চাঁদ দেখে সঠিক তারিখে আরবী মাস শুরু করা ফরয


মহান আল্লাহ পাক তিনি ইরশাদ মুবারক করেন- “(হে হাবীব ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম!) তাঁদেরকে (বান্দা-বান্দিদেরকে) মহান আল্লাহ পাক উনার বিশেষ বিশেষ দিন মুবারক ও রাত মুবারকগুলো স্মরণ করিয়ে দিন। (যাতে তারা সেসব দিন ও রাত্রগুলো উদযাপন বা পালন করতে পারে।)”

মহান আল্লাহ পাক উনার এই নির্দেশ মুবারক পালন করতে হলে চাঁদ দেখে সঠিক তারিখে আরবী মাস শুরু করা ফরয।

বাংলাদেশে পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে আগামী ১৯ হাদি আশার ১৩৮২ শামসী, ১৯ এপ্রিল ২০১৫ ঈসায়ী, ইয়াওমুল আহাদ (রোববার) দিবাগত সন্ধ্যায়।

আকাশ যথেষ্ট পরিমাণ পরিষ্কার থাকলে চাঁদ দেখা যেতেও পারে; তবে না দেখা যাওয়ার সম্ভাবনাই অধিক।
যামানার লক্ষ্যস্থল ওলীআল্লাহ, যামানার ইমাম ও মুজতাহিদ, যামানার মুজাদ্দিদ, মুজাদ্দিদে আ’যম, সাইয়্যিদুল আউলিয়া, ইমামুল আইম্মাহ, কুতুবুল আলম, আওলাদে রসূল, সাইয়্যিদুনা ইমাম রাজারবাগ শরীফ উনার মামদূহ হযরত মুর্শিদ ক্বিবলা আলাইহিস সালাম তিনি বলেন, পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস বিভিন্ন কারণেই সম্মানিত। এ মহাসম্মানিত মাস উনার মধ্যে রয়েছে অনেক উল্লেখযোগ্য দিনসমূহ। এ মহাসম্মানিত মাস উনার মধ্যে পহেলা রাত্রটি হচ্ছে নিশ্চিতভাবে দোয়া কবুলের রাত্র। এ সম্মানিত মাস উনার প্রথম ইয়াওমুল খামীস বা বৃহস্পতিবার দিবাগত রাত অর্থাৎ প্রথম জুমুয়া শরীফ উনার রাত্রটিই হচ্ছে পবিত্র লাইলাতুল রগায়িব শরীফ। সুবহানাল্লাহ! নূরে মুজাসসাম হাবীবুল্লাহ হুযূর পাক ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম তিনি এ পবিত্র রাত্রে উনার সম্মানিত আম্মাজান আলাইহাস সালাম উনার খিদমত মুবারকে তাশরীফ মুবারক গ্রহণ করেন। এ মুবারক রাত্র উনার ফযীলত পবিত্র শবে বরাত শরীফ, পবিত্র শবে ক্বদর শরীফ উনাদের চেয়েও অনেক বেশি। সুবহানাল্লাহ!

আরবী মাস উনার বিশেষ বিশেষ দিনসমূহ যথাযথ পালন করা প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে তিনি এসব ক্বওল শরীফ উল্লেখ করেন।

এ মহাসম্মানিত মাস উনার ৬ তারিখ সুলতানুল হিন্দ, খাজা গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! এ মহাসম্মানিত মাস উনার ১৩ তারিখ আমীরুল মু’মিনীন, ইমামুল আউওয়াল মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত কাররামাল্লাহু ওয়াজহাহূ আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! এ মহাসম্মানিত মাস উনার ১৪ তারিখ ইমামুছ সাদীস মিন আহলি বাইতি রসূলিল্লাহি ছল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম হযরত জাফর ছাদিক্ব আলাইহিস সালাম তিনি পবিত্র বিছালী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! এ মহাসম্মানিত মাস উনার ১৪ তারিখ সুলতানুল হিন্দ, খাজা গরীবে নেওয়াজ, হাবীবুল্লাহ হযরত খাজা ছাহেব রহমতুল্লাহি আলাইহি তিনি পবিত্র বিলাদতী শান মুবারক প্রকাশ করেন। সুবহানাল্লাহ! এবং এ মহাসম্মানিত মাস উনার ২৭ তারিখ রাত্রে পবিত্র শবে মি’রাজ শরীফ সংঘটিত হয়েছিলো। সুবহানাল্লাহ!

সুতরাং এসমস্ত সম্মানিত দিনগুলো যথাযথ তা’যীম-তাকরীমের সাথে পালন করতে হলে চাঁদ দেখে সঠিক তারিখে মাস শুরু করা ফরয উনার অন্তর্ভুক্ত।

বাংলাদেশে আমাবস্যা সংঘটিত হবে ১৯ হাদি আশার ১৩৮২ শামসী, ১৯ এপ্রিল ২০১৫ ঈসায়ী, লাইলাতুল আহাদ বাংলাদেশ সময় রাত ১২টা ৫৫ মিনিটে।

বাংলাদেশে পবিত্র রজবুল হারাম শরীফ মাস উনার চাঁদ তালাশ করতে হবে ১৯ হাদি আশার ১৩৮২ শামসী সন, ১৯ এপ্রিল ২০১৫ ঈসায়ী সন, ইয়াওমুল আহাদ (রোবাবর) দিবাগত সন্ধ্যায়। সেদিন সূর্যাস্ত ৬টা ২২ মিনিটে। চন্দ্রাস্ত ৭টা ০৩ মিনিটে। সূর্যাস্ত ও চন্দ্রাস্তের পার্থক্য ৪১ মিনিট। চাঁদের বয়স হবে ১৭ ঘণ্টা ২৬ মিনিট। চাঁদের উচ্চতা থাকবে ৭ ডিগ্রি ৪৭ মিনিট। কৌণিক দূরত্ব হবে ৯ ডিগ্রি ১৮ মিনিট। চাঁদের আজিমাত হবে ২৭৯ ডিগ্রি। আর সূর্যের আজিমাত হবে ২৮২ ডিগ্রি। অর্থাৎ চাঁদ খুঁজতে হবে অস্তগামী সূর্যের বাঁয়ে। চাঁদ দেখার সকল মান প্রান্তিক সীমায় থাকায় আকাশ খুব পরিষ্কার থাকলে চাঁদ দেখা যেতে পারে; নতুবা দেখা না যাওয়ার সম্ভাবনাই অনেক বেশি।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে