জনাব হাসান মাহমুদ সাহেব হাক্কানী মিশন কর্তিৃক আমন্ত্রিত ।


জনাব হাসান মাহমুদ সাহেব হাক্কানী মিশন কর্তিৃক আমন্ত্রিত।

 

HAKKANI

 

 

কেন তিনি আমন্ত্রিত?

হাসান মাহমুদ সাহেব দীর্ঘদিন যাবৎ তার লিখনী, ভিডিও, বক্তব্য, সভা সমাবেশ এর মধ্য দিয়ে কোরান হাদিছের আলোকে ইছলামের শান্তি পূর্ণ দিকটা তুলে ধরে, ধর্মের নামে বর্বরিক আচরন দূর করার লক্ষে ও মুসলমানদেরকে বর্তমান যুগের সংগে খাপ খাইয়ে অন্যান্য জাতির সংগে হিংসাত্মক মনোভাব পরিহার করে, একটা পরশ্পরের সংগে শান্তিপূর্ণ ও বন্ধুত্ব ভাব বজায় রেখে একত্রে বসবাসের ফর্মুলার উপর কাজ করে যাচ্ছেন।

 

তার এই প্রচারণা যথেষ্ঠ অগ্রগতি ও লাভ করেছে। এ ব্যাপারে আপনারা ইতিপূর্বে তার বেশ কিছু নমুনা ও দেখতে পেয়েছেন।

 

কেন তার প্রচারনা এত দ্রুত অগ্রসর হচ্ছে?

 

কারণ তিনি কোরান হাদিছের নাম দিয়ে মাজহাবী ইমামদের বরাত দিয়ে যে সব  বার্বরিক কুসংস্কার প্রথা যেমন, শারীয়া আইনের মাধ্যমে প্রস্তরাঘাতে মৃত্যুদন্ড, তাৎক্ষনিক ৩ তালাক, হিল্লা বিবাহ ইত্যাদি মুছলিম সমাজে পারিবারিক জীবনকে দুর্বিসহ করে তুলেছে, তা তিনি কোরান হাদিছ দ্বারাই জোরালো ভাবেই খন্ডন করে দিয়েছেন, তার পুস্তক ও ভিডিও গুলীর মধ্য দিয়ে।

 

আপনারা আরো জেনে আশ্চর্য হয়ে যাবেন, যে, হানাফী মাজহাবের প্রবক্তা ইমাম আবু হানিফা নিজে জীবনে একটি ফতোয়ার কিতাব ও লিখে যান নাই ও নিজে কোন মাজহাব তৈরী ও করেন নাই, বা মানতেও নির্দেশ দিয়ে যান নাই, এমনকী তার প্রধান দুই শিষ্য ইমাম আবু ইউছুফ ও ইমাম মোহাম্মদ (রহঃ), তাদেরই গুরু ইমাম আবু হানিফার দুই তৃতীয়াংস ফতোয়াকে তৎকালেই খন্ডন করে দিয়েছেন।

 

অথচ তার নাম দিয়ে অন্যদের দ্বারা তার মৃত্যুর পর হাজার হাজার ফতোয়া তৈরী করে বর্তমানের তথাকথিত এই “শারীয়া আইন” নামক আইন গ্রন্থে আইন গুলিকে হানাফী ফতোয়া বলে চালু করে দেওয়া হয়েছে!!!

 

হাছান মাহমুদ সাহেবের সংগ্রাম এই সব জলজ্যান্ত কোরান হাদিছ বিরোধী কুসংস্কারের বিরুদ্ধে।

 

এ বিষয়ে বিস্তারিত জানতে নীচে তার ওয়েব ছাইটে গিয়ে তার

পুস্তক “ শরীয়া কী বলে ও আমরা কী করি”

ও MOVIES,

  1. NARI: The Divine Stone.
  2. Hilla: Silent Genocide

 

দেখুন-

 

ছাইট-    http://hasanmahmud.com/

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

 

শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+