প্রকাণ্ড কিছু দেখলেই অবনত হওয়া বিধর্মীদের বদ খাছলত!


সাধারণ মানুষের স্বাভাবিক প্রশ্ন- এতবড় মালানা-মুফতে সাহেব এই কাজ করলো, তাইলে এটা কিভাবে ভুল হতে পারে? ডাক্তার জাকির নায়েক তথা কাফির নালায়েকের মতো এ রকম অনেক প্রকা- প্রকা- গুমরাহ ও বিভ্রান্ত লোক আছে যাদের হাজার হাজার ভক্ত আছে, আছে বিভিন্ন মিডিয়ায় নামধাম(!), আছে ক্যনভাসারদের মতো বাকপটুতা; তাদের এত এত গুণগুণানি দেখেই সাধারণ মানুষের মনে এসব প্রশ্নের উদয় হয়।
কাফির নায়েকদের মত লোকদের বিভ্রান্তিকর কথা শুনে অনেকেই মাযহাবের সম্মানিত ইমামগণ উনাদের শানে অবমাননাকর কথা বলে থাকে। নাউযুবিল্লাহ।
অথচ মাযহাবের সম্মানিত ইমামগণ উনাদের যে বেমেছাল আমল আখলাক ও ইলম মুবারক তার ধারে কাছেও নেই ওই সকল কাফির নালায়েকরা। মুখস্তবিদ্যা আর ক্যনভাসারদের মত বাকপটুতা ও মিডিয়ার আস্ফালনই হলো জোকারদের একমাত্র ভরসা। এছাড়া তাদের না আছে কোনো আমল, না আছে পরহেজগারী, না আছে তাক্বওয়া।
আসলে যে সকল মানুষ জোকারদের এসব প্রকা-তায় অবনত হয়ে তাদের ভক্তি করে থাকে এদের স্বভাব হলো বিধর্মী মুশরিকদের মতো। বিধর্মীদের স্বভাবই হলো- কোথাও বড় কোনো পাথর বা বড় কোনো গাছ দেখলেই সেখানে সিজদা দিয়ে পূজা শুরু করে দেয়া। নাউযুবিল্লাহ।
কখনো কোনো মুসলমানদের অবস্থা এমন হতে পারে না। মুলমানদের অবস্থা হতে হবে এমন যেমনিভাবে পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মাঝে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, তোমরা কার থেকে দ্বীনি ইলম শিক্ষা করছো, সেটা লক্ষ্য করো।’ আরো ইরশাদ মুবারক হয়েছে, কোনো হাবশী গোলামও যদি হক্ব কথা তথা পবিত্র কুরআন শরীফ ও পবিত্র হাদীছ শরীফ মুতাবিক কথা বলে সেটা মান্য করতে হবে।”

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে