কোমল পানীয়র নামে কি খাচ্ছে মানুষ?


ইংরেজী Soft Drinks -এর বাংলা করা হয়েছে কোমল পানীয়। ইংরেজী ভাষাভাষী অঞ্চলে বস্তুত গোটা ইউরোপে আবহাওয়া, সামাজিক রীতি ও ঐতিহ্য অনুযায়ী অ্যালকোহল সমৃদ্ধ আরও এক ধরনের পানীয় প্রচলিত আছে যাকে ওরা বলে থাকে Hard Drinks । ওই Hard Drinks-এর বিপরীত অর্থবোধক পানীয় বোঝাতেই Soft Drinks কথাটির আমদানি। আর আমরা এর বাংলা করেছি কোমল পানীয়।

এদেশের অধিবাসী তথা মুসলমানগণ কোমল পানীয় নামে যা পান করে তা মূলতঃ মদ পান করার শামিল। কেননা কোমল পানীয়তে অ্যালকোহল মিশ্রিত রয়েছে।
কোমল পানীয়তে এ্যালকোহলের উপস্থিতি নিয়ে দক্ষিণ আফ্রিকার ‍‍‍‌মজলিসুল উলামা প্রমাণ করেছে যে, কোকাকোলা এবং এ ধরনের কোমল পানীয়তে খুব সামান্য পরিমাণে হলেও অ্যালকোহল মিশ্রিত রয়েছে। এ ব্যাপারে সন্দেহের কোন অবকাশ নেই। কেননা মজলিসুল উলামা তাদের দাবীর স্বপক্ষে দলীল প্রমাণ উপস্থাপন করে একটি রিপোর্ট প্রকাশ করেছে।
soft drinks

রিপোর্টিতে উল্লেখ করা হয়েছে, কোকা-কোলাসহ অন্যান্য কোমল পানীয় প্রস্তুত করার সময় ফ্লেভার মেশানো হয়। কোমল পানীয়তে যে ফ্লেভারিং এজেন্ট মেশানো হয় সেই ফ্লেভারিং এজেন্টেই অ্যালকোহল রয়েছে। আইয়ামে জাহিলিয়াতের যুগে আরববাসী যেমন শরাবে (মদ) অভ্যস্ত ছিল তদ্রুপ বর্তমান যামানার নামধারী মুসলমানরাও কোমল পানীয় নামে হারাম শারাব পানে অত্যস্ত হয়ে উঠেছে। বাসাবাড়ি, অফিস আদালত, স্কুল-কলেজ সর্বত্র কোমল পানীয় নামে এদেশের মানুষ অ্যালকোহল সমৃদ্ধ তথা শরাব পান করছে।
soft drinks
বলা হয়েছে, সামান্য পরিমাণ ত্র্যালকোহল (শরাব) পান করলে চল্লিশ দিন ইবাদত কবুল হয় না। মূলতঃ মুসলমানগণ কোমল পানীয় পান করার নামে ইহুদী ও মুশরিক কর্তৃক প্রতারিত হচ্ছে। কেননা মুসলমানদের হালাল বিয়ারের নামে, কোমল পানীয় নামে যদি শরাব পান করানো যায় তখন মুসলমানগণের ইবাদত কবুল হবে না, ইবাদতে স্বাদ পাবে না, হারামের অভ্যস্ত হবে এবং পরিশেষে আল্লাহ পাকের রহমত থেকে বঞ্চিত হবে।
মুসলমানদের উচিত কোমল পানীয় নামে হারাম শরাব পান করা থেকে দুরে থাকা এবং ধর্মপ্রাণদের মাঝে ধর্মীয় চেতনা জাগানো।

Views All Time
1
Views Today
4
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+