খুনাখুনি, কোপাকুপি, সংসারে বিশৃঙ্খলা রোধে পর্দা পালনের বিকল্প নেই


পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে- “যে দেখে এবং দেখায় তার উপর মহান আল্লাহ পাক উনার লা’নত।” কাজেই এই লা’নত থেকে বাঁচার জন্য এবং মহান আল্লাহ পাক উনার ও উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের আদেশ মুবারক পালনার্থে পর্দা করা সকলের জন্য ফরয। এখন এই পর্দা হাক্বীক্বীভাবেই হতে হবে। যেমন একজন নারীর জন্য সম্মানিত শরীয়ত উনার মধ্যে যাদের সামনে যাওয়া যায়িয বা যাদের সাথে বিয়ে হারাম তারা ব্যতীত সকলের সাথে পর্দা করা ফরয। আর পুরুষের ক্ষেত্রেও অনুরূপ। অর্থাৎ সম্মানিত শরীয়ত উনার মধ্যে যাদের সাথে বিয়ে হারাম তারা ব্যতীত অন্যান্য সকল মহিলাদের সাথে পর্দা করতে হবে। মূলত, মুসলিম নারীরা যদি হাক্বীক্বী পর্দা করে দেশ ও সমাজ থেকে বেশির ভাগ ফিতনা দূরীভূত হবে। আজ পেপার-পত্রিকা হোক অনলাইন বা মিডিয়াই হোক, যত নারী লাঞ্চিত হওয়ার, সম্ভ্রমহরণের শিকার হওয়ার, একজনের সংসারে থেকে অন্য পুরুষ, মহিলার সাথে অবৈধ সম্পর্ক তথা পরকিয়াতে লিপ্ত হওয়ার, এমনকি নিজ সন্তান-সন্ততিদের হত্যা করার খবর প্রকাশ হচ্ছে- তা একমাত্র বেপর্দার কারণেই। বেপর্দার কারণে কুলষিত হচ্ছে দেশ, জাতি ও সমাজ। তাই পর্দা করা সকল নর-নারীর জন্য ফরয। আমাদের সম্মানিতা উম্মুল উমাম হযরত আম্মা হুযূর ক্বিবলা আলাইহাস সালাম তিনি পবিত্র যবান মুবারকে বলেন, যদি মুসলমান নর-নারী হাক্বীক্বী পর্দা করতে পারে তাহলে দেশ থেকে অশান্তি মারামারি তথা ফিতনা-ফাসাদ দূর হয়ে যাবে।
মূলত, মহান আল্লাহ পাক তিনি ও উনার হাবীব, নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের আদেশ মুবারক নিষেধ মুবারকের মধ্যে রয়েছে বান্দা-বান্দীর জন্য রহমত, বরকত ও শান্তি। সুবহানাল্লাহ!

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে