‘ছবি’ ফিতনার মূল


আমরা মুসলমান। কিন্তু কাফির-মুশরিকরা যখন বেহায়া-বেপর্দা ও ছবি-ক্যামেরার ফিতনাতে নাজেহাল তখন আমাদের কখনোই উচিত হচ্ছে না, শরীয়তবিরোধী ফিতনাকে সরকারিভাবে মদদ দান করা। সরকারের ভেবে দেখা দরকার দেশকে কীভাবে ফিতনা-ফাসাদ মুক্ত করা যায়।
দেশের বিভিন্ন তথাকথিত নামি মহিলাদেরই অনেকে অকপটে স্বীকার করেছে, তারা ফিতনা এড়াতে বোরকায় সর্বাঙ্গ ঢেকে বের হয়। এতে তারা স্বাধীন, কেউ তাদের চিনে না আর বিরক্তও করে না। অনেক দুনিয়াবী শিক্ষায় শিক্ষিত মেয়েরাও হিজাব পরে, কারণ এতে সাধারণ মানুষ তাদের সমীহ করে থাকে। উত্ত্যক্ত করে না। যে উত্ত্যক্ত হওয়ার ভয়ে হিজাব পরে সে কেন ছবি তুলে বেপর্দা হবে?
যারা ছবি করে, সিনেমা করে, অশ্লীলতার প্রসার করে, যাদের কাছে ঈমান ও ইসলাম উভয়ের কোনো গুরুত্ব নেই- তাদের ছবি তোলার এবং বেপর্দা হবার বিষয়টি আলাদা।
কিন্তু আমরা ৯৮% মুসলমান অধ্যুষিত দেশের নাগরিকরা তো সেটা মানতে পারি না। প্রকৃত কথা হচ্ছে- পৃথিবীর কোনো মেয়েই টাকা-পয়সা উপার্জনের জন্য অশ্লীলতা করতে চায় না; তবে কিছু সংখ্যক বদচরিত্র লোক মেয়েদের ব্যাবহার করে পয়সা বানানোর ফন্দিতে ছবির ব্যাপক প্রচলন করার কোশেশ করে যাচ্ছে। আগে সব স্তরের মানুষ এর প্রতিবাদ করতো। এখন অনেকেরই তা গা সহা হয়ে গেছে।
কারণ যাদের হাতে ক্ষমতা তারাই খারাপ জিনিসে অনুরক্ত। তারা মেয়েদের অধিকার দেয়ার নামে মেয়েদেরকে রাস্তায় নামিয়েছে। এখন ভুক্তভোগীরা মহান আল্লাহ পাক উনার রহমত থেকে বঞ্চিত হয়ে দুঃখ-কষ্টের জীবন নিয়ে আফসোস ও ক্রন্দন করে যাচ্ছে। এসব কথা কেউ মিডিয়াতে প্রচার করে না। প্রচার হয় মিথ্যা সব রঙিন রঙিন কথা, যা অবাস্তব।

Views All Time
1
Views Today
1
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+

মন্তব্য করুন

মন্তব্য করতে আপনাকে অবশ্যই লগইন করতে হবে