জামাত হিন্দুদের রথযাত্রার জন্য হরতাল শিথিল করল অথচ রোযাদার মুসলমানদের জন্য সকাল-সন্ধ্যা হরতাল!


কুখ্যাত ধর্মব্যবসায়ী জামাতের হাক্বীক্বত বুঝতে আর কী বাকি থাকলো?

‘ইসলামী’ নামধারী ধর্মাশ্রয়ী জামাত হিন্দুদের রথযাত্রার জন্য হরতাল শিথিল করল অথচ রোযাদার মুসলমানদের জন্য সকাল-সন্ধ্যা হরতাল!

পবিত্র রমযান শরীফ উনার সম্মান, মর্যাদা, পবিত্রতা রক্ষার বিষয়ে পবিত্র কালামুল্লাহ শরীফ, পবিত্র হাদিছ শরীফ উনাদের মধ্যে গুরুত্ব দিয়ে বলা হয়েছে। পবিত্র হাদীছ শরীফ উনার মধ্যে ইরশাদ মুবারক হয়েছে, “রোযা হচ্ছে ঢাল। যখন তোমাদের কেউ রোযা থাকে সে যেন অশ্লীল কথাবার্তা না বলে এবং মূর্খের ন্যায় কাজ না করে। কেউ যদি তাকে গালি দেয় বা ঝগড়া বিবাদে লিপ্ত হয় তাহলে সে যেন বলে, আমি রোযাদার, আমি রোযাদার। (পবিত্র বুখারী শরীফ)

অথচ ধর্র্মব্যবসায়ী, ধর্মাশ্রয়ী, ইহুদীদের এজেন্ডা বাস্তবায়নকারী দল, কুখ্যাত ধর্মব্যবসায়ী সিআইএ’র এজেন্ট মওদুদীর অনাদর্শের অন্ধ অনুসারী দল জামাত-শিবির পবিত্র রমযান মাস উনার শুরুতেই লাগাতার হরতাল দিয়ে সীমাহীন অরাজকতা ছড়িয়ে দেয়। নিরপরাধ রোযাদার মুসলমানদের উপর অনর্থক হামলা করে, তাদের গাড়ি ভাংচুর করে, মুসলমানের জান-মালের ক্ষয়-ক্ষতি করে, ব্যবসা-বাণিজ্যে ধস নামিয়ে দিয়েছে। যারা দিন এনে দিন খায় সেসব দিনমজুরদেরকে কষ্ট দিচ্ছে। নাউযুবিল্লাহ। অতএব, তারা মূলত কোনো ইসলামী দল নয়। হাক্বীক্বত তারা মুসলমানও নয়। কেননা, “মুসলমান ওই ব্যক্তি যারা হাত ও জবান থেকে (অপর মুসলমান) নিরাপদ।” (পবিত্র হাদীছ শরীফ)

সুতরাং পবিত্র হাদীছ শরীফ মুতাবিক তারা মুসলমান নয়। আশ্চর্যের ব্যাপার যে, জামাত-শিবির মওদুদীবাদীরা নিজেদের ব্যতীত সকল মুসলমানদেরকে তারা কাফির মনে করে থাকে। এমনকি মুসলমানদের চেয়ে হিন্দুদেরকে তারা বেশি সম্মান ও প্রাধান্য দিয়ে থাকে। নাউযুবিল্লাহ। আর এ জন্যই রোযাদার মুসলমানদের জন্য তাদের কোনো দয়া হলো না, অথচ মুসলমানদের শত্রু হিন্দুদের রথযাত্রার জন্য তারা তাদের হরতাল ২ ঘণ্টা শিথিল করে দিলো। নাঊযুবিল্লাহ!

Views All Time
2
Views Today
2
শেয়ার করুন
TwitterFacebookGoogle+