খুশীর কত বিষয় রয়েছে মুসলমানদের জন্য


অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গকারী তুষারপাত! এতো বড় প্রলয়ঙ্করী ঝড় এর আগে কেউ দেখেনি! নজীরবিহিন টর্নেডো! সর্বগ্রাসী দাবানল!! এসব বিশেষণসমেত অনুষ্ঠানগুলো এখন আরো কঠিন যন্ত্রণার কারন হয়ে দাঁড়িয়েছে কাফির মুশরিকগুলোর জন্য। তাই ওদের দেশে তথাকথিত আবহাওয়া বিশেষজ্ঞরা বলতে শুরু করেছে- সব কিছুই পূর্বের তুলনায় ব্যাপক আকারে আসছে এবং ২০১৮ সালে প্রকৃতি অবশ্যই ২০১৭ সালের চেয়ে আরো বেশি ভয়ংকর রূপ ধারণ করবে।
বছরটা শুরু না হতেই মেক্সিকোর ভূমিকম্পে তারা ভুগেছে, টোঙ্গাকে লন্ডভন্ড করে দিতে গত ৬০ বছরের রেকর্ড ভঙ্গকারী সাইক্লোন ‘গীতা’ও তাদেরকে বিধ্বস্ত করে দিয়েছে, অস্ট্রেলিয়ার গরমের প্রচন্ডতায় তাদেরকে পানিতে নামিয়েছে, ইউরোপে তাদের সব কর্মকা-কে স্থবির করে দিতে এসেছিল ‘হারিকেন গেইল’, জানুয়ারীর মাঝামাঝি ক্যালিফোর্নিয়ার দাবানলে পুড়ে যাওয়া ছাইয়ের সাথে তাদের অবশিষ্টাংশকে মাটি চাপা দিয়ে গেল ভূমিধ্বস। এরকম আরো বিচিত্র ধরণের আযাব-গযবের খবর তারা বেমালুম চেপে গেছে, যেন মিডিয়ায় সেগুলো না আসে।
কাফের তো কাফেরই। সব জায়গায় ধোঁকাবাজি। তাদের তথাকথিত বিজ্ঞানীরা বিবৃতি দিচ্ছে- এই বৈরী আবহাওয়া মানুষ সৃষ্ট, কার্বন নির্গমন বেড়েই চলেছে।
মুসলমানদের খুশী প্রকাশ করে বলা উচিত, তোরা ধ্বংস হয়ে গেলেই কার্বন নির্গমন বন্ধ হবে, অর্থাৎ ওদের ধ্বংস না হওয়া পর্যন্ত গযব নাযিল হতেই থাকবে। যে জুলুম তারা মুসলমানদের উপর করে যাচ্ছে তার বদলা তাদেরকে গ্রহণ করতেই হবে। কারন যমীনে রয়েছেন স্বয়ং মুজাদ্দিদে আ’যম, আস সাফফাহ, আখাচ্ছুল খাছ আহলু বাইত শরীফ আলাইহিমুস সালাম উনাদের অন্যতম ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি। উনার রোব মুবারক এবং কাফির-মুশরিকদের বিরুদ্ধে উনার কঠিন বদদোয়ার বদৌলতে আগ্নেয়াস্ত্র দিয়ে যা সম্ভব হতো না, মহান আল্লাহ পাক তিনি গযব নাযিল করে আরো কঠিনভাবে ওইসব কাফির-মুশরিকগুলোকে ধ্বংস করে দিচ্ছেন। সুবহানাল্লাহ!

তাই এখন মুসলমানদের করণীয় হলো- মুজাদ্দিদে আ’যম মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম উনাকে নিয়ামতে উজমা মুবারক হিসেবে পাওয়ার জন্য খুশি প্রকাশ করা এবং মুসলমানদের উপর জুলুমকারী কাফির-মুশরিক, বেদ্বীন-বদদ্বীন গুলোর দুর্গতি দেখে খুশি প্রকাশ করা, শোকর গুজার করা।

Views All Time
1
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে