গান বাজনার মাধ্যমে নিফাক্বী ব্যতীত আর কিছুই হাছিল হয় না


নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি ইরশাদ মুবারক করেন, “আমি গান-বাজনা, বাদ্য-যন্ত্র ধ্বংস করার জন্য প্রেরিত হয়েছি।”
এই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার ব্যাখ্যায় বলা হয়, নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি গান-বাজনা ধ্বংস করতে প্রেরিত হয়েছেন কিন্তু বর্তমানে দেখা যায়, উনারই উম্মত হয়ে আজ মুসলমানরা গান-বাজনা করার মধ্যে মশগুল রয়েছে এবং এসব করার জন্য তারা অধিক আগ্রহী। তবে তারা বুঝতে পারছে না যে, এটা তাদের অন্তরে কতটুকু নিফাক্বী পয়দা করছে এবং তারা কতটুকু ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছে। (নাঊযুবিল্লাহ)
পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “গান-বাজনা মানুষের অন্তরে এমনভাবে নিফাক্বী পয়দা করে যেমন পানি ফসলকে উৎপন্ন করে।” (নাঊযুবিল্লাহ)!
এই পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার দ্বারা স্পষ্ট বুঝা যায়, গান-বাজনা শুনলে সহজেই একজন মানুষ মুনাফিক হিসেবে পরিণত হয়। নাউযুবিল্লাহ!
মুসলমান হিসেবে প্রত্যেকের অন্তরে নূর থাকা দরকার কিন্তু গান-বাজনা শুনলে অন্তরে নূর পয়দা হবে না। নূর পয়দা করার জন্য মহান আল্লাহ পাক এবং উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের মুহাব্বত অন্তরে পয়দা করতে হবে। আর তা সম্ভব হবে পবিত্র হামদ শরীফ, পবিত্র নাত শরীফ ও পবিত্র ক্বাছীদা শরীফ বলা, শুনা ও লিখার মাধ্যমে। কারণ তা বলা ও শ্রবণ করা উভয়টাই সুন্নত। সুবহানাল্লাহ! কেননা নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি পবিত্র হামদ শরীফ, পবিত্র না’ত শরীফ ও পবিত্র ক্বাছীদা শরীফ শুনলে খুব খুশি হতেন এবং মাঝে মাঝে অল্প আওয়াজে পাঠ করতেন। সুবহানাল্লাহ! আর এই কারণে তিনি হযরত হাসান বিন ছাবিত রদ্বিয়াল্লাহু আনহু উনাকে মসজিদে নববী শরীফ উনার মিম্বর শরীফের পাশে আলাদা একটি মিম্বর শরীফ করে দিয়েছিলেন। সুবহানাল্লাহ!
মূলতঃ এই গান-বাজনা বা হারাম কাজ করে কোন ফায়দা নেই। নিজের আমল-আখলাক্ব নষ্ট হওয়া ব্যতীত কিছুই হাছিল হয়না। তাই প্রত্যেক মুসলমানের জন্য দায়িত্ব-কর্তব্য হল হারাম গান-বাজনা ছেড়ে মহান আল্লাহ পাক উনার এবং উনার হাবীব নূরে মুজাসসাম, হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম উনাদের সন্তুষ্টি মুবারক হাছিলের জন্য পবিত্র হামদ শরীফ, পবিত্র নাত শরীফ, পবিত্র কাসিদা শরীফ পাঠের মাধ্যমে অন্তরে নূর পয়দা করা। মহান আল্লাহ পাক তিনি যেন আমাদেরকে সাইয়্যিদুনা হযরত ইমামুল উমাম আলাইহিস সালাম এবং সাইয়্যিদাতুনা হযরত উম্মুল উমাম আলাইহাস সালাম উনাদের মুবারক উসীলায় হারাম কাজ থেকে হিফাযত করেন এবং পবিত্র হামদ শরীফ, পবিত্র নাত শরীফ, পবিত্র কাসিদা শরীফ হাক্বীক্বীভাবে পাঠ করে সারাবিশ্বে ছড়িয়ে দেয়ার তৌফিক দান করুন। আমিন।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে