত্র আয়াত শরীফ-২৮)
মহান আল্লাহ পাক তিনি আরো ইরশাদ মুবারক করেন, “নিশ্চয়ই মহান আল্লাহ পাক উনার নিকট প্রাণীকুলের মধ্যে সবচেয়ে নিকৃষ্ট জীব হচ্ছে তারাই, যারা কাফির-মুশরিক।” (পবিত্র সূরা আনফাল শরীফ: পবিত্র আয়াত শরীফ-৫৫)
তাহলে কি কোনো মুসলমান কোনো কাফির-মুশরিক নিকৃষ্ট নাপাকদের মাদার বা মা বলতে পারে? তেরেসার মতো এক দুশ্চরিত্র খ্রিস্টান ‘নান’কে ‘মাদার’ বলতে পারে? যারা নাপাক নিকৃষ্ট প্রাণী তথা কাফির তাদের মাদার বা মা হতে পারে তেরেসা, কিন্তু কোনো মুসলমানের মা সে হতে পারে না।
প্রকৃতপক্ষে মুসলমানগণ যাতে উম্মুল মু’মিনীন আলাইহিন্নাস সালাম তথা মুসলমানদের প্রকৃত মা যাঁরা রয়েছেন উনাদের থেকে গাফিল হয়ে যায়, দূরে সরে যায় সে জন্যই তারা খ্রিস্টান নান তেরেসাকে ‘মাদার’ নামে প্রচারণা চালিয়ে আসছে, তার নামের আগে ‘মাদার’ নামটি লাগিয়েছে। নাঊযুবিল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে