খালিক্ব মালিক রব মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুবারক নির্দেশ পালনার্থে ও দান করার ক্ষেত্রে আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত উছমান যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার অবদান


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে বর্ণিত রয়েছে: একদা আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার দরবার শরীফ এসে অনুরোধ করে বললেন, ইয়া রসূলাল্লাহ, ইয়া হাবীবাল্লাহ ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম! আপনার কাছে যদি কোনো গরিব ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহুম উনারা আসেন সাহায্যের জন্য তাহলে আপনি উনাদেরকে দয়া করে আমার কাছে প্রেরণ করলে আমি উনাদের খিদমত করবো।

কিছুদিন পরে একজন দরিদ্র ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনার মেয়ের বিয়েতে সাহায্যের জন্য আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনার মুবারক খিদমতে হাজির হয়ে সাহায্য চাইলেন।
আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি সেই ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার নিকট প্রেরণ করলেন।
সেই ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি উনার দরবার শরীফ গিয়ে দেখতে পেলেন যে, হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি উনার একজন ব্যবসায়ীর কাছ থেকে মাত্র এক পয়সার হিসাব না মিলানোর কারণে বারবার শুরু থেকে হিসাব করাচ্ছেন। এটা দেখে তিনি ভাবলেন, যিনি মাত্র এক পয়সার হিসাব ছাড়তে পারেন না, উনি আর আমাকে কি সাহায্য করবেন!
তারপরেও যেহেতু স্বয়ং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি প্রেরণ করেছেন তাই তিনি একবারের জন্য বিষয়টি জানাতে উনার সামনে গেলেন। হযরত যুন নূরাইন আলাইহি সালাম তিনি সেই ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু উনাকে বারবার আসা-যাওয়া করতে দেখে জিজ্ঞাসা করলেন, আপনি কি কিছু বলতে চাচ্ছেন? তিনি বললেন, হ্যাঁ, স্বয়ং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি আপনার কাছে আমাকে প্রেরণ করেছেন। আমার মেয়ের বিয়েতে কিছু সাহায্য প্রয়োজন।
আমীরুল মু’মিনীন, সাইয়্যিদুনা হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি বললেন, আপনি অমুক স্থানে গিয়ে দাঁড়িয়ে থাকুন। কিছুক্ষণের মধ্যে ওই রাস্তা দিয়ে অমুক দেশ থেকে আমার একটি বাণিজ্যিক কাফিলা আসবে এক হাজার উট পরিপূর্ণ সম্পদ তাতে রয়েছে। সেখান থেকে যেটা আপনার পছন্দ হয় সেই উটটি তার সম্পদসহ আপনি নিয়ে যান।
সত্যিই তিনি সেখানে গিয়ে দেখতে পেলেন বিশাল এক বাণিজ্যিক কাফিলা এসেছে। প্রতিটি উটের পিঠেই অনেক সম্পদ রয়েছে। তিনি সমস্ত উট দেখে একবারে সামনের উটটিই পছন্দ করলেন। উটের নিয়ম অনুযায়ী সামনের উট যেদিকে যায়, পিছনেরগুলিও সেদিকে চলে যায়। সামনেরটি দিয়ে দিলে সম্পূর্ণ কাফিলার সমস্ত উট ও সম্পদসহ উনার কাছে চলে যাবে। তাই কাফিলার সর্দার উনাকে সামনেরটি বাদ দিয়ে অন্য যে কোনো একটি পছন্দ করার পরামর্শ দিলেন। কিন্তু গরিব ছাহাবী রদ্বিয়াল্লাহু তায়ালা আনহু তিনি অন্য কোনোটিই নিতে নারাজ। শেষপর্যন্ত উভয়ে হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম উনার সামনে গিয়ে হাজির হয়ে বিষয়টি জানালেন। হযরত যুন নূরাইন আলাইহিস সালাম তিনি বললেন, হে কাফিলার সর্দার! আপনি কি জানেন, উনাকে আমার কাছে কে প্রেরণ করেছেন? স্বয়ং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি উনাকে আমার কাছে সাহায্যের জন্য প্রেরণ করেছেন। কাজেই তিনি যেটা চান, যেভাবে চান সেটাই সেভাবে উনাকে দিয়ে দিন। সবগুলি উট সম্পদসহ উনার সাথে চলে গেলেও উনাকে সেভাবেই দিয়ে দিন। মনে রাখবেন, উনি যদি স্বয়ং আমাকেসহ চান তবে খোদ আমাকেও উনার সাথে চলে যেতে হবে। কারণ, উনাকে স্বয়ং আখিরী রসূল, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি নিজে আমার কাছে সাহায্যের জন্য প্রেরণ করেছেন। সুবহানাল্লাহ!
এ মুবারক ঘটনা থেকে আমাদের মুবারক সুন্নত পালন ও দান করার সর্বোত্তম আদব শিক্ষা গ্রহণ করতে হবে। মহান আল্লাহ পাক তিনি আমাদেরকেও অনুরূপভাবে গোলামী করার ও দান করার তাওফীক দান করুন। আমীন!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে