খলীফাতু রসূলিল্লাহ সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রথম ও প্রধান খলীফা


সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র ১৩ হিজরী ২২ জুমাদাল উখরা শরীফ ইয়াওমুছ ছুলাছায়ি (মঙ্গলবার) ৬৩ বছর বয়স মুবারক-এ পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ!
সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি ছিলেন পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার প্রথম ও প্রধান খলীফা। তিনি পবিত্র দ্বীন ইসলাম উনার জগতে এক নজিরবিহীন বিরল ব্যক্তিত্ব। হযরত নবী-রসূল আলাইহিমুস সালাম উনাদের পরে যিনি একক মর্যাদার অধিকারী তিনি হচ্ছেন সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম। সুবহানাল্লাহ!
উনার মর্যাদা স্বল্প পরিসরে উল্লেখ করা দুষ্কর। যখন নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন অর্থাৎ মহান আল্লাহ পাক উনার দীদার মুবারকে চলে যান। তখন সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি সমগ্র মুসলিম জাহানের খলীফা নিযুক্ত হন এবং খিলাফতের দায়িত্ব সর্বমোট দু’বছর, তিন মাস, দশদিন পালন করেন। সুবহানাল্লাহ!
সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম তিনি উনার সবকিছুই মহান আল্লাহ পাক তিনি এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের জন্য কুরবান করেন এবং উম্মতের জন্য ক্বিয়ামত পর্যন্ত এক উজ্জ্বল আদর্শ স্থাপন করে গেছেন। সুবহানাল্লাহ!
পবিত্র কুরআন শরীফ উনার মধ্যে পবিত্র সূরা বাইয়্যিনাহ শরীফ উনার ৮ নম্বর পবিত্র আয়াত শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক করেন, “মহান আল্লাহ পাক তিনি হযরত ছাহাবায়ে কিরাম রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনাদের উপর সন্তুষ্ট উনারাও মহান আল্লাহ পাক উনার সন্তুষ্টি অর্জন করতে পেরেছেন।” সুবহানাল্লাহ!
আর সাইয়্যিদুনা হযরত ছিদ্দীক্বে আকবর আলাইহিস সালাম উনার পবিত্র লক্বব মুবারক এতো বেশি যা বর্ণনা করা সম্ভব নয়। আর উনার শান মুবারক-এ কিছু লিখার তো এই উম্মতের যোগ্যতাই নেই। তবুও লিখার চেষ্টা করবো। উনার ১টি লক্বব মুবারক রয়েছে। তাহলো “আছ ছিদ্দীকু” অর্থাৎ চরম সত্যবাদী। সুবহানাল্লাহ!
মূলত, উনার পবিত্র বিলাদত শরীফ, পবিত্র বিছাল শরীফ সবই খুশির দিন ও মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুবারক সন্তুষ্টি লাভের কারণ।
মহান আল্লাহ পাক তিনি যেন আমাদেরকে সেই খুশির দিন পালন করার এবং সেই দিনে পবিত্র মিলাদ শরীফ পাঠ করার, প্রশংসা বা ছানা ছিফত পাঠ করার তাওফীক দান করেন। আমিন!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে