“”’ খলিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি কুদরতীভাবে সাইয়্যিদাতুনা আন নূরুর রাবিয়া’হ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত রূহ মুবারক কবয করেন”””‘”


 

এই সম্পর্কে বিশ্বখ্যাত তাফসীরগ্রন্থ ‘তাফসীরে রূহুল বয়ান শরীফ ও তাফসীরে হাক্কী শরীফ’ উনাদের মধ্যে বর্ণিত রয়েছে,

 

اَنَّ سَيِّدَتَنَا حَضْرَتْ فَاطِمَةَ الزَّهْرَاء عَلَيْهَا السَّلَامُ لَـمَّا نَزَلَ عَلَيْهَا مَلَكُ الْـمَوْتِ لَـمْ تَرْضَ بِقَبْضِهٖ فَقَبَضَ اللهُ رُوْحَهَا

 

অর্থ: “সাইয়্যিদাতুনা আন নূরুর রাবিয়া’হ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার নিকট যখন মালাকুল মাউত হযরত আজরাইল আলাইহিস সালাম তিনি আসলেন, সাইয়্যিদাতুনা আন নূরুর রাবিয়া’হ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম তিনি এটা পছন্দ করেননি যে, উনার সম্মানিত রূহ মুবারক হযরত আজরাঈল আলাইহিস সালাম তিনি কবয করেন। তাই স্বয়ং যিনি খলিক মালিক রব মহান আল্লাহ পাক তিনি কুদরতীভাবে সাইয়্যিদাতুনা আন নূরুর রাবিয়া’হ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার সম্মানিত রূহ মুবারক কবয করেন তথা উনাকে উনার সম্মানিত খিদমত মুবারক-এ নিয়ে যান, উনার সম্মনিত দীদার মুবারক-এ নিয়ে যান।” সুবহানাল্লাহ! (তাফসীরে রূহুল বয়ান শরীফ ৮/৮৬, তাফসীরে হাক্কী শরীফ ১২/২৯৩)

 

তাহলে এখান থেকে স্পষ্ট হয়ে যায় সাইয়্যিদাতুনা আন নূরুর রাবিয়া’হ হযরত যাহরা আলাইহাস সালাম উনার শান-মান, ফাযায়িল-ফযীলত, বুযূর্গী-সম্মান মুবারক কতো বেমেছাল, সেটা সমস্ত জিন-ইনসান, তামাম কায়িনাতবাসীর চিন্তা ও কল্পনার উর্ধ্বে। সুবহানাল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে